বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

অনুভবে শুধু তুমি♥ (পর্ব-১৩)

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Ariya Ibnat (০ পয়েন্ট)



X অনুভবে শুধু তুমি♥ part:13 writer:Tuba Rubaiyat ♦♦ স্টেজের সামনে যেতেই তোহার মনে ভয় বেড়ে গেল।সামনে তাকাতেই ভেসে উঠলো তীব্রর হাসিমাখা মুখ।।তীব্র হাসিমুখে সবার সাথে কথা বলছে।তীব্রর গায়ে নেভি ব্লু স্যুট।অসম্ভব কিউট লাগছে তীব্রকে।তীব্রকে দেখে তোহার হৃদস্পন্দন বেড়ে গেল।সাথে দু ফোটা জল এসে পাড়ি জমাল চোখের কোনায়।এ কান্না দুঃখের নাকি আনন্দের জানা নেই তোহার কাছে??তীব্র হঠাৎ এদিকে তাকাতেই চোখাচোখি হয়ে যায় দুজনের।তোহার দিকে তাকিয়ে তীব্র বাকা হেসে চোখ টিপল।কিন্তু আজ অভিমানেরাও ভীর করেছে তোহার মনে।।সারপ্রাইজ দিতে গিয়ে কেউ এমন করে??এতটা কষ্ট দেয়?তীব্র কি বুঝেনা যে তোহার খুব কষ্ট হয়েছে?তোহা তীব্রর দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিল।নাফিসা পাশ থেকে বলল,,, "কি?কেমন লাগল সারপ্রাইজ?? বলেছিলাম না খুশিতে নাচবি!!এবার??" "তোরা আমার কাছ থেকে কেন লুকিয়েছিস??" "বলে দিলে কি আর সারপ্রাইজ হতো??" "আমি বলেছি আমাকে সারপ্রাইজ দে??তোর সাথে তো আমি পরে বোঝাপড়া করবো।।আগে অনুষ্ঠান টা শেষ হতে দে।" তোহাকে নিয়ে তীব্রর পাশে বসানো হলো।তীব্র তোহার দিকেই তাকাচ্ছে বারবার।কিন্তু তোহা তাকাচ্ছেনা।তীব্র তোহার কানের কাছে মুখ নিয়ে এসে ফিসফিস করে বললো,,,,,,, "মিষ্টিপাখি তোমাকে আজ মারাত্মক লাগছে।।আমি তো পুরাই শেষ। কিসের এখন এইসব এংগেজমেন্ট!আমার তো এখন ইচ্ছে করছে কাজী ডেকে সোজা কবুল বলে তোমাকে বিয়ে করে ফেলি তারপর বাসর।(চোখ টিপে)।আমার এখন বিয়ে বিয়ে পাচ্ছে।।।" তোহা রাগী দৃষ্টিতে তীব্রর দিকে তাকালো।তীব্র ইনোসেন্ট ফেস করে বলল,,, "রেগে যাচ্ছ কেন??আমি যেটা সত্যি সেটাই বলেছি।তোমরা বাবা আর মেয়ে এত নিঃষ্ঠুর কেন বলোতো??এই নিস্পাপ অবলা ছেলেটার উপর একটুও দয়ামায়া নেই নাকি?তোমরা দুজনেই একরকম।তুমি তো আমাকে দিন রাত পুড়াচ্ছো।আমি যে জ্বলছি সেটা কেন বুঝোনা!!আর শশুরবাবাকে বললাম, বিয়ে করবো। কিন্তু শশুরবাবা বলে দিলো পড়ালেখা শেষ হোক।আরে বাবা শশুরই যদি জামাইয়ের দুঃখ না বুঝে তাহলে তার মেয়ে আর কি বুঝবে!!আহারে কপাল!!!" তীব্রর কথা শুনে তোহার ভীষন হাসি পাচ্ছে।কিন্তু তবুও তোহা রাগি ফেস করে অন্য দিকে তাকিয়ে রইল।না সে কথা বলবেনা তীব্রর সাথে।তীব্র কেন এত কষ্ট দিয়েছে।এবার বুঝুক মজা!!তীব্রকে এই সুযোগে একটু জালানো যাবে।