বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

"শুধু তোমার জন্য"

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Prince (০ পয়েন্ট)



X writer: prince * আমি মেয়েটার দিকে না তাকিয়ে অন্য দিকে তাকালাম। এসব মেয়ে আসে শুধু গায়ে পরে ঝগড়া করার জন্য আর আমার এই মেয়েগুলার সাথে ঝগড়া করার কোনো ইচ্ছাই নেই, আমি ক্লাশে বসে মিনহাজের সাথে কথা বলছি, একটু পর স্যার ক্লাশে চলে আসলো,স্যার রুমে এসেই সেই মেয়েটাকে ডেকে নিয়ে গেলো ওনার কাছে, ' => হ্যালো স্টুডেন্ট, এ হলো লাবিবা, তোমাদের নতুন ফ্রেন্ড, আগে অন্য কলেজে ছিলো ওখান থেকে ট্রান্সফার হয়ে এখন তোমাদের ক্লাশে এড হয়েছে, মাহিয়া হলো আমাদের প্রিন্সিপাল স্যারের মেয়ে, সবাই ওর সাথে পরিচয় হবা। => আচ্ছা ঠিক আছে স্যার,( সবাই) => লাবিবা তোমার কোনো সমস্যা হলে আমায় এসে বইলো কেমন? => জ্বি স্যার অবশ্যই বলবো। ( আমার দিকে তাকিয়ে রাগি দৃষ্টিতে কথাটা বললো,) => আচ্ছা ঠিক আছে যাও তুমি বসো। ' স্যারের মুখে প্রিন্সিপাল স্যারের মেয়ের কথা শুনেতো কলিজার পানি হুকাইয়া গেছে, আমি আর মিনহাজ দুজনে দুজনের দিকে তাকিয়ে আছি, ' => হ্যারে মিনহাজ আমার এখন কি হবে? এই মেয়ে যদি প্রিন্সিপাল স্যারকে কথাটা বলে দেয়? => কি আর হবে? যা আছে নছিবে তাতো ঘটিবেই। কি আর করবে খুব বেশি হলে কলেজ থেকে বের করে দেবে। => এই কথা বলিসনারে ভাই, কলিজায় লাগে। => কি আর করবি বল, দেখ আগে কি হয়। ' আমি মেয়েটার দিকে একবার তাকালাম, মেয়েটা বড় বড় চোখ করে আমায় ইশারায় বোঝাচ্ছে একটু পরেই মজা বুঝতে পারবা বাবু। না আমারতো এখন টেনশন ধরছে, তবে আজকে যদি প্রিন্সিপাল স্যার আমায় কিছু বলে তাহলে আমিও এই মেয়েরে দেখে নেবো,আমিও ছাড়বো না একে। ক্লাশটা শেষ করে ফ্রেন্ডরা মিলে ক্যাম্পাসে গিয়ে বসলাম, আমি মেয়েটাকে খুঁজছি কিন্তু পাচ্ছি না, ওর বাপটাকে আবার কমপ্লেন করতে গেলো নাকি, ধুর এতো টেনশন ভালো লাগেনা, ' => কিরে কাব্য এতো টেনশন করছিস কেনো? => তো করবোনা? যে ঝামেলা করছি ওই মেয়ের সাথে তাতে করে প্রিন্সিপাল স্যারকে যে বিচার দেবে এটা আমি সিওর, তার ওপর আবার ওরি বাবা আল্লাই জানে কি বলে। => আরে ওসব চিন্তা বাদ দে, কিছুই হবেনা। => তোর কথাটা যেনো সত্যি হয়রে ভাই। তবে আজকে স্যার যদি আমায় কিছু বলে তাহলে আমিও এই মেয়েরে ছাড়বো না, আমিও দেখে নেবো এই মেয়েকে। => এই কি বলিস, তুইনা মেয়েদের সাথে মিশিস না? => মিশিনা তাই বলে কি আমি অপমানের প্রতিশোধ নেবো না? আমায় যে হার্ট করবে তাকে আমি ছাড়বো না। => বুঝতে পারছি সামনে বড় কোনো ধামাকা আসতে চলেছে। => কি আসে আসুক আমি ওসব নিয়ে ভাবতেছি না, আমি শুধু এটাই ভাবি আজ যদি ওর বাপ আমারে কিছু বলে তাহলে ওরেও আমি দেখে নেবো, => আচ্ছা এসব বাদ দে চল পরের ক্লাশে যাবো। => আচ্ছা ঠিক আছে চল। ' আমরা সবাই মিলে ক্লাশে গেলাম, ক্লাশে গিয়ে দেখলাম মেয়েটা বসে আছে, আমায় দেখে অহংকারী হাসি দিচ্ছে, বুঝতে পারছি কিছুতো একটা ভেজাল আছে এই হাসিতে, আমি ওর দিকে না তাকিয়ে সোজা গিয়ে বসলাম, একটু পর স্যার ক্লাশে আসলো, কিছুক্ষন পর কলেজের ক্লার্ক রুমে চলে আসলো, ' => এই এখানে কাব্য কে? => জ্বি আমি কাব্য। => তুমি আসো আমার সাথে তোমায় প্রিন্সিপাল