বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

"সিনিয়র গার্ল ফ্রেন্ড ""

"রোমাঞ্চকর গল্প " বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Prince (০ পয়েন্ট)



X - আমি এখন রাস্তা দিয়ে হাঁটছি।শুধু হাঁটছি বললে ভুল হবে একজনকে ফলো করছি।আজ ৪ মাস যাবৎ উনাকে ফলো করছি কিন্তু কোন কাজ হচ্ছেনা।প্রতিদিন বাড়ি থেকে বের হয় উনাকে প্রপোজ করবো বলে কিন্তু উনাকে দেখলেই সবকিছু ভুলে যাই।হঠাৎ রুপা কাকে জেনো ডাকলো।।প্রথমে ভাবলাম অন্যকে ডাকছে কিন্তু পরের বার আমার নাম ধরে ডাকলো। যেহেতু আমার নাম ধরে ডেকেছে সেহেতু আমাকেই ডাকছে।আমি ভয়ে ভয়ে ওর সামবে গেলাম।গিয়ে বললাম আমাকে ডাকছেন। :হ্যাঁ আপনাকেই।এখানে আসেন।প্রতিদিন আমার পিছু পিছু আসেন কেনো জানতে পারি। :না মানে আমি এই পথ দিয়েই বাড়িতে যাই প্রতিদিন। :এক থাপ্পর দিয়ে দাঁত সব ফেলে দিবো ফাজিল কোথাকার।তোর বাড়ি এই দিকে না সেটা আমি ভালো করেই জানি।আমার পিছু পিছু প্রতিদিন কেনো আছিস সেটা বল। ওর কথা শুনে আমি কিছুটা ভয় পেয়ে গেলাম কিন্তু নিজেকে সামলে নিয়ে বললাম :আমি আপনাকে পছন্দ করি। ঠাস ঠাস। আপনারা ভাবছেন কিসের শব্দ হলো তাইনা।রুপা আমাকে চড় মেরেছে।তাও একটা না দুই গালে দুইটা। সে আবার বলতে শুরু করলো :তুই কোন ক্লাসে পড়িস আর আমি কোন ক্লাসে পড়ি জানিস।তোর থেকে এক বছরের সিনিয়র আমি। বড় আপুকে প্রেমের অফার করিস তোর লজ্জা করেনা।তুই কী করে ভাবলি তোর সাথে আমি প্রেম করবো।আর কোনদিন যদি তোকে এই রাস্তা দিয়ে যেতে দেখি তাহলে তোর খবর আছে। আরো অনেক কথা শুনিয়ে রুপা চলে গেলো।নিজের প্রতি নিজেরই রাগ হচ্ছে।কেনোযে এই মেয়ের পাল্লায় পড়েছিলাম।আজ ৪ মাসের সব চেষ্টা জলে গেলো।বুকের বাম পাঁশটায় খুব ব্যাথা করছে।রাস্তা দিয়ে হাঁটছি আর ভাবছি রুপা আমার সাথে এমন ব্যবহার করতে পারলো।আমি না হয় ওর এক ক্লাস জুনিয়র তাই বলে কী আমাকে ভালবাসা যাবেনা।কোথায় লেখা আছে যে সিনিয়র জুনিয়র প্রেম করা যাবেনা।এসব ভাবতে ভাবতে বাড়িতে চলে এলাম।রুপা আমাকে যতই মানা করুক আমি ওর পিছু পিছু যাবোই। ও সরি আপনাদেরতো পরিচয়ই দেওয়া হয়নি।আমি হিমু এবার অনার্স ৩য় বর্ষের ছাএ।আর যার হাতে থাপ্পর খেলাম উনি রুপা এবার অনার্স ৪ র্থ বর্ষের ছাএী।রুপাকে প্রথম দেখেছিলাম কলেজের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে। সেদিন লাল শাড়ি পড়ে এসেছিলো।আমি প্রথম দেখাতেই ক্রাস খেয়েছিলাম।পরে খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারি মেয়েটা আমার একবছরের সিনিয়র।যেহেতু আমার সিনিয়র তাই ভাবলাম সবকিছু এখানেই শেষ।কিন্তু মন সেটা মানতে চাইলো না।সারারাত অনেক ভেবে সিদ্ধান্ত নিলাম ওকেই ভালবাসবো।পরেরদিন থেকে নেমে পড়লাম মিশনে।প্রথম প্রথম শুধু কলেজেই ফলো করতাম কিন্তু সময় যত যেতে থাকলো তত আমার,সাহস বাড়তে থাকলো।আস্তে আস্তে ওর বাড়ি পর্যন্ত ফলো করা শুরু করলাম।কথায় আছেনা বেশি বাড়লে ঝড়ে ভেঙ্গে পড়তে হয় আমার ক্ষেএেও তাই হলো।যার ফলাফল আজকের থাপ্পর। পরেরদিন আবার গেলাম রুপাকে ফলো করতে । আগেরদিনের মত আবারো আমাকে অপমান করলো এবং বললো ওর বয়ফ্রেন্ড আছে।ওর বয়ফ্রেন্ড আছে এটা শুনে খুব কষ্ট লাগলো।ওর যেহেতু বয়ফ্রেন্ড আছে সেহেতু ও আমাকে ভালবাসবে না এটা নিশ্চিত তাই পরেরদিন থেকে ওর পিছনে ঘুরা বাদ দিয়ে দিলাম। ২ আমি এখন বসে আছি একটা পার্কের মধ্যে।এখানে আসার একটা কারণ আছে।