বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

জিজেসদের জাফলং ভ্রমণ পর্ব ১

"ভ্রমণ কাহিনী" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Sᕼᗩᕼᗩᖇᓰᗩᖇ (৬৫ পয়েন্ট)



X এসে গেল মহরম স্পেশাল নিউ ট্র্যাভেল স্টোরি । স্বাগতম আমার গপ্পে । ওহ কংগ্রাচুলেশন আমার গল্প পড়ার জন্য । সো লেটস বিগেন দা স্টোরি । সবাইকে আসসালামু আলাইকুম । আশাকরি আল্লাহর রহমতে আপনারা ভাল আছেন । এই করোনাকালীন পরিস্থিতে আপনাদের আনন্দ দেয়ার জন্য এটি আমার একটি ছোট্ট প্রয়াস মাত্র । তো এখন শুরু করা যাক ; বাট তার আগে লেখকের একটি কথাঃ “এই কাহিনীতে ব্যক্তি , কাল , কর্ম ও মহল সব কিছুই কাল্পনিক শুধু জায়গা ছাড়া ; আর এখানে কোন ধর্ম , জাতি ,মানুষ বা বিশেষ কোন মহলকে উদ্দেশ্য করে কিছু বলা হয়নি । যদি এখানে কোনো মিল থাকে তাহলে তা একটি কাকতালীয় ব্যপার ছাড়া কিছুই নয় ” । >“বি ওয়্যার ফ্রম কপি-পেস্ট”< সকালে জিজের এডমিন তড়াক করে বিছানা থেকে লাফ দিয়ে উঠলেন । তিনি ভাবলেন এতদিন কোথাও যাওয়া হয়নি তো আজ যাবার প্ল্যান করব । যেই ভাবা সেই কাজ , নিজের প্র্য়োজনীয় সকল কাজ যথাঃ ওয়াশরুম , নাস্তা ইত্যাদি কম্প্লিট করে মিটিং এর জন্য সবাইকে ডাকা হল জিজে মিটিং ক্লাব কেরানিগঞ্জ শাখায় । আমাদের প্রতিদিনের কর্ম-ব্যাস্ততার কারণে অনেক জিজে আসতে পারেননি এই বিশেষ মিটিং এ । তবে যারা এসেছে তারা হলেন হ্রদয় ভাইয়া , বিজয় ভাইয়া , তানিম ভাইয়া ,শাহারিয়ার , সোহান, জাইম , দোয়া আপু , মেহেদি , মুস্তাফিজ , মাহিন , আকিল , সাইমন ভাইয়া , ইকবাল , আনান , লুমি ভাইয়া , শাহজামান বেশি বড় ভাইয়া , ইস্কান্দার ভাইয়া , ফারহান , রিধি , রিদা , তারিন , ইভা আপু (ইসরাত) , রেহনুমা আপু, নামইকা আপু , নাহার আপু , আনিস ভাইয়া । মোট মিলিয়ে কত হল বলেনতো? উ!!! ২৫ জন ^_^ । ~মিটিং শুরু… তানিমঃ আমাদের কেন এখানে ডাকা হল এডভেনঞ্চারে যাব নাকি , আমি কিন্তু এখন এমন্নিতেই পাশের ক্ষেতের তরমুজ ফাটিয়ে খাচ্ছিলাম । জাইমঃ হোয়াট দ্যা হেল আমরা মিটিং এ এসেছি আর তানিম ব্রুহ অন্যের তরমুজ ফাটিয়ে খেয়ে এসেছে । হ্রদয়ঃ তুমি আমাকে ডাকনি তানিম আমিও খেয়ে আসতাম অথবা তুমি নিজে সবার জন্য আনতে এম্নিতেই যা খিদা লাগছে । তানিমঃ আমি কি এই পোলা-পান ছাড়া কিছু একা খেয়ে ফেলি ; আমি এনেছি এই যে এখানে আছে সবাই নিয়ে নাও । (এখানে ৬-৭ টা বড় বড় তরমুজ) সবাই একদৃষ্টে তাকিয়ে ভাবল যে তানিম ভাই ১টাকার এয়ার পর্যন্ত খাওয়ায় না সে কিনা ... কিন্তু , মুস্তাফিজ তা ভাবতে না ভাবতে ঝাপিয়ে পড়ল তরমুজের ওপর তারপর বলল > সবচেয়ে বড় তরমুজ আমার ^_~ < ‘আমি কিন্তু খাব না’,বলল রিদা । দোয়াঃ ওমা! তাই নাকি কিন্তু কেন ? ‘কার না কার তরমুজ আমি কেন খাব’ (রিদা) এ কথা শুনে সব মেয়ে ও কিছু ছেলে তরমুজ থেকে ৩ফুট সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখল । তখন ,তানিম ভাইয়া এক জাম্প দিয়ে তরমুজে ছুরি বসিয়ে বলল, ‘এটা তো হৃদয়ের বাড়ির ক্ষেত থেকে আনলাম । ওর ফল আমাদের ফল ; ওর দুঃখ আমা.....(এরকম কিছু ফিল্মি ডায়লগ মারা হল) হৃদয়ঃ তবেরে!