বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

কাব্য-কথা(An Indistinct Love)_পর্ব ০৫

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Jahid Hasan (০ পয়েন্ট)



X কাব্য-কথা(An Indistinct Love)_পর্ব ০৫ Written By: Jahid Hasan সকালবেলা আইরাত ঘুম থেকে উঠেই চমকে উঠে। তারাতাড়ি চোখ বন্ধ করে আবার চোখ খুলে। কিন্তু আবারও চমকে উঠে সে।এটা কার রুম??এটা তো তার রুম না??সে রুমের চারপাশে আরো একবার চোখ বুলিয়ে নিলো।না এটা ওর রুম না?? রুমের কালার ওর রুমের মতোই নীল রঙের। রুমের পর্দাগুলো সাদা।এই নীল সাদার সংমিশ্রণে রুমের সৌন্দর্য আরও বেশি ফুটে উঠেছে।এই রুম টা যার‌ই হোক না কেন সে যে নীল রং খুব ভালবাসে সেটা রুম দেখেই বোঝা যায়।আইরাতের‌ও নীল রং খুবই পছন্দের। সাধারণত মেয়েদের সবসময় গোলাপী রং অথবা লাইট গোলাপী রং পছন্দ হলেও অদ্ভুত ভাবে আইরাতের নীল রং পছন্দ।প্রথমে কার রুমে আছে এটা ভেবেই ও বেশ বিব্রত হয় সাথে নিজের উপর বিরক্ত‌ও হয়। কিন্তু রুম টা দেখার পর মনটা অনেকটাই ভালো হয়ে যায়।রুমটা অনেকটাই ওর রুমের মতোই। তাছাড়া ও যেভাবে নিজের রুমটা সাজাতে চাইতো ঠিক সেভাবেই সাজানো।আইরাতের ঠোঁটের কোণে একটা মিষ্টি হাসির রেখা ফুটে উঠল। কিন্তু মাথাটা তার বেশ ভার ভার করছে। তার চাইতেও বড় কথা তার ঘুমের ভাব এখনো ঠিক মত কেটে উঠেনি। সে নিজের উপর থেকে ব্লাঙ্কেট টা সরাতেই অবাকের শেষ সীমানায় চলে গেল।চোখ দুটো যেন কোটর থেকে বেরিয়ে আসতে চাইছে।সে অবিশ্বাস্য চোখে নিজের দিকে তাকিয়ে আছে।সে নগ্ন অবস্থায় অন্য কারো বাসায় অন্য কারো বিছানায় শুয়ে ছিল আর শুয়েই ছিল না একটা রাত এইভাবেই ঘুমিয়ে ছিল ভাবতেই লজ্জায় অপমানে মরে যেতে ইচ্ছে করছে তার।সে মাথা নিচু করে বসে আছে।চোখ দিয়ে দুই ফোঁটা অশ্রু গড়িয়ে পড়ছে আর ধিরে ধিরে রাগের পরিমাণ বাড়ছে।কাল রাতের কথা কিছুই মনে পড়ছে না তার।সে আবারও মাথায় চাপ প্রয়োগ করলো। এবার আবছাভাবে সব মনে পড়ছে তার। সে তো ভার্সিটি ট্যুরে গিয়েছিল?? তারপর??মনে পড়েছে,ট্যুরে মিহাদ একটা মেয়েকে নিয়ে ঘোরাঘুরি করছিল। তাদের লুটুপুটু প্রেম আর সহ্য হচ্ছিল না আইরাতের।আইরাত কে দেখিয়েই মিহাদ যখন মেয়েটির কোমরে হাত রাখে আইরাতের মাথায় চড়চড় করে রাগ উঠে যায়।মিহাদ ওর সাথে ৩ বছর ধরে প্রেমের অভিনয় করে এখন বলে সে নাকি আইরাতকে ভালবাসে না।সে নাকি ওই মেয়েটাকে ভালবাসে।আইরাত‌ও বেইমান তাকে ভুলে যেতে চাই। সেখান থেকে ফিরে এসেই ভার্সিটির পাশেই একটা ক্লাবে চলে যায় সে সাথে ঝুম‌ও ছিল।