বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

আমাদের জীবনটাই অন্যরকম এবং জিজে মেম্ববারস (পর্ব৬)

"জীবনের গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান ESHRAT JAHAN (২২৮ পয়েন্ট)



X আমি বললাম,"ছেড়ে দে বলছি।" তারিন আমার কাছে এসে বললো,"আপু কালকে তো তোমরা পালিয়েছিলে আর অন্যদেরও পালাতে সাহায্য করেছিলে।এখন টাকা দেও।" রিশুর ফোন এসেছে।রিশু বললো,"ইসরাত আপুর বাড়ি থেকে কল এসেছে।" আমি বললাম,"হ্যা। কল তো দিবেই।রুবা আপু আমাকে কিছু জিনিস কিনতে বলেছে।এখনো বাড়ি যাইনাই তাই।" রিশু বললো,"এই ওই দুটোর মুখ কাপড় দিয়ে বেঁধে রাখ।না হলে চিল্লাচিল্লিতে সব শেষ।" রিদি আর শাহরিয়ার আমাদের মুখ কাপড় দিয়ে চেপে ধরলো।রিশু কল ধরে বলল,"হুমম আপু।" "এই তোরা সবাই কোথায়?" "বাসায় আপু।" "ইসরাত আছে নাকি?" "নাতো নাই।" "সবার কাছেই খোঁজ নিয়েছি কারো কাছে খোঁজ নেই।মাহমুদ,তামিম এদেরকে কল দিলাম।নাই খোঁজ নাই।এদিকে মোজাহিদের ফোন বন্ধ পাচ্ছি আর ইসরাতের কল ধরছে না।যখন বের হয় তখন মোজাহিদের সাথে দেখেছিলাম।এখনো খোঁজ নাই।" "কিযে আপু আমি জানি না।এরা ফ্রেন্ডরা যে কোথায় কোথায় ঘুরে বেড়ায় আল্লাহই জানে।" "আচ্ছা খোঁজ পেলে বলিস।" রিশু ফোন রেখে এলো।আমাদের মুখ খুলে দিল।আমি বললাম,"মিথ্যা বললি কেন rant রিশু বললো,"এমনি ras গেটে কে যেন এসেছে।দেখি কে।" রিশু গেট না খুলেই দেখলো তানিম ভাই,লাকি আপু,রেহনুমা আপু,তালহা ভাইয়া ,রনি ভাইয়া আর হৃদয় ভাইয়া।রিশু দৌড়ে এসে বললো,"সব বড় ভাইবোন এসেছে।এদের থেকে টাকা নিতে হবে।আমি খুশি খুশি মুডে বললাম,"আরে আমাদের ছেড়ে দে।আমরা সবাই মিলে ওদের থেকে টাকা নেই।আমাদের দুইজনের কাছে কতই বা টাকা আছে!" মোজাহিদ বললো,"আর বড়দের কাছে অনেক টাকা।" তারিন বললো ,"আচ্ছা।" এরা আমাদের ছেড়ে দিলো।আমি আর মোজাহিদ গেটের পাশে দাঁড়িয়েছিলাম স্প্রে নিয়ে।একেকজন একেক জায়গায় দাঁড়ালাম স্প্রে নিয়ে।তারপর সবাইকে স্প্রে করে অজ্ঞান করে দিলাম।বেঁধে রাখলাম সবাইকে।সবার জ্ঞান ফেরার পর আমরা সবাই উপস্থিত হলাম তাদের সামনে।তানিম ভাইয়ের সমানে যেয়ে বললাম,"হু হা হা তাইনা ভাইয়া devil আজকে আপনার টাকা শেষ ras তানিম ভাই বললো,"কি বলো তুমি?আমার টাকা সব শেষ gjআজকেও নিবে!" আমি বললাম ,"ওই গান দে ডান্স করবো।" গান দেওয়া হলো।সবাই ডান্স করছি।একটু ডান্স করার পর।আমি বললাম,"দেখি কে কত টাকা আনছে।" মোজাহিদ তানিম ভাইয়ের পকেট থেকে ২ হাজার বের করলো।তারপর তালহা ভাইয়ার থেকে১৫০০। শাহরিয়ার হৃদয় ভাইয়ার থেকে ৩ হাজার বের করে বলছে,"এই দেখ আপু হৃদয় ভাইয়ার পকেট থেকে ৩ হাজার wow আমি বললাম,"ওয়াও হৃদয় ভাইয়া আজকে মার্কেট করতে চাইছিল মনে হয়।" লাকি আপুর ব্যাগ থেকে টাকা বের করে বললাম,"৫০০ টাকা।মনে আপুর কোনো মার্কেট করা নাই।" রেহনুমা আপুর থেকে ১ হাজার বের করলাম।সবাই টাকা ভাগ করে নিলাম।এখন তো ছেড়ে দিতে হবে।প্লান্ট করলাম ছেড়ে দেওয়ার সাথে সাথে দৌড় দিয়ে বাইরে যাবো সবাই।তাই করলাম।সবাই দৌড়ে বাইরে গেলাম।ওরাও সবাই আমাদের পিছে পিছে দৌড়াচ্ছে।আমার দৌড়ানো দেখে তুবা বললো,"কি ব্যাপার আজকেও দৌড়াও কেন?" আমি বললাম,"এত কথা বলার সময় নাই বাবা।যাইগা।" সামনে রুবাইয়া আপু পড়লো।আমাকে বললো,"কিরে আমার জিনিস কই?" আমি বললাম,"তোর জিনিস মার্কেটে।" "মার্কেটে মানে?এই আমার টাকা।" "তোর টাকা আমার কাছে gj ras এই বলে দৌড় দিলাম।রুবাইয়া আপু চিৎকার করে বললো,"তুই আগে বাড়ি আয় খালি rant দৌড়াতে দৌড়াতে দেখি তামিম আর মাহমুদ আসছে।আমি বললাম,"এই তোরা দৌড়া।" তামিম বললো,"আজকেও দৌড়াবো! gj "এত কথা বলিস না দৌড়া।" তামিম আর মাহমুদও আমাদের সাথে দৌড়াতে থাকলো।দৌড়াতে দৌড়াতে সমানে আমরা সবাই দেখলাম সামনে পানি।আর কোথাও রাস্তা নাই।মোজাহিদ বললো,"সমানে বিল gj আমি বললাম,"চলো নামি।" আমি বিলের ভেতর নামলাম।ওই পারে গেলাম।কিন্তু বড়রা আমাদের পিছু করতে করতে এই পারে আসলো না।তানিম ভাই ওই পার থেকে বললো,"খালি দেখা হোক তোমাদের সাথে rant আমরা সবাই একসাথে : ras ras ras


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১০৯ জন


এ জাতীয় গল্প

→ আমাদের জীবনটাই অন্যরকম এবং জিজে মেম্ববারস (শেষ পর্ব)
→ আমাদের জীবনটাই অন্যরকম এবং জিজে মেম্ববারস ৮
→ আমাদের জীবনটাই অন্যরকম এবং জিজে মেম্ববারস৭

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...