বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

অনুভবে শুধু তুমি♥ (পর্ব-১১)

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Ariya Ibnat (০ পয়েন্ট)



X অনুভবে শুধু তুমি♥ part:11 writer:Tuba Rubaiyat ♦♦ রোহান নাফিসাদের বাসায় এসেছে,নাফিসার আম্মু ডেকেছিলো।। এই কয়দিনে নাফিসাদের পরিবারের সাথে রোহানের পরিবারের খুব ভালো একটা সম্পর্ক গড়ে উঠেছে,,,,,নাফিসার আম্মু রোহানকে খুব ভালোজানে আর রোহানের আম্মু তো নাফিসাকে নিজের মেয়ের মত ভালোবাসেন,,,,রোহান অনেক্ষন নাফিসার আম্মির সাথে গল্প করলো কিন্তু এতক্ষনে নাফিসার সাথে একবারো দেখা হয়নি।।তাই নাফিসার আম্মু কে জিজ্ঞেস করলো,,,,,, "আন্টি বাসার অন্যরা কোথায়??" নাফিসার আম্মু ব্যাপারটা বুঝতে পেরে মুচকি হেসে বলল,,, "নাফিসা তো ওর রুমে।।" "না মানে আন্টি আমি,,,,,, "বুঝেছি,,আর ও রুমেই আছে,,,,যাও গিয়ে কথা বলে এসো!!" "আচ্ছা।" নাফিসার আম্মি কিছু না বলে চলে গেল,,,,রোহান মাথা চুলকে নাফিসার ঘরে গেল।। নাফিসার ঘরে গিয়ে দেখল কেউ নেই।নাফিসা কোথায় গেল??হয়তো বারান্দায় আছে।।টেবিলের উপর একটা ডায়েরী।। নাফিসার ডায়েরী।।অন্যর ডায়েরী ধরা ঠিক না জেনেও কৌতূহল বশত রোহান ডায়েরীটা উলটানো শুরু করলো।।ডায়েরীতে অনেক কিছুই লেখা আছে।।তোহার দাদুবাড়ির সেই ঘটনা গুলোও লেখা আছে।।একটা জায়গায় রোহানের নাম দেখে রোহান বিস্মিত হয়ে গেল।।ও পড়তে শুরু করলো,,,,,,,,নাফিসা লিখেছে,,, "আজ রোহানের কথা খুব মনে পড়ছে।কেন যেন বারবার ওই বোকাটার কান্ড গুলো মনে পড়ে।।ছেলেটা খুব বোকাসোকা।।কিন্তু সে তো আমার কেউ না।তাহলে তার কথা বারবার কেন মনে পড়ে আমার??কেন যেন আমি তাকে মিস করছি??সত্যি ভীষণ মিস করছি।তবে হয়ত আর কখনও আমাদের আর দেখা হবেনা।।আচ্ছা ও কি আমাকে মিস করে??আমার কথা কি মনে পড়ে তার??ইশশ কি সব আবোলতাবোল লিখছি আমি!!আমার দ্বারা এসব কখনো সম্ভব নয়।।ও কেউ না আমার!!কেউ না!!" রোহান অবাক।।কারন এই কয়দিনে সে ও নাফিসাকে ভীষণ মিস করেছে।ভীষণ!! নাফিসার ও রোহানের প্রতি ফিলিংস আছে শুনে রোহানের মুখে হাসি ফুটে উঠলো।।হঠাত ওয়াশ রুমের দরজা খোলার শব্দে রোহান ডায়েরী টা রেখে দিলো।।নাফিসা এতক্ষন ওয়াশরুমে ছিলো।।নাফিসা রোহানকে ওর ঘরে দেখে অবাক হয়ে প্রশ্ন করলো,,,, "আপনি??এখানে??না মানে কখন এসেছেন??" "এইতো একটু আগেই এলাম।।