বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

বড় আপুর বান্ধবি ১

"ফ্যান্টাসি" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান PRINCE FAHAD (০ পয়েন্ট)



X লেখক রোজ,,, আমিঃ বউ একটু আদর করো না গো। বউঃ সব সময় এতো আদর খাওয়া ভালো না বুজছো। আমিঃ তাই নাকি? এই বলেই যখন কিস করতে যাবো ওমনেই বড় আপুর ডাক। আপুঃ এই ভাই উঠই,,কলেজে যাবি না আমিঃ আপু তুই,আমার বউ কই আপুঃ তার মানে আজকেও আজেবাজে সপ্ন দেখছত। আমিঃ হুম (মাথা চুলকাতে চুলকাতে) আপুঃ বুজছি বাবা কে বলে তর বিয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। আমিঃ জ্বি না আগে আমার এই পেত্নি বোনটাকে বিয়ে দিবো। আপুঃ হয়ছে ফ্রেশ হয়ে খেতে আসই আমি গেলাম আমিঃ ওকে যা উপরের কথা দেখেই হয়তো বুজে ফেলেছেন এইটা আমার বড় আপু, অনেক কথা বললাম পরিচয় দেওয়া হয় নায় পরিচয় টা দিয়ে দেয়, (আমি নীল বাবা মায়ের দ্বিতীয় সন্তান আর আমার আপুর নাম জয়া পরিবার বলতে আপু আব্বু আম্মু নিয়েই আমাদের পরিবার) পরিচয় দিতে দিতে দেরি হয়ে গেলো ওদিকে আমার আপু না খেয়ে আমার জন্য খাবার টেবিলে বসে আছে,, ফ্রেশ হয়ে এসে একবারে কলেজে যাওয়ার জন্য রেডি হয়ে আসলাম,, আম্মুঃ কিরে এগুলা কি শুনতেছি? আমিঃ কি শুনলা আম্মু আম্মুঃ তুই নাকি কি আজেবাজে সপ্ন দেখিস আম্মুর কথা শুনে বুজলাম পেত্নিটা সব বলে দিয়েছে,আবার দেখি পেত্নিটা মুখ টিপে হাসছে আমার প্রচুর রাগ হলো তাই তাড়াতাড়ি খেয়ে বাইক বের করে বাসার বাইরে দাড়িয়ে আছি আমার আবার পেত্নিটাকে নিয়ে কলেজে যেতে হয় একটু পড়েই আপু আসলো আপুঃ ওই চল আমি কোনো কথা না বলে বাইক স্টাট করলাম আর চলতে শুরু করলাম আপু হয়তো বুজে গেছে আমি রাগ করে আছি আপুঃ কেউ একজন কি আমার উপর রাগ করে আছে আমি চুপ করেই রইলাম।। আপুঃ একজনকে আজকে কিছু টাকা দিতে চেয়েছিলাম সে যদি কথায় না বলে তাহলে থাক টাকাটা দিবো না। আপুর কথা শুনে তো আমার রাগ নিমিষেই হাওয়া হয়ে গেলো আমিঃ আপু আপুঃ চুপ আমিঃ ওই আপু আপুঃ কি হয়ছে আমিঃ টাকা টা দে না আপুঃ বাড়িতে গিয়ে দিবো আমিঃ ওকে কথা বলতে বলতে কলেজে চলে আসলাম আপু তুই যা আমি পার্ক করে আসতেছি এই বলে আমি মটরসাইকেল রেখে পিছনে গুরতেই ঠাস,,ঠাস,,আমার গালে পড়লো, আমি তো অবাকের পর অবাক এই কলেজের কেউ আমার উপর কথা বলার সাহস পায় না তারউপড় আবার চর মারলো,, আমি তাকে না দেখেই বলে ফেললাম আমিঃ কোন সালায় রে? পিছনে গুড়ে তো অবাক একটা মেয়ে। মেয়ে বললে ভুল হবে মেয়ে নয় যেনো সদ্য আসমান থেকে নেমে আসা পরি মেয়েঃ এই ছেলে এমন করে কি দেখিস? আমিঃ কিছুনা মেয়েঃ দেখে তো ভদ্র গড়ের ছেলে মনে হয় তা মেয়েদের ডিস্টাব করিস কেন? আমিঃ ওই হ্যলো অনেক খন দরে ঝারি দিতেছেন, আবার তুই বলতেছেন, আর আমি কোনো মেয়েকে ডিস্টাব করি নাই তখন মেয়েটি একজনকে ডাক দিলো এতো আমার আপুর বান্ধবী মীম আপু মেয়েঃ ওই বল তুই এই ছেলে তকে ডিস্টাব করে নাই মীম আপুঃ কি বলছিস নীলা এতো নীল জয়ার ছোট ভাই আর আমার ক্রাশ, ওহ তার মানে মেয়েটার নাম নীলা এখানে আমাদের কথায় অনেক স্টুডেন্ট এসেছে এমনকি আমার আপু ও আপুঃ কি হয়েছেরে নীলা নীলাঃ একটা ভুল করে ফেলেছি, মীম কে একটা ছেলে অনেক ডিস্টাপ করে তাই আমি ওকে বললাম কোন ছেলেটা ও বললো ওইযে নীল সার্ট পড়া ছেলেটা তর ভাই ও তো নীল শার্ট পড়েছে তাই ওই ছেলেকে মনে করে তর ভাই কে চর মেরেছি স্যরি রে আপুঃ স্যরি আমাকে কেন বলছস ওরে বল নীলাঃ আমি অনেক দুঃখিত আসলে হয়েছে কি আমি তার পুরা কথা না শুনে মীম আপু কে বললাম ছেলেটা কে মীম আপুঃ থাক না নীল জামেলা করার দরকার নাই আপুঃ আরে তুই নীল কে নাম বল ও সব সামলে নিবে মীম আপুঃ এই বিষয় নিয়ে না আগানোই ভালো হবে আমিঃ দেখো মীম আপু তোমাকে আপুকে আমি আলাদা চোখে দেখি না আমার বোনকে কেউ ডিস্টাপ করবে আমি তো চুপ করে থাকতে পারি না মীম আপুঃ রাকিব ভাইয়া আমি আমার ফ্রেন্ড দের ফোন করে আনলাম মীম আপুকে নিয়ে রাকিবের কাছে গেলাম, সাথে আপু আর নীলা ও আছে, আমিঃ রাকিব ভাইয়া রাকিবঃ আরে নীল তুমি এখানে, বসো আমিঃ বসতে আসি নাই তর সাথে কিছু কথা আছে রাকিবঃ এইরকম বিহেব করতাছো কেন? এই কথা বলার সাথে সাথেই,,,,৷৷ #চলবে


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৩২৫ জন


এ জাতীয় গল্প

→ বড় আপুর বান্ধবি ৫ (শেষ পর্ব)
→ বড় আপুর বান্ধবি ৪
→ বড় আপুর বান্ধবি ৩
→ বড় আপুর বান্ধবি ২

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...