এবার বুঝবে চান্দু কত গমে কত আটা??blush তীব্র যত কিছুই বলছে কিন্তু তোহা কোন উত্তর দিচ্ছেনা।তীব্র ভালোভাবেই বুঝে গেছে যে ম্যাডাম রাগ করেছে।কিন্তু সে ই বা কি করবে??সে তো সারপ্রাইজ দিতে চেয়েছিলো।আর এসব তো রোহান আর নাফিসার প্ল্যান ছিলো।।তারউপর ফোনে কত কি বলেছে তোহাকে।এবার তো তোহা ওকে হামানদিস্তায় পিষবে!!আল্লাহ মাবুদ রক্ষা করো এই নিষ্পাপ শিশুটাকে... রোহান আর নাফিসা একপাশে দাড়িয়ে হাসছে।দেখেই বোঝা যাচ্ছে এর সাথে ওরাও ছিলো।রাত ১০টার দিকে প্রোগ্রাম শেষ হয়েছে। তোহা আজ অনেক খুশি।ইচ্ছে করছে নাচতে।তবে ও যে খুশি সেটা প্রকাশ করছেনা।কারন তাহলে নাফিসা, সিনথিয়া ওরা ওকে জ্বালিয়ে মারবে।তোহা ফোন হাতে নিয়ে দেখল তীব্রর ২৭০+মিসড কল।১০০+মেসেজ।তোহা ফোনটা সাইলেন্ট মুডে রেখে দিয়ে হাসতে লাগলো।। "দেখি ডার্লিং কত ফোন দিতে পারো??আমি তো এত সহজে ফোন ধরবোনা।আমি জানি যে তোমার কোন দোষ নেই।তবুও যেহেতু তুমি আমায় জালিয়েছো এবার আমি তোমাকে একটু জালাই। হা হা " অন্যদিকে বেচারা তীব্রর অবস্থা খারাপ।তোহা ফোন রিসিভ করছেনা।তোহার সাথে কথা না বললে তার দমবন্ধ লাগে।তারউপর এই কয়েকদিন কথা বলেনি।এখন তোহা ও ফোন ধরছেনা।হয়তো রাগ করে আছে। তীব্র আরো কয়েকবার ফোন দেয়ার পর তোহা ফোন রিসিভ করলো।তোহার ফোন রিসিভ হতেই তীব্রর কন্ঠ ভেসে এলো।। "ও মাই গড!মিস্টিপাখি তুমি ফোন রিসিভ করেছো!!" "কেন ফোন করে বিরক্ত করছেন আপনি?" "মিষ্টিপাখি শোনো,,,,,,, "কি শুনবো??আমি তো আপনার কেউ নই।আমি ফোন দিলে তো আপনার বিরক্ত লাগে।আমার কোন কিছুতেই আপনার কিছু যায় আসেনা।তাহলে এখন ফোন কেন করেছেন??" "দেখো বউ রাগ করোনা।এতে আমার কোন দোষ নেই।আমি তোমাকে সারপ্রাইজ দিতে চেয়েছিলাম।কিন্তু কষ্ট দিতে চাইনি।এসব রোহান রা করেছে।ও আমাকে তোমার সাথে কথা বলতে দেয়নি, তুমি বুঝে যাবে তাই।।ওসবও ওই শিখিয়ে দিয়েছিলো।।সেদিন তোমার সাথে কথা বলার সময় ও সামনে বসে ছিলো।" "তাহলে থাকো তুমি তোমার রোহানকে নিয়ে।।" "না না আমার বেচে থাকতে হলে তোমাকে লাগবে।আর জানো ওরা আমার ফোন ও নিয়ে গিয়েছিলো যাতে তোমার সাথে কথা না বলি।কারন কথা বললে তোমার সন্দেহ হবে।আর সেদিন ফোনে মুখ ফসকে কি না কি বলে ফেলেছি কি জানি!!প্লিজ বউ মাফ করে দাও।" "আচ্ছা করবো মাফ।তবে যা করেছো তার জন্য তো শাস্তি পেতেই হবে।" তীব্র ঢোক গিলে বলল,,, "কি শাস্তি??" "হুম কি শাস্তি!!সেটাও তো কথা!কি শাস্তি দেয়া যায় বলোতো??হুম আইডিয়া!তোমাকে কান ধরতে হবে।শুধু ধরলে হবেনা উঠবস ও করতে হবে।" "হোয়ায়ায়ায়ায়াট??আমি কান ধরবো??" "হুম তুমিই ধরবে।