বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

আমার সাইন্টিস মামা (২৪)

"ছোটদের গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান TARiN (৩০ পয়েন্ট)



X মুহম্মদ জাফর ইকবাল লাঞ্চ খেয়েই মামা চলে গেল। আমি আর মাহবুব রয়ে গেলাম মনি কাঞ্চনে। এখানে অনেক কিছু করার ব্যবস্থা আছে, ডোরিন আর টনি সেগুলো আমাদের দেখাবে। প্রথমে দেখালো ব্যায়াম করার জায়গা। সেখানে পাহাড়ের মতো বড় বড় সাদা চামড়ার মানুষ এক জায়গায় দাঁড়িয়ে দৌড়াচ্ছে, দেখে খুবই আজব লাগে যে একজন প্রাণপণে দৌড়াচ্ছে কিন্তু নিজের জায়গা থেকে নড়ছে না। তারপর নিয়ে গেল বিলিয়ার্ড খেলার রুমে। আমি আগে শুধু সিনেমায় দেখেছি মানুষজন বিলিয়ার্ড খেলছে এবং তখন ডাকাতেরা গুলি করে সব লুটপাট করে নিচ্ছে। একটা টেবিল খালি ছিল ডোরিন আর টনি সেটা দখল করে নিয়ে বিলিয়ার্ড বলগুলি সাজিয়ে নিল। আমরা তখন বল দিয়ে খানিকক্ষণ ঠোকাঠুকি করলাম একদিকে মারলে বল অন্যদিকে ছুটে যায় আর আমরা সেটা দেখে হাসতে হাসতে গড়াগড়ি খেতে লাগলাম। যারা অন্য টেবিলে বিলিয়ার্ড খেলছিল তারা আমাদের এই হাসাহাসি শুনে খুবই বিরক্ত হচ্ছিল কিন্তু আমরা তাদের পাত্তা দিলাম না। তারপর আমরা রিসোর্টের বাইরে এলাম। প্রথমে ডোরিন আর টনি আমাদেরকে সুইমিংপুলে নিয়ে গেল। সুইমিংপুলটা খুবই সুন্দর, প্রথমে ভেবেছিলাম সেখানে বুঝি টলটলে নীল পানি কিন্তু পানির তো আর কোনো রং হয় না, তখন বুঝতে পারলাম সুইমিংপুলটা নীল রংয়ের টাইলস দিয়ে তৈরি করেছে তাই মনে হচ্ছে পানিটাই বুঝি নীল। সুইমিং পুলের এক পাশে ডাইভ দেওয়ার জায়গায় মোষের মতো বড় একটা মানুষ লাল রংয়ের ছোট আর টাইট একটা জাঙ্গিয়া পরে সেখান থেকে একটা ডাইভ দিল মনে হলো তার ধাক্কায় সুইমিংপুলের সব পানি বুঝি উপরে উঠে গেল। আমরা পানিটা হাত দিয়ে দেখলাম যথেষ্ট ঠান্ডা। মাহবুব পানিটা শুঁকে বলল ওষুধের গন্ধ। নদী আর হাওড়ের এতো সুন্দর পানি থাকতে মানুষ ঠান্ডা ওষুধের গন্ধে ভরা পানিতে লাল জাঙ্গিয়া পরে কেন সাঁতার কাটতে চায় কে জানে। সুইমিং পুলটা দেখে আমরা মাঠে চলে এলাম। সেখানে পাশাপাশি অনেকগুলো টেনিস কোর্ট। টনি বলল, “চল টেনিস খেলি।” আমি বললাম, “টেনিস কেমন করে খেলে আমি জানি না।” ডোরিন বলল, “এর মাঝে জানার কী আছে? বলকে র‍্যাকেট দিয়ে পিটাবে।” মাহবুব বলল, “তা ঠিক। আমরা তো কম্পিটিশনে খেলব না।” ডোরিন বলল, “দাঁড়াও, আমি টেনিস র‍্যাকেট আর বল নিয়ে আসি।” আমরাও ডোরিনের সাথে টেনিস বল আর র‍্যাকেট আনতে গেলাম। একটা আলমারীর ভিতর র‍্যাকেট আর বল সাজানো আছে। আমরা বেছে বেছে হালকা দেখে চারটা র‍্যাকেট আর কয়েকটা টেনিস বল নিয়ে এলাম। টেনিস কোর্টে এসে আমরা খেলার চেষ্টা করতে থাকলাম। বলগুলিকে মারতে অনেক শক্তি লাগে। প্রায় সবগুলি বলই নেটে আটকে যেতে লাগল, কিন্তু তাতে আমাদের উৎসাহ মোটেও কমল না। টেনিস খেলতে খেলতে এক সময় আমরা টেনিস বল দিয়ে একজন আরেকজনকে মারতে গুরু করলাম এবং আবিষ্কার করলাম টেনিস খেলা থেকে এই খেলাতেই মজা অনেক বেশি। টেনিস কোর্টে র‍্যাকেট