বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

শরবতী

"মজার গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান PRINCE FAHAD (১৫০১ পয়েন্ট)



X বন্ধুরা বলেছিলো বাসর রাতে বিছানায় যাওয়ার আগে নাকি দুধ খেতে হয়! বেশ কিছু মুভিতেও সেম কাহিনী। দুধ পানের রহস্য আমি উদঘাটন করতে পারলাম না,বিয়ে করার উত্তেজনায়। তো বিয়ে হলো। বৌ মাশা-আল্লাহ পরী। নাম শ্রাবনী। তো হলো কি বাসর ঘরে প্রবেশ করতেই সে বিছানা থেকে ছুটে এসে সালাম করে টেবিল থেকে দুধের গ্লাস না দিয়ে আমার হাতে ধরিয়ে দিলো লেবু শরবত। আমি তো বোকা*** হয়ে গেলাম। বউ বললো -নিবির এই শরবতটা পান করে নিন।সারাদিনের ক্লান্তি দূর হবে। আমি শরবতটা মুখে দিতেই শ্রাবণী গ্লাসটা একরকম আমার হাত থেকে কেরে নিয়ে এক চুমুকে সম্পুর্ণটা শেষ করে ফেললো। আমি কিছু একটা বলতে যাবো এর আগেই শ্রাবণী বললো -এই জানো শরবত আমার খুউউউব প্রিয়। আমি ভেবেছিলাম প্রিয় হতেই পারে তবে ওর বাড়াবাড়ি রকমের শরবত প্রিয় .... . আগে আমি সকাল বিকাল চা পান করতাম...শ্রাবণীর জন্য এখন আমার তিন বেলাই শরবত পান করতে হয়। এদিকে আমি চায়ের নেশায় দোকানে গিয়ে বসি, যা তার মোটেও পছন্দ না। অন্যদিকে ওর শরবতের জন্য চিনি, লেবু এসব কিনে নিয়ে আসতে আসতে আমি ফতুর প্রায়... এভাবে কেটে গেল তিন মাস। রোজা শুরু হওয়ার পর অবস্থা আরো বেগতিক। ইফতার, সেহরি আবার এর মাঝেও প্রায় তিন চার বার সে শরবত খায়। কি করবো আমি আপনারাই বলেন। এর মধ্যে ওর সাথে শরবত নিয়ে ঝগড়া হয়। ছোট খাটো ঝগড়া জাকে বলে আর কি সে রকম। তো এই ছোট ঘটনার জন্য সে রাগ করে বাপের বাড়ি চলে যায়। কিছুদিন পর আমি তার রাগ অভিমান ভাঙ্গানোর জন্য শশুরবাড়ি যাই। গিয়ে শুনি শরবত নিয়ে আমার স্ত্রীর প্রচুর কাহিনী আছে। এমনকি শরবত নিয়ে কেউ উল্টো পাল্টা কথা বললেই বৌ আমার মারামারিও করে। একবার সে নাকি তার এক স্যারের মাথা ফাটিয়ে দিয়েছিলো শরবত কে "সাধারণ " বলার অপরাধে। সেই থেকেই আমার শিক্ষা হয়ে গেছে। তাই নিরবে অশ্রু ঝরিয়ে তার এই শরবত-অত্যাচার মুখ বুজে সহ্য করছি। ঈদের কিছু দিন পর থেকে সে আরো বদলাতে শুরু করলো। ইদানীং সে বেশী করে লেবু দিয়ে টক করে শরবত খেতে শুরু করেছে। আর এদিকে লেবুর দাম যে হারে বাড়ছে.... তবুও কি আর করার। আমার একমাত্র বৌ বলে কথা। কয়েকদিন পর জানতে পারলাম যে আমার ঘরে নতুন অতিথি আসছে। আমি তো ভিশন খুশি। আমার চেয়েও বেশি খুশি শ্রাবণী। তার যেন খুশি ধরে না। সে এই খুশির খবর শুনে শরবত মুখ করলো। যেখানে অন্যরে করে মিষ্টি মুখ ....... এখন তার শরবত খাওয়ার গ্রাফ উপরেই উঠছে। এদিকে আমি আমার প্রথম সন্তান মেয়ে চাই আর সে চায় ছেলে। এই নিয়ে প্রায় মিষ্টি ঝগড়া হয় আমাদের ... আজ ঝগড়া হচ্ছে বাচ্চার নাম নিয়ে। তো শ্রাবণী তখনো শরবত খাচ্ছিল। হঠাৎ সে চিৎকার করে বললো তার মেয়েই হবে। মেয়ের নাম রাখবে "শরবতী"। আমি ওর কথা শুনে আবারও বলদ হয়ে গেলাম তবে তার সাথে তর্কে গেলাম না। . আমি সবেমাত্র বাবা হয়েছি, ফুটফুটে মেয়ের বাবা। মেয়ে হয়েছে থেকেই উউয়ে উউউউয়েএ করে কেঁদেই চলেছে। ওর কান্না কিছুতেই বন্ধ হয় না। এদিকে শ্রাবণী সবাইকে বলছে -আমাকে কেউ একটু লেবু শরবত দাও। এইটা আমার ছোট্ট মা শরবতী কে পান করাতেই দেখবে সে কান্না থামিয়ে দেবে। ডাক্তার সহ সবাই অবাক! কি বলছে শ্রাবণী! এদিকে তার ছোট্ট মা কিছুতেই কান্না থামায় না। ডাক্তার নার্স সহ সকল রোগীরা বিরক্ত! কি আর করার! ডাক্তার রাজি হলো। সবাই ভীর করলো বাচ্চার কান্না থামতে দেখবে বলে। শরবত নিয়ে এলো একজন নার্স। শ্রাবণী সেই শরবত দেখে আবেগে আপ্লুত হয়ে চোখের জল ছেড়ে দিয়ে চামচে করে শরবত নিয়ে তার মেয়ের মুখে দিতেই বাচ্চা মেয়েটা হেসে ফেললো। আর তার মা মানে শ্রাবণী আমার দিকে তাকিয়ে বললো -শরবতীর বাবা,দেখো দেখো আমাদের ঘরে আরও একজন শরবত প্রেমির জন্ম হয়েছে গো! আমি চোখে সব ঝাপসা দেখছি। আমি বোধহয় অজ্ঞান হয়ে যাচ্ছি...... শরবতীর_বাবা #collected


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৭১ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...