তারপর সে বেশ করে বিয়ার খাই।তারপর তো তার কিছু মনে নেই।সে আসলো কিভাবে এখানে??আর ঝুম,ঝুম কোথায়?? ঝুম যে ওর সাথে ছিল সেটা ওর ভালোই মনে আছে। আর তাছাড়া আইরাত‌ই বা এভাবেই নগ্ন অবস্থায় অন্যের বাসায় কি করছে?? আচ্ছা কেউ ওর অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে ওর সাথে..। সাথে সাথে ওর ভিতর টা কেঁদে উঠলো।ওকি তাহলে ওর সতিত্ব রক্ষা করতে পারলো না??না,ও কিছু ভাবতে পারল না।ও আশেপাশে তাকিয়ে পোশাক খুঁজতে শুরু করলো।এক কোণে তার পোশাকগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। আইরাত তাড়াতাড়ি পোশাক পড়ে বাইরে বেরিয়ে এলো। ডাইনিং রুমে এসে কাউকে দেখতে পেল না সে।পুরো বাসায় খালি।আইরাত যেন আরও বেশি ভয় পেয়ে গেল। তারপর ধীরে ধীরে পুরো বাসাটা ঘুরে ঘুরে দেখল। হঠাৎ রান্নাঘর থেকে শব্দ শুনে সে সেদিকে এগিয়ে গেল।একটা ছেলেকে খালি গায়ে দেখে সে হতভম্ব হয়ে গেল।কি সুন্দর তার বডি-সেইফ! লম্বা ফর্সা চেহারার এক বলিষ্ঠ পুরুষকে দেখেই আইরাত আনমনে বলে উঠে,—"" ছেলেরাও এত সুন্দর হতে পারে??"" নিজের ভাবনায় নিজেই অবাক হয়ে যায় আইরাত। মুখ টা লজ্জায় লাল হয়ে যায় আইরাতের। —""ছিঃ আইরাত ছিঃ!! তুই কখন থেকে এত লুচু হয়ে গেলি। তাছাড়া এই ছেলেটা হয়তো তোর সতিত্ব...""কথাটা মাথায় আসতেই আইরাত রক্তচক্ষু নয়নে তাকিয়ে বলে উঠল,—""এই যে মি. লজ্জা করে না আপনার?? একজন অসহায় মেয়ের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে ওর সাথে... ছিঃ আপনাদের মত ছেলেদের ঘৃণা করি আমি।আপনারা সব ছেলেরাই এক। শুধু মেয়েদের শরীর পেলেই তা খুবলে খুবলে খেতে চান। লজ্জা করে না আপনাদের মেয়েদের জীবন নিয়ে ছিনিবিনি খেলতে??"" আরিয়ানের আজ সকালে ডিউটি আছে তাই সকাল সকাল গোসল করে একটা থ্রি-কোয়াটার পরেই কিচেনে চলে আসে ওর জন্য কিছু বানাতে। এমনিতেই রাতে কোথা থেকে একটা উটকো ঝামেলা ওর ঘাড়ে এসে পড়েছে। এখনো মহারানী ঘুম থেকে উঠেছে কিনা সেই চিন্তায় মশগুল আরিয়ান। হঠাৎ মেয়েটির মুখ থেকে এমন কথা শুনে আরিয়ান হতভম্ব হয়ে গেল। মেয়েটা নিজেই দোষ করে আবার ওকে দোষী বলছে।আরিয়ান চোয়াল শক্ত করে আছে।তাকে দেখে খুব শান্ত মনে হচ্ছে।আজ পর্যন্ত ওর চরিত্র নিয়ে কথা বলার সাহস কেউ পায় নি।অথচ কাল থেকে এই পুঁচকে মেয়ের জন্য ওর চরিত্রে একের পর এক দাগ পড়েই চলেছে। আবার সেও এসে ওর চরিত্র নিয়ে কথা বলছে। আরিয়ান সবকিছু সহ্য করতে পারে কিন্তু চরিত্র নিয়ে কথা বলা সহ্য করতে পারে না।