বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

অনুভবে শুধু তুমি♥ (পর্ব-১০)

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Ariya Ibnat (০ পয়েন্ট)



X অনুভবে শুধু তুমি♥ part:10 writer:Tuba Ruabiyat ♦♦ "একটু ওয়েট কর। চলে আসবে।"(তোহা) "হুম,,,,,,,,আরে ওই দেখ আমার নিউ ক্রাশ এদিকে আসছে,,,,,,,(তীব্রকে দেখিয়ে) "এত লাফাস না,,,,,দেখ কি হয়?" তীব্র তড়িঘড়ি করে ওদের সামনে এসে দাঁড়িয়ে কান ধরে তোহার দিকে তাকিয়ে বলল,,,,, "সরি মিষ্টিপাখি,দেরী হয়ে গেল।" "দেরী করেছো কেন??"(তোহা) "আসলে বের হয়েছি পরে স্যারের সাথে দেখা, তাই কথা বলতে বলতে লেইট হয়ে গেছে।" "হুম!তীব্র এটা রিয়া আমার ফ্রেন্ড আর রীয়া এটা তীব্র,,,,,,,,, "উনিই তীব্র??কিন্তু উনি তো বলেছিলেন যে ওনার নাম রাদিফ আবরার,,,,,,,,,,,,(রিয়া অবাক হয়ে বলল) তীব্র বলল,,,, "জ্বি শালিকা!আমিই তীব্র।আমার পুরো নাম হলো রাদিফ আবরার তীব্র,,,,,,,,আর এখানে দাড়িয়েই কতগা বলবে নাকি??কোথাও বসি??" তোহা বলল,, "হুম চল।" তীব্র আগে হাটছে তোহা আর রিয়া পেছনে হাটছে,,,,রিয়া ফিসফিস করে বলল,,,,,,, "ওই গাধী!তুই এইডা কোন কাম করলি??" তোহা আশ্চর্য হয়ে বলল,,,, "আমি আবার কি করলাম??" "কি করছিস মানে??আরে বেক্কল এটাই যে তীব্র সেটা আগে বলিস নি কেন আমাকে??" "তুই আমাকে বলার কোন সুযোগ দিয়েছিস,ডাফার??তার আগেই তো তুই,,,,,,,,,,," "হুম দেখ আমার কপাল! সাইয়া থেকে সোজা ভাইয়া বানাই দিলি!!!" "দুঃখ করিস না দোস্ত।তুই আরো ভালো কাউকে পাবি,,,,,," "হুম দেখিস তার উপর সারাদিন ক্রাশ খাবো,,,হুহ,,,,," "হা হা হা ঠিক আছে চল এবার,,," কিছুক্ষন গল্প করে রিয়া চলে গেল।।রিয়া চলে যাওয়ার পর তীব্র তোহার দিকে তাকিয়ে দেখল তোহা ওর দিকে রাগী ফেসে তাকিয়ে আছে।তীব্র বলল,, "কি হলো মিষ্টিপাখি??রেগে আছো কেন??" "রেগে আছি তো সাধে।।আচ্ছা একটা কথা বলোতো,তুমি কি এখানে পড়াতে আসো নাকি মেয়ে পটাতে আসো??" "মেয়ে পটাতে??আসতাগফিরুল্লাহ!নাউজুবিল্লাহ কি বলে এসব??আমি কেন মেয়ে পটাতে যাবো??" "তোমার কি মনে হয় আমি কিছু বুঝিনা??তাহলে এত সাজুগুজু করে আসো কেন??" "আমার আবার কখন সাজুগুজু করলাম??" "এইযে রংবেরঙ এর শার্ট, চোখে সানগ্লাস এসব??যেহেতু এখানে টিচার সেহেতু এখন থেকে কোচিং এ আসার সময় সাদা শার্ট পড়বে,চুলে জেল দেবেনা, তেল দিয়ে মাঝখানে সিথি করে আসবে,,তারপর চোখে কালো ফ্রেমের গোল গোল চশমা দিয়ে আসবে তাহলে চেহারা গুলুমুলু লাগবে।।তাহলে আর মেয়েরা তাকাবে না, বুঝেছো???" তীব্র ভালোভাবেই বুঝতে পেরেছে যে তোহা জেলাসি হয়ে এমন করছে তাই তোহাকে রাগানোর জন্য বলল,,,, "হায় হায়!কি বলছো এসব??তাহলে তো আমাকে দেখে কোন মেয়েই ক্রাশ খাবেনা!তুমি যানো আমি কত মেয়ের ক্রাশ??" "কিইইই??? ব্যাটা অসভ্য!!!তুই থাক তোর মেয়ে নিয়ে,,,,,আমি গেলাম।।" "মিষ্টিপাখি, দাড়াও!আমি তো দুষ্টুমি করছিলাম,,,,,," কিন্তু তোহা তো ততক্ষনে চলেই গিয়েছে।।তীব্র বেচারা আর কি করবে??দুষ্টুমি করতে গিয়ে গার্লফ্রেন্ড ভেগে গেছে।।তীব্রর বাড়ি যাওয়ার পথেই রোহানের সাথে দেখা,,,,, "কি দোস্ত, কেমন আছিস??"(রোহান) "আমি আর ভালো!!