বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

আজব রোগী, আজব চিকিৎসা

"ছোটদের গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Rocky (০ পয়েন্ট)



X অনেক দিন আগের কথা। তৎকালীন পারস্যের এক শাহজাদার আজব এক অসুখ দেখা দিল। শাহজাদা কিছুই খায় না। না খেয়ে খেয়ে তার শরীর একদম শুকিয়ে যেতে লাগল। সে শুধু্ চিৎকার করে আর বলে, ‘আমাকে জবাই কর, জবাই করে আমার গোশত দিয়ে কাবাব বানাও।’ শাহজাদা বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান। তার অসুখে তাই বাদশাহ ও বেগমের মন একদম ভেঙ্গে পড়ল। তাদের দুঃখে আমীর-উমরাহদের মুখও ভার হয়ে ওঠে। সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়ে শাহজাদার চিকিৎসার ব্যবস্থা করার জন্য। একে একে রাজ্যের সব হেকিম, কবিরাজ ডাকা হল শাহজাদার চিকিৎসার জন্য। কিন্তু কোন লাভ হলো না। হবেই বা কেমন করে? শাহজাদাকে কোনকিছুই খাওয়ানো যায় না। এমনকি কোন ওষুধও সে খেতে চায় না। ছেলের অবস্থা দেখে বেগম সাহেবাও খাওয়া-দাওয়া ছেড়ে দিলেন। বাদশাহর মন আরো ভেঙ্গে গেল। দেশ-বিদেশের বড় বড় হেকিম-কবিরাজ মনে দুঃখ নিয়ে মাথা হেঁট করে চলে যেতে লাগলেন। কারণ যে রোগীকে ওষুধ খাওয়ানো যায় না, পথ্য খাওয়ানো যায় না- তার চিকিৎসা হবে কি করে? কোন উপায় না দেখে বাদশাহ আর বেগম আল্লাহর দরবারে হাত তোলেন আর ছেলের জন্য আল্লাহর রহমত কামনা করেন। একদিন কয়েকজন উমরাহ বাদশাহকে বললেন, ‘জাঁহাপনা! আপনার উযীরে আযম শুধু একজন বড় আলেম ও শাসকই নন, তিনি একজন বড় হেকিমও বটে। একবার যদি তাকে শাহজাদার চিকিৎসার জন্য ডাকা হয় তাহলে নিশ্চয়ই একটা ব্যবস্থা হবে।’ এ কথা শুনে বাদশাহ উযীরকে ডাকলেন। উযীর সব ঘটনা শুনে বললেন, শাহদাজাকে গিয়ে খবর দাও যে, একজন ভাল কসাই এসে। তাকে জবাই করে গোশত দিয়ে কাবাব বানানো হবে। লোকজন গিয়ে যখন শাহজাদাকে এই খবর দিল, তখন সে খুশিতে আটখানা ! তাড়াতাড়ি সে লোকদের সাথে এসে হাজির হলো উজিরে আজমের কাছে। উজির একটা বড় চকচকে ছুরি নিয়ে শাহজাদার আগমনের অপেক্ষা করছিলেন। শাহজাদা এসেই লাফিয়ে বলে উঠল, ‘ এই যে কসাই! এসো এসো, আমাকে জবাই করে গোশত দিয়ে কাবাব বানাও।’ উযীর তাঁর লোকদের হুকুম দিলেন, এই গরুটা খুব ভাল করে বেঁধে মাটিতে শুইয়ে দাও, জবাইটা শেষ করে ফেলি। এ কথা শুনে শাহজাদা নিজেই শুইয়ে পড়লো। লোকেরা তার হাত ও মাথা চেপে ধরল। ছুরি হাতে নিয়ে উযীর তার দিকে এগিয়ে গেল। উপস্থিত সবাই এই কাণ্ড দেখে অবাক হয়ে গেল! কেউ কেউ ভয়ে কাঁপতে লাগল। সত্যিই কি শাহজাদাকে জবাই করে ফেলবেন উজিরে আযম! উযীর ‘বিসমিল্লাহে আল্লাহু আকবার’ বলে ছুরি চালাতে গিয়ে সাথে সাথে থেমে গেলেন। চোখে-মুখে একটা ঘৃণার ভাব এনে বললেন, ‘নাহ! গরুটা একদম শুকিয়ে গেছে। এর গোশত দিয়ে মোটেও কাবাব হবে না। একে জবাই করে কোন লাভ নেই। আগে বেশি করে খাইয়ে-দাইয়ে একে মোটা-তাজা কর। তারপর নিয়ে এসো, জবাই করে দেবো।’ উযীরের কথা শুনে দুঃখিত মনে শাহজাদা ওঠে দাঁড়ালো। মনে মনে ভাবলো, ‘সত্যিই কি আমি এত শুকিয়ে গেছি যে, কসাইও আমাকে ঘৃণা করল? মোটা-তাজা হওয়ার জন্য এখন থেকে আমাকে তাহলে ভাল ভাল খাবার খেতে হবে।’ উযীর গোপনে পরামর্শ দিলেন, ‘শাহজাদাকে পুষ্টিকর খাবার দিতে হবে। আর তাতে মিশিয়ে দিতে হবে আমার দেওয়া কিছু ওষুধ।’ মোটা-তাজা হওয়ার লোভে শাহজাদা এবার খেতে শুরু করল। তাতে মিশিয়ে দেওয়া হলো উযীরের ব্যবস্থামত নানা পুষ্টিকর ওষুধ। অল্পদিনেই শাহজাদার চেহারা ফিরে এলো। শাহজাদা এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। সে আর বলে না, ‘আমাকে জবাই কর, আমার গোশত দিয়ে কাবাব বানাও।’ ছেলেকে সুস্থ হতে দেখে বাদশাহ-বেগমের মুখে আবার হাসি দেখা দেয়। আমির-ওমরাহ আর প্রজাদের খুশি আর ধরে না। শাহজাদার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে সবাই আল্লাহর কাছে মুনাজাত করেন। #


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৭২২ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...