রেখে আমরা ছোটাছুটি করতে করতে এক সময় মনি কাঞ্চনের পিছনের দিকে চলে এলাম। জায়গাটা গাছপালা দিয়ে ঢাকা এবং অনেক নিরিবিলি। বড় বড় ঘাস এবং ঝোঁপ ঝাড়। সেখানে ডোরিন একবার তার টেনিস বল দিয়ে আমাকে মারল এবং বলটা মাটিতে ড্রপ খেয়ে লাফিয়ে উপরে উঠে একেবারে অদৃশ্য হয়ে গেল! আমরা বলটা আর খুঁজেই পেলাম না। জলজ্যান্ত একটা বল কেমন করে চোখের সামনে অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে আমরা বুঝতেই পারলাম না। টনি বলল, “ছেড়ে দাও। আরেকটা টেনিস বল নিয়ে আসি চল।” কিন্তু আমার কেন জানি চোখ চেপে গেল। আমি খুঁজতেই থাকলাম, খুঁজতেই থাকলাম। ঠিক যেখানে বলটা পড়েছে সেই জায়গাটা পাতি পাতি করে খুঁজতে খুঁজতে হঠাৎ এক জায়গায় একটা গোল গর্ত দেখতে পেলাম। গর্তটা বেশ গভীর, কিছু দেখা যায় না। আমি ভিতরে হাত ঢুকিয়ে হাতটা নাড়াচাড়া করতেই একপাশে একটা আংটার মতো জিনিস পেলাম। হাত দিয়ে সেটা নাড়াচাড়া করে বোঝার চেষ্টা করলাম এটা কী। ঠিক বুঝতে পারলাম না। তখন এটা ধরে টান দিতেই কিছু একটা নড়ে উঠল, কী নড়ল ঠিক বুঝতে পারলাম না। তখন আবার টান দিতেই উপরের মাটিটা নড়ে উঠল। মনে হলো এটা একটা ঢাকনার মতন, এর উপর মাটি জমেছে সেখানে ঘাস উঠেছে। সবাই আমার দিকে তাকিয়ে ছিল, মাহবুব জিজ্ঞেস করল, “কী পেয়েছ?”  “বুঝতে পারছি না। মনে হচ্ছে একটা ঢাকনা। টান দিলে খুলে যাবে।” “সত্যি?” বলে মাহবুবও আমার পাশে হাঁটু গেড়ে বসে গেল। তারপর সেও হাত দিয়ে কড়াটা ধরল। তখন আমরা দুজন ধরে টান দিতেই ঢাকনা বেশ একটু উঠে এলো। ডোরিন আর টনিও তখন ঢাকনাটা ধরে ফেলল। আমরা চারজন মিলে তখন ঢাকনাটা টেনে খুলে ফেললাম। অবাক হয়ে দেখলাম নিচে একটা সিঁড়ি নেমে গেছে। এবং সিঁড়ির নিচে আমাদের টেনিস বলটা পড়ে আছে। এখন অবশ্য এই টেনিস বলটা নিয়ে আমাদের কোনো মাথা ব্যথা এবং আগ্রহ নেই। এই রহস্যময় সিঁড়িটা কোথায় গেছে সেটা নিয়ে আমাদের আগ্রহ। আমরা নিঃশব্দে একজন আরেকজনের মুখের দিকে তাকালাম। তারপর এদিক সেদিক তাকালাম, বোঝার চেষ্টা করলাম কেউ আমাদের দেখে ফেলেছে কি না। আমরা ঝোঁপ ঝাড় দিয়ে আড়াল হয়ে আছি, কেউ আমাদের দেখছে না। চারজন আরো উবু হয়ে বসলাম যেন কেউ দেখতে চাইলেও দেখতে না পারে। আমি সবার আগে কথা বললাম, “চল, নামি।” মাহবুব সাথে সাথে রাজি হয়ে গেল, বলল, “হ্যাঁ, চল।”  ডোরিন ইতস্তত করে বলল, “নামবে? যদি কিছু হয়?”  আমি বললাম, “কী আর হবে? দেখে আসি সিঁড়িটা কোথায় গেছে।” ডোরিন শেষ পর্যন্ত রাজি হলো। বলল, “ঠিক আছে।” টনি ঠিক সাহস পাচ্ছিল না কিন্তু সবাই যদি নেমে যায় তখন একা একা থেকে যাওয়াটা কেমন দেখায়? তাই সেও রাজি হলো। আমরা একজন একজন করে সিঁড়ি দিয়ে নামতে লাগলাম। সবাই নেমে যাবার পর ঢাকনাটা আবার টেনে ঢেকে দিলাম যেন বাইরে হঠাৎ কেউ চলে এলেও বুঝতে না পারে এখানে কিছু আছে। ঢাকনাটা টেনে দেবার পর প্রথমে সিঁড়িটা ঘুটঘুঁটে অন্ধকার হয়ে গেল তারপর আস্তে আস্তে অন্ধকারটা একটু কেটে গিয়ে আমরা আবছা আলো দেখতে পেলাম। মনে হলো সামনে একটা দরজা সেই দরজার নিচ দিয়ে একটু