স্যার ডেকেছে। => আচ্ছা ঠিক আছে স্যার। ' আমার সব ফ্রেন্ড আমার দিকে তাকিয়ে আছে, আমিও কিছু না বলে যাচ্ছি, যাওয়ার পথে মেয়েটার দিকে একবার তাকালাম দেখলাম আমার দিকে তাকিয়ে হাসি দিচ্ছে,, আমারে দেখে দিস, খারা যদি আমার কিছু হয় তাহলে তোর সব দাঁত আমি ভেংগে দেবো, আমি ওর দিকে আর না তাকিয়ে প্রিন্সিপাল স্যারের রুমের দিকে গেলাম, ' => আসবো স্যার? => হ্যা আসো। => আমায় ডেকেছেন স্যার? => তোমার নাম কাব্য? => জ্বি স্যার আমি কাব্য। => তুমি লাবিবাকে চেনো? => নাতো স্যার কে এই লাবিবা? => লাবিবা আমার মেয়ে যার সাথে সকালে তোমার ঝগড়া হয়েছে। => ও, সকালের সেই ফা........ সরি, সেই মেয়েটা?? => হ্যা সেই মেয়েটা, তোমার সাহস কি করে হলো ওকে যা খুশি তা বলার। => স্যার আমি কিছু বলিনি, ওনার সাথে আমার ভুলবশত ধাক্কাটা লেগেছে আর ধাক্কা লাগার পরেও আমি ওনাকে সরি বলেছি, কিন্তু তারপরেও উনি আমায় অপমান করেছেন তাই আমার খুব রাগ হয়েছে তাই আমিও কয়েকটা কথা বলেছি। => মেয়ে মানুষকে ধাক্কা দিলে ওরা কথা শোনাবেতো কি বসে থাকবে চুপ করে? তোমায় কি বাসাতে ভদ্রতা শেখায়নি তোমার বাবা মা? ' একটু আগে আমিও আপনার মেয়েরে এই কথাগুলাই বলছি,বলেন যতো পারেন বলে নেন এই সবকিছুর শোধ আমি আপনার মেয়ের কাছ থেকে নিয়ে নেবো সুদে আসলে। আপনিও আমারে এখনো চেনেননি স্যার, ' => তুমি আমার মেয়েকে অপমান করো, তোমার সাহস হলো কি করে? => স্যার আমিতো তেমন কিছু বলি..... => চুপ করো আবার মুখে মুখে কথা বলো, এর পর যদি এরকম কোনো কমপ্লেন শুনি তাহলে কিন্তু এই ভার্সিটি থেকে একদম বের করে দেবো। => জ্বি স্যার। => যাও এখন। ' আমি কিছু না বলে স্যারের রুম থেকে বেরিয়ে আসলাম, হালারপো হালা নিজের মাইয়া বইলা এভাবে বললি নিজে যদি ধাক্কাটা খাইতিস তাহলে বুঝতি আসলে কি হয়েছিলো, আমি সোজা গিয়ে ফ্রেন্ডদের সাথে আড্ডায় বসে গেলাম, ' => কিরে এমন মুড খারাপ কেনো স্যার কি কিছু বলেছে না কি? => তো বলবে না? নিজের মেয়ে বলে আমার কাছে পার্ট নিলো, কতোগুলো কথা শোনালো আমারে, আমারে বলে যে এরপর এরকম হলে ভার্সিটি থেকে বের করে দেবে। => এই তোকে একটা ফ্রিতে ভালো বুদ্ধি দেই, তুই আর ওই মেয়ের সাথে লাগিস না, একবার যে থ্রেট দিলো তাতে ওই মেয়ের আশেপাশে না যাওয়াই ভালো। => এই তুই কি বলতেছিস এসব? আমি এতো তারাতারি হার মানবো ওই মেয়ের কাছে? আমি ছাড়বোনা ওই মেয়েকে, দেখবো কি করতে পারে ওই মেয়ে আমার। => তোকে ভালো বুদ্ধি দেওয়ার ছিলো দিলাম, এখন ভাব তুই কি করবি। => তোদের কিছু বলতে হবেনা। ' আমি আমার ফ্রেন্ডদের সাথে আড্ডা দিচ্ছি এমন সময় দেখলাম লাবিবা ওর ফ্রেন্ডদের সাথে কোথায় যেনো যাচ্ছে, এটা একটা ভালো সুযোগ ওকে কথা শোনানোর, ' => বুঝেছিস মিনহাজ দুনিয়াতে অনেককিছুই দেখলাম, শেষে ভিতুকেও দেখলাম নিজ চোখে যে নিজে কিছু করতে না পেরে বাবার দ্বারা কথা শুনিয়ে নেয়। ' আমার কথা শুনে লাবিবা দাড়িয়ে গেলো, এটাইতো চেয়েছি আমি, লাবিবা সোজা আমার কাছে চলে আসলো, ' => কি বলতে চান আপনি? => কেউ নার্সারির বাচ্চা নয় যে আংগুল দিয়ে দেখিয়ে দেখিয়ে বুঝে দেবো। =>


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২৭৩ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...