বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

পেনসিল-রাবার

"ছোট গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Radiyah Ridhi (৩৫ পয়েন্ট)



X লেখা:সাবাহ্ নূরানী তানিসা বাবা-মায়ের একমাত্র মেয়ে। সে প্রথম শ্রেণীতে পড়ে। তার প্রতিদিনের বায়না, বাবা আসার সময় একটা পেনসিল আর একটা রাবার নিয়ে এসো। তার বাবা মেয়ের কথামতো প্রতিদিন পেনসিল-রাবার এনে দেন। আর তানিসা সঙ্গে সঙ্গে পেনসিল কেটে আর রাবার মুছে নষ্ট করে দেয়। একদিন রাতে ঘুমানোর পর কিছু একটার শব্দে তানিসার ঘুম ভেঙে গেল। জেগে উঠে দেখল সে একটা প্রাসাদে পৌঁছে গেছে। শক্ত একটা দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছে তাকে। তার সামনে অনেক পেনসিল সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছে। তাদের সবার সামনে দাঁড়িয়ে আছে সবচেয়ে বড় পেনসিলটা। তার মাথায় একটা মুকুটও আছে। তানিসা ভাবল, তাহলে সে নিশ্চয়ই রাজা। ‘তুমি কেন আমার প্রজাদের কেটে আর ভেঙে নষ্ট করছ? কেন তাদেরকে কষ্ট দিচ্ছ?’ রাজা গর্জন করে উঠলেন। তানিসা একটু ভয় পেয়ে বলল, ‘আমার পেনসিল কাটতে ভালো লাগে।’ রাজা রেগে গিয়ে বলল, ‘জানো? তোমার জন্য রাবার রাজা আমাদের সঙ্গে যুদ্ধ করতে আসছে?’ তানিসা কিছু না বলে বসে থাকল। ইতিমধ্যে রাবার রাজা উপস্থিত হলো। সে যুদ্ধ করতে চেয়েছিল। কিন্তু পেনসিল রাজা তাকে তানিসার কাছে নিয়ে এল। তানিসা বলল, ‘আমি বুঝতে পেরেছি যে আমার এভাবে পেনসিল-রাবার নষ্ট করা ঠিক হয়নি। তোমরা যুদ্ধ করো না। আমি কথা দিচ্ছি, আমি আর পেনসিল-রাবারের অপচয় করব না। তোমরা বন্ধু হয়ে যাও।’ তানিসা পেনসিল রাজা আর রাবার রাজার মিল করে দিল। তার পর থেকে সে আর কখনোই পেনসিল-রাবার নষ্ট করেনি। আমরা কেউই আর পেনসিল-রাবার নষ্ট করব না।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১০১ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...