রুপা একটু আগে ফোন দিয়ে বললো তাঁড়াতাঁড়ি এখানে আসতে তাই আসলাম।প্রথমে আস্তে চাইনি কিন্তু ওর জোরাজুরিতে আসতে হলো।আমাকে মনে হয় ওর বয়ফ্রেন্ডের সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য এখানে আসতে বলেছে।অনেকক্ষন যাবৎ অপেক্ষা করছি কিন্তু তাঁর আসার কোন নাম গন্ধই নাই।ওইতো রুপা আসছে।আজ সে শাড়ি পড়েছে।আজ তাঁকে খুব সুন্দর লাগছে।আমি আবার ওর উপর ক্রাশ খেলাম।কিন্তু ক্রাস খেয়ে লাভ নেই কারণ ওর বয়ফ্রেন্ড আছে।রুপা আমার পাশে এসে বসলো।আমি ওর দিকে একবার তাঁকালাম তাঁরপর আবার অন্যদিকে তাঁকিয়ে বসে থাকলাম।হঠাৎ মনে হলো আমার কানটা গরম হয়ে যাচ্ছে।রুপা আমাকে থাপ্পর মেরেছে।কিছু বুঝে ওঠার দেখলাম রুপা আমাকে জরিয়ে ধরে হু হু করে দিলো।আমি ওকে ছাড়িয়ে বললাম :আপনার বয়ফ্রেন্ড দেখে ফেললে সমস্যা হবে।(আমি) :আমার বয়ফ্রেন্ডকেই আমি জরিয়ে ধরেছি।(রুপা) :দেখেন আপু ইয়ারর্কি ভালো লাগছেনা।আমাকে কী জন্য ডেকেছেন সেটা বলেন আমার কাজ আছে। :ওই কুওা তুই আমাকে আপু বললি কেনো।আরেকবার আপু বলে ডেকে দেখ তোর খবর আছে।আর এতদিন কোথায় ছিলি সেটা বল। :আমি যেখানেই থাকি তাতে আপনার কী। :আমার অনেক কিছু আমি রুপার কথার মাঝে কেমন যানি রহস্য পাচ্ছি। :আপনার কিছু বলার থাকলে বলেন নাহলে আমি চলে যাই। :তুই এখান থেকে ওঠে দেখ তোর খবর আছে।আমাকে কাঁদাতে তোর ভাল লাগে তাইনা। :আমি আবার আপনাকে কখন কাঁদালাম। :ওই তুই আমাকে কাঁদাস নাই তাইনা।(কলার চেপে ধরে)তোকে আমি ভালবাসি এটা বুঝিস না। :আপনি আমাকে ভালবাসবেন কেনো আপনার না বয়ফ্রেন্ড আছে। :তুই কথার মাঝে কথা বলিস কেনো।আমার কথা শেষ হবার আগে একটা কথাও বলবিনা। :আচ্ছা বলেন। :সেদিন তোমাকে এভাবে আমার অপমান করা ঠিক হয়নি।প্রথম যেদিন তোমাকে আমার পিছু পিছু আসতে দেখলাম না সেদিন আমি সবথেকে খুঁশি হয়েছিলাম। :আপনি আমাকে তুমি করে বলছেন কেনো আপনিতো আমার থেকে বড়। :ওই ফাজিল চুপ করবি।পরেরদিন থেকে তোমাকে মিস করতে শুরু করি।তোমাকে মনের অজান্তেই ভালবেসে ফেলি।তারপর থেকে প্রতিদিন তোমাকে কলেজে রাস্তায় সবজায়গায় খুজি কিন্তু কোথাও পাইনি। :আমাকে পাবেন কী করে আমিতো ঘর থেকে বেরই হয়না। :তোকে এক থাপ্পর দিয়ে সব দাঁত ফেলে দিবো।তোকে বারবার মানা করার পরেও কেনো কথার মাঝে কথা বলিস। কী মেয়েরে বাবা এই বলে তুমি আবার এই বলে তুই। :আচ্ছা বলেন।(আমি) :তারপর তোমার ফ্রেন্ডের কাছ থেকে নাম্বার নিয়ে তোমাকে ফোন দিই। :আমার কোন ফ্রেন্ড আপনাকে নাম্বার দিয়েছে বলোতো।ওর জন্যই আমি আপনার হাতে আজ আবার দুইটা থাপ্পর খেয়েছি। ওকে আমি চারটা থাপ্পর দিবো। :তুই যদি এখন চুপ না করিস তোকে আরো দুইটা মারবো। এই মেয়ের বলে বিশ্বাস নেই বলেছে যখন তখন থাপ্পর মারবেই তাই চুপ হয়ে গেলাম। :আমাকে এখনি প্রপোজ কর নাহলে তোর খবর আছে। (রুপা) :আমি আপনাকে প্রপোজ করবো কেনো।আপনারতো বয়ফ্রেন্ড আছে(আমি) :সেদিন মিথ্যা বলেছিলাম।এত কথা না বলে প্রপোজ করতে বলেছি কর। :যদি না করি। কথাটা বলার সাথে সাথে রুপা আবার আমার কলার চেপে ধরলো।এবং বললো :আমাকে এখন প্রপোজ না করলে তোর হাত পা সব ভেঙ্গে দেবো। :আমি ভয়ে ভয়ে ওকে বললাম। আইআই লাভ ইউ। কথাটা বলার সাথে সাথে রুপা আমাকে জরিয়ে ধরলো।আমিও রুপাকে জরিয়ে ধরলাম আর মনে মনে বললাম অবশেষে সিনিয়র জুনিয়রের মিলন হলো।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২৫০৫ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...