ওর মনে হচ্ছে মেয়েটিকে মেরে মাটিতে পিষে ফেলতে। আরিয়ান শান্ত কিন্তু দৃঢ় কন্ঠে বলল,—""আমি কিন্তু আপনার কাছে যায় নি মিস.আইরাত।আপনি আমার কাছে এসেছিলেন আপনার নিড পূর্ণ করতে।আর আপনার নাম কিভাবে জানলাম?? উমমমম.. আপনাকে যখন জরিয়ে ধরে আদর করছিলাম তখন আপনিই বলেছেন আপনার নাম আইরাত।ওকে.. আপনার নিড কি পূর্ণ হয়েছে নাহলে আমরা এখনও যেতে পারি বিছানায়।""আইরাতের কান কট কট করে উঠলো। লজ্জায় অপমানে মরে যেতে ইচ্ছে করছে তার। চোখ দিয়ে টপটপ করে পানি ঝরে পড়ছে।কি অসভ্য বেহায়া ছেলে এই লোকটা। আইরাত অশ্রুসিক্ত চোখে তাকিয়ে বলল,—""ভাববেন না এইসব বাজে কথা বলে আমাকে দমিয়ে রাখতে পারবেন। আপনি আমাকে চিনেন না মি.??আমি কোন অসহায় অবলা মেয়ে নয় যে আমাকে দুর্বল ভাববেন। ইটস্ নুসরাত ইমরোজ আইরাত।আমি আপনাকে দেখেই ছাড়ব। প্রয়োজনে পুলিশ কেইস করব।"" আরিয়ান একটা ডেভিল হাসি দিয়ে আইরাত কে তার ফোন টা এগিয়ে দেয় আর বলে—""আমার মনে হচ্ছে আপনার নিড এখনও পূর্ণ হয় নি। চলুন রুমে যায়??"" আইরাত আরিয়ানের হাত থেকে ফোনটা নিয়ে মনে মনে আরিয়ানকে বাজে বাজে গালি দিতে দিতে বাসার নিচে চলে আসে। ফোনটা হাতে নিয়ে দেখে ১১৪ টা মিসড কল আর ১৭৭ টা এসএমএস। বেশিরভাগ ঝুম দিয়েছে।সে সাথে সাথে ঝুম কে ফোন দেই। —""হ্যালো, আইরাত তুই কোথায় আছিস?? ভালো আছিস তো??"" —""হুমম, আমি ভালো আছি।""কথাটা বলতেই গলাটা একটু কেঁপে উঠল।ওকি আসলেই ভালো আছে??ও তো ওর সতিত্ব রক্ষা করতে পারে নি। —""আচ্ছা, তুই কোথায় ঝুম, তুই ভালো আছিস তো??"" —""আমি বাসায় আছি। আচ্ছা শোন না,কাল থেকে কথা আপুকে কোথাও পাওয়া যাচ্ছে না। তুই তো জানিস আপু একে কথা বলতে পারে না আর তার‌ওপর তার মেন্টাল স্টাবিলিটি।আমি খুব চিন্তাই আছি রে। আপুর সাথে যদি খারাপ কিছু..."" —""না না.. আপুর কোন খারাপ কিছু হবে না। তুই চিন্তা করিস না। আল্লাহর উপর ভরসা কর সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। আমি আসছি তোর বাসায়।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২৯০ জন


এ জাতীয় গল্প

→ কাব্য-কথা(An Indistinct Love)_পর্ব ০৭
→ কাব্য-কথা(An Indistinct Love)_পর্ব ০৬
→ কাব্য-কথা(An Indistinct Love)_পর্ব ০৪
→ কাব্য-কথা(An Indistinct Love)_পর্ব ০৩
→ কাব্য-কথা(An Indistinct Love)_পর্ব ০২
→ কাব্য-কথা(An Indistinct Love)_পর্ব ০১

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...