না হলে আমি তোমার সাথে কথা বলবনা।" "না অন্য শাস্তি দাও,,প্লিজ এটা সম্ভব না।" এদিকে তোহা তীব্রর কান্ড শুনে হেসে কুটিকুটি হচ্ছে। "আচ্ছা তাহলে উঠবস করতে হবে না।শুধু কান ধরে দাঁড়িয়ে আমি যা বলতে বলব তা বলবে,,,,," তীব্র ভেবে দেখল,তোহা যা বলছে সেটা না করলে তীব্রর সাথে তোহা কথা বলবেনা।সেটা তো আরো কষ্টকর তীব্রর জন্য।তাই তীব্র বলল,,,,, "আচ্ছা কি বলতে হবে বলো।" "তুমি কানে ধরে দাঁড়িয়ে বলবে যে,,, 'আমি একটা গাধা।আমি যে কখন মুখ ফসকে কি বলে ফেলি তা আমি নিজেও জানিনা।তোহা তোমার মত মহান মানুষ আমাকে একবার মাফ করে সুযোগ দিতে পারোকি???' যদি তুমি এভাবে বলো তাহলে আমি ভেবে দেখতে পারি,,blush(ভাব নিয়ে) তীব্র বেচারা কি আর করবে!তোহার কথা না শুনে তো উপায় নেই।তাই তীব্র কানে ধরে মুখ গোমড়া করে বলল,, "'আমি একটা গাধা।আমি যে কখন মুখ ফসকে কি বলে ফেলি তা আমি নিজেও জানিনা।তোহা তোমার মত মহান মানুষ আমাকে একবার মাফ করে সুযোগ দিতে পারোকি???'" তোহা একটু ভাব নিয়ে বলল,,, "তুমি এত করে যখন বলছো তখন মাফ করে দিলাম।।তুমি তো জানোই আমি কত মহান!কত দয়ালু!!" তীব্র বিরবির করে বলল,,,, "তুমি নাকি দয়ালু,,,," "কি বললে??" "আমি বলেছি তুমিই দয়ালু,,,,," "বুঝতে হবেblush তোহা কিছুক্ষন চুপ করে থেকে বলল,,,,, "ভালোবাসি ডক্টর সাহেব,,,,,,,,," "আমিও অনেক ভালোবাসি আমার মিষ্টিপাখি কে!" "এবার বলো এত কিছু কিভাবে হলো??" "শোনো তাহলে,,, তুমি জানো যে আমার আম্মি আমার বেস্টফ্রেন্ড।আম্মিকে তোমার ব্যাপারে সবকিছু খুলে বলেছিলাম।আম্মি তোমার ছবি দেখে পাগল হয়ে গেছে।তাই শশুরবাবার কাছে প্রপোজাল দিয়েছে।তোমার ফ্যামিলি ও রাজি হয়ে গেছে।মা তো চেয়েছিলো বিয়েটা ও এখন হয়ে যাবে।কিন্তু তোমার পড়ালেখার জন্য শুধু বাগদান করা হয়েছে।।" "তারমানে আব্বু আম্মু সব কিছু জানে??" "নাহ।জানেনা।তোমার আম্মু মেবি কিছু জানে।তাছাড়া ধরতে গেলে আমাদের বিয়ে এরেঞ্জ ভাবেই হচ্ছে।" "কিন্তু যেহেতু আমি কিছুই জানিনা।সেহেতু যদি উল্টাপাল্টা কিছু করে ফেলতাম তাহলে??" "সেটাও সম্ভব না।কারন সেসব নাফিসা সামলে নিত। তুমি হয়ত কোন ভুল স্টেপ নিতেনা।কিন্তু তবুও তোমার উপর সারাক্ষনই নযর রাখা হয়েছিল।।আর তোমার সাথে খারাপ ব্যবহার করার কারন ছিলো যাতে তুমি আমাদের প্ল্যান সম্পর্কে কিছু বুঝতে না পারো।" "উরে বাবা!!তোমার মাথায় এত বুদ্ধি,,, "আবার জিগায়?blush "হুহ,,,,,,," (চলবে) [উলে বাবালে কি নুমান্তিক কথাবার্তা gjgjgjgjgj]


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৭৩৩ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...