কি অবস্থা তোমার??" "ভালো!!আপনার??" "আমিও ভালো আছি,,আচ্ছা নিচে চল ,তোমার সাথে কিছু দরকারি কথা আছে।" "কি কথা??" "নিচে চল।বলছি,,," "হুম চলুন।" ♦♦ তোহার ক্লাশ পুরোপুরি শুরু হয়ে গেছে।।নতুন জায়গায় খাপ খাইয়ে নিতে তোহার একটু প্রব্লেম হলেও বেশি হয়নি কারন তীব্র সবসময় তোহাকে সাপোর্ট করেছে।।তীব্রর এমবিবিএস শেষ ।। ও এখন ইন্টার্ন করছে।।তোহা তীব্রর সিনিয়র হওয়াতে কোন প্রব্লেম হচ্ছেনা।বরং সারাদিনের ব্যস্ততা,তীব্রর সাথে খুনসুটি সবমিলিয়ে ওদের দিন খুব ভালো কাটছে।। আজ আকাশ টা মেঘলা।।হাল্কা ঝিরঝিরে বাতাস বইছে।হয়ত বৃষ্টি হবে।।তবে এখনো বৃষ্টি শুরু হয়নি।।এরকম আবহাওয়া তোহার ভীষন পছন্দ।।এই আবহাওয়া টা একা উপভোগ করতে খুব ভালো লাগে।।এ সময় মন খারাপ থাকলেও মন ভালো হয়ে যায়।।এরকম মেঘলা দিনে নির্জন রাস্তায় যেখানে মানুষ জন নেই সেখানে হাটতে খুব ভালো লাগে।।ইচ্ছে হয় হাটতে হাটতে হারিয়ে যেতে। কিন্তু তোহার আজ কিছুই ভালো লাগছেনা।।মনটা কিছুতেই ভালো হচ্ছেনা।সবকিছু অসহ্য লাগছে।।কারন তীব্রর সাথে এই দুদিন যোগাযোগ হয়নি।তোহার মনে হচ্ছে তীব্র ওকে ইগনোর করছে।কিন্তু কেন??তীব্র তো কখনো এমন করেনা!উলটো ওকে একদিন না দেখলে দেয়াল বেয়ে দেখতে চলে আসে।।কি হয়েছে তীব্রর??ও কি খুব ব্যস্ত??হুম সেটাই হবে হয়ত!! রাতে তোহার বাবা -মা তোহাকে ডেকে বলল,,,, "তোহা মা!এদিকে আয় তো তোর সাথে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা আছে।" "কি কথা আব্বু??এখন না পরে শুনবো,,,!" "না এখন শুনে যা। খুব দরকারী কথা!" "যত দরকারিই হোক পরে শুনবো।এখন ভাল্লাগছেনা,,,প্লিজ ডিস্টার্ব করোনা,,,,,," তোহার আম্মি বলল,,, "কি হয়েছে তোর??শরীর খারাপ নাকি??" "না আমি ঠিক আছি,,কিচ্ছু হয়নি আমার!" তোহা কাউকে কিছু না বলতে দিয়ে দরজা আটকে ঘুমিয়ে পড়ল। পরদিন সকালে,, ভোরের একটুকরো সোনালী রোদ জানালা ভেদ করে এসে ঘরের ভেতরে পড়েছে।।তোহা আড়মোড়া দিয়ে জেগে উঠলো।।নিজেকে খুব ফ্রেশ লাগছে।বাড়িতে অনেক মানুষের চেঁচামেচি শোনা যাচ্ছে।।মনে হচ্ছে বাড়িতে অনেক মেহমান।।তোহা দরজা খুলে নিজের রুম থেকে বের হয়ে এল।।বের হতেই ধাক্কা খেল।।তাকিয়ে দেখে সিনথিয়া। ওর কাজিন। "আরে সিনথি তুই??কখন এসেছিস??" "একটু আগে এলাম।তুই তো ঘুমাচ্ছিস।" "আর কে এসেছে??" "আর কে মানে?? সবাই এসেছে।।নিচে চল।গেলেই দেখতে পাবি।" তোহা তো পুরো অবাক।