আলো বের হচ্ছে। আমরা কোনো কথা না বলে খুব সাবধানে নিচে নামতে থাকি। দরজার সামনে গিয়ে আমরা দাঁড়ালাম, দরজাতে হাত দিয়ে দেখার চেষ্টা করলাম কোনো হ্যাঁন্ডেল আছে কি না। সত্যি সত্যি একটা হ্যাঁন্ডেল পেলাম। হ্যাঁন্ডেলটা ঘোরালে দরজাটা খুলবে আমরা একেবারেই আশা করিনি। কিন্তু সত্যি সত্যি শক্ত হ্যাঁন্ডেলটা একটু জোর দিয়ে চাপ দিতেই খুট করে দরজাটা খুলে গেল। দরজার অন্য পাশে কি আছে আমরা জানি না তাই দরজাটা আগেই খুলে ফেললাম না। খুব সাবধানে একটু ফাঁক করে সেই ফাঁক দিয়ে উঁকি দিলাম। মনে হলো সামনে একটু খানি ফাঁকা জায়গা তারপর আরেকটা দরজা। আমরা তখন সাবধানে ফাঁকা জায়গাটায় এসে দাঁড়ালাম। আগের দরজাটা খুলেছে বলে এটাও খুলবে তার কোনো গ্যারান্টি নেই। এবং আমাদের সন্দেহ সত্যি হলো। আমরা নাটা ঘোরানোর চেষ্টা করে বুঝতে পারলাম এটা তালা মারা। কাজেই আর ভেতরে যাওয়ার উপায় নেই। টনি একটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে বলল, “চল ফিরে যাই।” আমরা ফিরেই যাচ্ছিলাম তখন ডোরিন চাপা গলায় বলল, “এই দেখ।” আমরা দেখলাম দেওয়ালে একটা চাবির রিং ঝুলছে। সেখানে ছোট বড় কয়েকটা চাবি। আমি আনন্দের চাপা একটা শব্দ করে চাবির রিংটা হাতে নিয়ে একটা একটা করে চাবিগুলো নবের ভেতর ঢোকানোর চেষ্টা করলাম। প্রথম দুটো কাজ করল না, তিন নাম্বারটা চাপ দিতেই ঢুকে গেল। আমি সাবধানে চাবিটা ঘোরালাম এবং দরজাটা খুট করে খুলে গেল। দরজায় ওই পাশে কী আছে আমরা জানি না তাই কয়েক সেকেন্ড নিঃশব্দে অপেক্ষা করলাম। যখন কিছুই হলো না তখন খুব সাবধানে দরজাটা ধাক্কা দিয়ে একটুখানি ফাঁক করে ভিতরে তাকালাম। সামনে ঝকঝকে একটা করিডোর, আলোতে ঝলমল করছে। আমি করিডোরের দুই দিকে তাকালাম, কোনো মানুষ নেই। শুধু যন্ত্রপাতির একটা চাপা গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। টনি বলল, “অনেক দেখা হয়েছে। এখন চল যাই।”  আমি বললাম, “একটু ভিতরে ঢুকি।”  টনি ভয় পাওয়া গলায় বলল, “না, প্লিজ না।” আমি আর কথা না বাড়িয়ে দরজা খুলে ভিতরে ঢুকে গেলাম। আমার পিছু পিছু মাহবুবও ঢুকে গেল। তার পিছনে ডোরিন এবং সবার শেষে টনি। টনি ভয় পাওয়া গলায় বলল, “যদি কেউ দেখে ফেলে।” “দেখে ফেললে দেখবে। আমরা কি চুরি করতে এসেছি?” আমাদের বলটা পড়ে গেছে সেটা খুঁজতে খুঁজতে এসেছি।” মাহবুব মাথা নাড়ল, অন্যরা কিছু বলল না। আমরা করিডোর ধরে হাঁটতে থাকি। দুইপাশে বড় বড় ঘর, সেই ঘরের জানালা দিয়ে ভেতরে দেখা যায়। আমরা দেখতে দেখতে যেতে থাকি। নানা ধরনের যন্ত্রপাতি। মনে হয় বিশাল একটা ল্যাবরেটরি। আমরা আরেকটু এগিয়ে গেলাম, জানালা দিয়ে ভেতরে তাকিয়ে আমি চমকে উঠলাম, এখানে পাশাপাশি অনেকগুলো যন্ত্র এবং এই যন্ত্রগুলো আমি চিনি। মামার মাইক্রোবাসে একটা আছে, এটা হচ্ছে গামা রে স্পেকট্রোস্কোপি করার ডিটেক্টর শুধু তাই না, এক পাশে টেবিলের ওপর সারি সারি অনেকগুলো গাইগার কাউন্টার।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৬২ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...