বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

একটু রাগ একটু ভালোবাসা

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান মোঃআলমামুন আলম আরজু (০ পয়েন্ট)



X আজ যে করেই হক নীলার হাতটি আমি ধরবই,যা আছে কপালে এতে করে নীলা যদি আমার উপর চটেও যায় তার পরেও ধরবই, আরে আমি কি শালা ১৫ বছর আগের প্রেম করছি না কি যে বছরের পর বছর চলে যাবে আর বলতেই পারবো না যে আমি ওকে ভালবাসি এতো উদার মনের হলে তো শালা ঔ যুগেই জম্ম গ্রহন করতাম, পারবো না এতো দয়ার সাগর হতে,এ সব ভাবছে আর রাস্তা দিয়ে হাটঁছে নাবিল এমন সময় একটা মেয়ের সাথে ধাক্কা, এই ম্যাডাম আপনে দেখে চলতে পারেন না, আর আমি যদি একই কথা বলি তখন, আপনার চোখ গুলো কি মাথায় ছিল নাকি, নাবিল যত সব এটা বলে চলে গেল, নাবিল গিয়ে দেখে নীলা ওর জন্য অপেক্ষা করছে….. নীলাঃ তোমার এতোক্ষন লাগল এখানে আসতে। নাবিলঃ মেজাজটা এমনেতেই চড়া, তোমার বাবা কি আমার জন্য গাড়ি পাঠিয়ে দিছিল নাকি,আমাকে হেটে আসতে হইছে বুঝছ। নীলাঃতুমি এভাবে বলছ কেন। নাবিলঃ এভাবে বলবো না তো কি করে বলব, আমার অবস্থাটাও তোমাকে বুঝতে হবে,আমি তোমার মতো সুখ নিয়ে জম্ম গ্রহন করি নেই। নীলাঃ মাথা নিচু করে বসে রইল, আর একটাও কথা বলল না নাবীলের সাথে। নাবিলঃ এভাবে চুপ করে বসে আছ কেন,যদি এভাবেই চুপ করে বসে থাকবে তবে বাসায় গিয়ে বসে থাকো,এখানে আসছ কেন। নীলাঃ তার পরেও কিছু বলল না। নাবিলঃ রীতিমতো এবার চটে গেলো, এভাবে চুপ করেই যদি থাকবে তবে আমাকে এতো দুর থেকে আনালে কেন। নীলাঃ এবারো কিছু বলল না। নাবিলঃ ধুর থাকো তুমি আমি গেলাম, নাবিল কিছু দুর যাবার পরে পিছনের দিকে তাকিয়ে দেখল নীলা সেখানেই বসে আছে, নাবিল ঘুরে আবার নীলার কাছে গেল, গিয়ে দেখলো নীলার চোখ দিয়ে জল গরিয়ে পরছে, নাবিল অসহায়ের মতো জিগাস করল, এ কি নীলা তুমি কাদঁছ কেন। নীলাঃ কই না তো, তুমি না চলে গেছিলে আবার আসলে কেন, তুমি যাও আমি কি করলাম না করলাম তা তুমার দেখতে হবে না। নাবিলঃ আমি না হয় রাগের মাথায় কি বলছি না বলছি তা নিয়ে এমন বুকার মতো কাদঁলে হয়, প্লিজ কেদোঁ না চোখ মুছ বলছি নীলাঃ আমি তোমার কথায় কাদঁছি না আমি তো কাদঁছি নিজের জন্য কেন যে তুমায় বুঝতে পারি না। নাবিলঃ তুমি আমাকে যে টুকু বুঝ তাতেই হবে এর থেকে আর বেশি বুঝার দরকার নেই। শুধু একটা কাজ করো কেমন। নীলাঃ কি এমন কাজ। নাবিলঃ শুধু ভালবেসো, আর আমাকে আগলে রেখো তাতেই হবে। নীলাঃ এই কাজটা তো সব মেয়েরাই করে তবে আমি আলাদা করে তুমার জন্য কি করলাম। নাবিলঃ আলাদা করে করো তো অনেক কিছু। নীলাঃ কি এমন করলাম শুনি। নাবিলঃ এই যে আদি যুগের মানুষের মতো তুমি এখনো আমাকে কাছে টানো না। নীলাঃ তাই নাকি তবে বুঝি আপনাকে কাছে টানতে হবে এখন, এই যুগের মানুষের মতো। নাবিলঃ না এতটা কাছে টানতে হবে না শুধু…. নীলাঃ শুধু কি? নাবিলঃ শুধু তোমার হাতটা ধরতে দিলেই হবে। নীলাঃ নাবিল কে আলতো করে জরিয়ে ধরল আর বলল শুধু হাত কেন আমি তো পুরুটাই তোমার। নাবিলঃ থাক থাক এক বারে এতো সুখ নিতে পারবো না গো। নীলাঃ নাবিল কে আরেকটু শক্ত করে জরিয়ে ধরে বলল সুখ নিতে পারবে না কি গো সবে তো মাএ শুরু আগে আগে দেখতে যাও হতা হে কিয়া।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১৩১৪ জন


এ জাতীয় গল্প

→ একটুকরা ভালোবাসা
→ একটু ভালো লাগা তার পরই ভালোবাসা
→ ♥একটু ভালোবাসা♥
→ একটুকরো ভালোবাসার গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...