পুরো বাড়িতে মানুষ গিজগিজ করছে।ওর মামা-মামি,চাচা-চাচি,খালামনি কাজিনরা সব।।তাছাড়া ওদের বাড়িটাও সাজানো হচ্ছে।যেন কারো বিয়ে।।তোহা অবাক হয়ে প্রশ্ন করলো,,, "তোমরা সবাই??আর আজ বাড়ি এমন সাজানো হচ্ছে কেন??কোন অনুষ্ঠান আছে নাকি??" তোহার ফুফু বললো,,, "কি বলছিস??তুই বংশের বড় মেয়ে আর তোর বিয়েতে আমরা থাকবোনা??" "হোয়াট???বিয়ে মানে?কার বিয়ে?" "তোর বিয়ে!" সিনথিয়া বলল,,, "ওয়েট ওয়েট আম্মু!শুধু শুধু ভয় দেখাচ্ছো কেন??আজ বিয়ে নয় আজ হলো এংগেজমেন্ট।।তারপর হবে বিয়ে!" তোহা বলল,, "সিনথি ফাজলামো বন্ধ কর,,,মেজাজ গরম করবিনা।।ফাজলামো রেখে বল ব্যাপার কি??" "ফাজলামো কেন করবো??আজ রাতে সত্যি তোর এংগেজমেন্ট।তোর বিশ্বাস না হলে মামিকে জিজ্ঞেস কর।" তোহা তাড়াতাড়ি রান্নাঘরে ওর আম্মুর কাছে গেল।।তোহাকে দেখে তোহার খালামনি বলল,,,, "কিরে কনে সকাল ১০টা পর্যন্ত ঘুমালে লোকে কি বলবে??" তোহা ওর আম্মুকে বলল,,, "হচ্ছে কি এসব আম্মু??কি বলছে সবাই??কার বিয়ে??কি এসব??" তোহার আম্মু বলল,,, "কি হবে? যা শুনছিস সেটাই তো।আজ রাতে তোর এংগেজমেন্ট।।" "ওয়াট!!!আমার এংগেজমেন্ট?? কি বলছো এসেব??কার সাথে??আমি কিছুই জানিনা!!" "কাল রাতে তো সেটাই বলতে চেয়েছিলাম।।তুই তো শুনিস ই নি।" "কিন্তু আম্মু,,আমার পড়ালেখা এখনো শেষ হয়নি,আমি এখন বিয়ে করবোনা প্লিজ।,,,,, " "বিয়ে তো এখন হবেনা,,,এখন শুধু এংগেজমেন্ট টা হবে।আর বিয়ে যখন তুই চাইবি তখন হবে।।" "বিয়ে যেহেতু পরে হবে সেহেতু এংগেজমেন্ট এর কি দরকার??আর বড় কথা হলো আমি তাকে চিনিনা,,,," "ছেলেটা খুব ভালো।তোর বাবার খুব পছন্দ ওকে।।আর তোর ও পছন্দ হবে।।ওদের বাড়ির সবাই চায় এংগেজমেন্ট টা তাড়াতাড়ি করে ফেলতে।।তাই আজ রাতে এংগেজ হবে। এখন যা আমার অনেক কাজ আছে,,,," তোহা দৌড়ে নিজের ঘরে চলে এল।।ওর মাথায় আকাশ ভেংে পড়েছে।এটা কি করে সম্ভব??ও তো তীব্রকে ভালোবাসে তাহলে এই বিয়ে,,,,,,,,,,,আর অন্যদিকে ও তো ওর বাবা মাকে তার চেয়ে বেশি ভালোবাসে।।কি করবে এখন??বিয়েটা ই বা কিভাবে ভাংবে??কেউ তো তোহাকে পাত্তাই দিচ্ছেনা।ও কি এসব তীব্রকে জানাবে এখন??হয়তো ও কোন বুদ্ধি দিতে পারবে!! (চলবে) [আমার এই গল্পটা দয়া করে কপি করবেন না]


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৪৮৯ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...