তোকে পরে মজা দেখাচ্ছি দাড়া । এই কথা শুনে সবাই খুশি ; সব তরমুজ ভাগ করে দিল হৃদয় ভাইয়া ও নিজে নিল বেশি (তার তরমুজ তো তাই)। তানিম ভাইয়া একটুও তরমুজের ভাগ পেল না । সেই ১০মিনিট ধরে জিজেস যা শুরু করল যে শাহজামান আংকেল বলল চুপ কর তোমরা চুপচাপ মিটিং এ বস প্লিজ । সবাই নিজের সিটে বসে মিটিং শুরু করল...... কোথা যাব আমরা ? শাহারিয়ার জিজ্ঞাসা করল । ‘জা-জা-জা-ফ-ফ’ বলতে না বলতেই এডমিনের কথা চাপা পরল মেহেদির কথার মধ্যে । ‘নিজের নাম নিয়ে বেঙ্গ করেন কেন’ (মেহেদি) ‘এখনকার স্টাইল হল সাস্পেন্স ক্রিয়েট করা’ (লুমি ভাইয়া) ‘কত নাম হয় “জাফ” এর পড়ে’ (জাফরি ভাইয়া) ‘আমিই বলি কোথা যাব’ [শাহারিয়ার] ‘নো নো নো নো আমিই বলব’ (জাফরি) এর মধ্যে জাম বলল , ‘জাফলং’ আমরা সবাই একসঙ্গে বললাম ‘ইয়েস’ এখন সবাই আলোচনা শুরু করল লিড কে করবে ??? শাহারিয়ার- আমি আগে গেছি ২বার ফারহান- তুমি ২বার গেলে আমি গেছি ৮বার রেহনুমা- আরে অতবার গেলে তো তুই ফকির হয় যেতিরে রিধি- ঠিক পত্রিকায় লেখা হত ভ্রমণ করতে করতে ট্যাঁক হল ফাঁকা । নামইকা আপু– কোন নিউজ পেপারে ???◑﹏◐ ইভা আপু- চাখোরের প্রতিদিনে রিদা- এমন নিউজ পেপার হয়ত আদৌ তৈরি হবে না । ইভা- চুপ করবি তুই এটা আমার ড্রিম । এই পত্রিকার সাথে সবাইকে চা-পাতি ফ্রিতে দেয়া হবে । এই যা জিজেস আসল বিষয় ঠেলে ফেলে দিল । নো টেনশন আমি আনছি আসল বিষয়ে । এডমিন বলল > এখন লিড করবে কে সেটা বল । আমি(শাহারিয়ার)- বিজয় ভাইয়াকে যারা চান ভোট দিন ( ভাববেন না যে প্রারতির চামচার মত ঘোষ খেয়েছি আমি নিজ থেকে দিলাম ) ভোটের ফলাফল ----------------------------------------------------------------------------- শাহজামান আংকেল পেলেন ১২ ভোট , বিজয় ভাই ৭ এবং তানিম ভাই ৩ ----------------------------------------------------------------------------- তারপর আর কিছু আলোচনা শেষে সবাই গেল যে যার বাড়ি ; আর বলে রাখা ভাল যে শাহজামান আংকেল লিড করবে । পরদিন সকালে এডমিন বাসের খুঁজ করেন । আমাকে ফোন দিয়ে বললেন সবাই আমার বাসার পাশে আসবে । তারপর, বের হয়ে আসলাম নিচে হাটতে দেখি ৫জন তো আমাকেই খুঁজছে ; তারা আমাকে দেখে বললেন ‘শাহারিয়ার তোমার বাসায় নিয়ে খাতির করবে না’ । যা ভেবেছিলাম সব ঠিক আমার বাসায় কয়েকজন আসবে । তো কালকে আম্মুকে বলে রেখেছিলাম এদের সম্মন্ধে । এদিকে রিধি আমাকে বলল এরা এখানে । আমি বললাম কেন আসতে পারবেনা নাকি । না তাই নয় ... (রিধি) আমি আমাদের ড্রইং রুমে তাদের বসিয়ে রেখে ল্যাপটপ অন করলাম আর ভাবলাম ‘অনেকদিন ধরে ইথিকাল হ্যাকিং শিখছি আজ ট্রাই করি’। যেই ভাবা সেই কাজ পাঁচজন জিজের মধ্যে ২জনেরটা হ্যাক করলাম মাত্র । শুধু ওয়াই-ফাই হ্যাক করলাম । সেটা দিয়েই গল্প লিখছি ১ঘন্টা পর বাস আসল । এসিও না লোকালও না তাহ্লে কি ?? উঃ কমেন্টে চাই । কিছু কথাঃ এই গল্পটি সম্পূর্ণ আমার । কোন ভুল হলে ক্ষমা-সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন । কপি-পেস্টতো করাই যাবে না । নাহ্লে , গুগ্লিতে ইন্টাইটেল দিয়ে সার্চ করব । Inspired by “পিচ্ছি হুজুর (বিজয় ভাইয়া , তানিম ভাইয়া )” আপনারাও ভাল থাকবেন সম্পূর্ণ পড়ার জন্য ধন্যবাদ । আর, বেশি মন্তব্য করবেন না । দৌড়াবে… লেখকঃ শাহারিয়ার শেষ করার সময়ঃ রাত ১টা ৫১মিনিট ৪০সেকেন্ড শেষ করার তারিখঃ ২৮আগস্ট ২০২১ইং বাংলা ভার্সনঃ রবিবার ১৪ই ভাদ্র ১৪২৮ বঙ্গাব্দ স্থানঃ বাংলাদেশের কোনো এককোনায় আর ৩০ তারিখ আমার ছোট ভাইএর জন্মদিন জাকারুল্লাহ খাইরান


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২২২ জন


এ জাতীয় গল্প

→ জিজেসদের জাফলং ভ্রমণ ৩য় এবং শেষ পর্ব
→ জিজেসদের জাফলং ভ্রমণ পর্ব ২

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...