দুষ্টুমি করতে গিয়ে বউ ভেগে গেছে,,,,,,,"(তীব্র) "দুষ্টুমি করতে গিয়েছিস কেন??" "তো! তোর কি খবর??তোর নাকের এই বেহাল দশা কেন??আবার কে ঘুসি মেরেছে??" রোহান গোমড়া মুখু হয়ে উত্তর দিলো,,,,, "ওই মিসাইল থাকতে আর কে??" তারপর রোহান তীব্রকে পুরো ঘটনা খুলে বলল।।সব শুনে তো তীব্র হাসতে হাসতে শেষ।। ♦♦ গভীর রাত,,,, তোহা ঘুমাচ্ছে।ঘুমের মধ্যে তোহার মনে হচ্ছে কেউ যেন তোহার পাশে বসে একদৃষ্টিতে তার দিকে তাকিয়ে আছে।।তোহা ঘুমিয়ে থাকলেও আশেপাশের কি হচ্ছে সেটা বুঝতে পারে।।কিন্তু এখন তোহার চোখ মেলতে ইচ্ছে করছে না।।তবুও চোখ মেললো,,,,ডিম লাইটের আলোতে ওর পাশে একটা ছায়ামূর্তি কে দেখতে পেলো।।সাথে সাথে চিৎকার করতে নিলেই সে তোহার মুখ চেপে ধরে ফিসফিসিয়ে বলল,,,,,,, "আরে আস্তে।চিৎকার করোনা। এটা আমি।।" তীব্রর গলা শুনে তোহার ভয় কেটে গেল।পরক্ষনেই মনে হলো তীব্র এখানে কি করছে??তোহা বলল,,,,, "তুমি??তুমি এত রাতে এখানে কি করে??" "তোমাকে খুব দেখতে ইচ্ছে করছিলো।।তাই তোমায় দেখতে চলে এলাম,,,,," "সে তো বুঝলাম কিন্তু এসেছো কিভাবে??গেট তো বন্ধ করা,,,আর তাছাড়া আমার রুমের দরজা ও তো বন্ধ,,, " "আমি তো দরজা দিয়ে আসিনি।" "তাহলে কিভাবে এসেছো??" তোহা অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলো।।তীব্র বেক্কল মার্কা হাসি দিয়ে বলল,,,,, "দেয়াল টপকে।" "কিইই??" "হুম,,,তোমাকে দেখতে ইচ্ছে করছিলো তাই এসেছি।।অনেক্ষন বাইরে দাঁড়িয়ে ছিলাম।।পরে ভাবলাম তুমি হয়তো ঘুমাও তাই ফোন দেয়া ঠিক হবেনা।তাই দেয়াল টপকে পাইপ বেয়ে তোমার ব্যল্কনি দিয়ে এসে পড়েছি,,,,,,blushএসে দেখি তুমি ঘুমাও।" "তাই বলে পাইপ বেয়ে??পড়ে গিয়ে পা ভাংলে কি হতো??" "হাসপাতালের বেডে শুয়ে থাকা হতো।।" "সেটাই ভালো হতো,, হুহ!!" "আচ্ছা একটা কথা বলোতো! কেউ এত কিউট করে কি করে ঘুমায় বলোতো??তুমি যখন ঘুমাও তোমার গুলুমুলু গাল, মাঝে মাঝে ভ্রু টা একটু কুচকে রাখো তখন খুব কিউটি লাগে।।।কেউ এত কিউট করে ঘুমায়???" "আমি ঘুমাই,,, হয়েছে??" "আমার তো এভাবেই তাকিয়ে থাকতে ইচ্ছে করছিলো।।" "আমাকে দেখা শেষ হলে এবার যাও।" "এভাবে তাড়িয়ে দিচ্ছো আমায়??এই মাসুম বাচ্চাটার উপর একটু দয়ামায়া নেই??" " নাহ নেই।যেসব মাসুম বাচ্চারা দেয়াল টপকাতে পারে তাদের উপর দয়ামায়া করতে হয়না,,,,যাও এবার।।" "আরো কিছুক্ষন থাকি প্লিইইইজ!" "নায়ায়ায়া!যাও,,," "ওকে যাচ্ছি,,,,বাই,, গুড নাইট।। " তীব্র চলে যাওয়ার পর তোহা মাথায় হাত দিয়ে বসে রইল।।এই ছেলেকি পাগল?? মাথায় বুদ্ধিশুদ্ধি একেবারেই নেই নাকি?? দেখতে ইচ্ছে হয়েছে বলে এত রাতে দেয়াল বেয়ে চলে এল??দেখতে ইচ্ছে হলেই ঝুকি নিয়ে চলে আসতে হবে???যদি পরে গিয়ে ব্যথা পেত তখন??সত্যিই পাগল একটা!!! ♦♦ দেখতে দেখতে তিনমাস পেরিয়ে গেছে।।তোহার মেডিকেলের এক্সাম ও শেষ।। আজ তোহা ভীষণ টেনশনে আছে।।কারন আজ তোহার এডমিশন টেস্ট এর রেজাল্ট দেবে।।কে জানে কি হয়??তোহার খুব ভয় লাগছে।।যদি চান্স না পায় তাহলে?? ফোনের রিংটোন এর শব্দে তোহার ধ্যান ভাঙে।। তোহা কাপাকাপা হাতে ফোন রিসিভ করে।।রিসিভ করতেই ওপাশ থেকে তীব্রর আনন্দিত স্বর শোনা গেল,,,,,,,, "কনগ্রাচুলেশন মিষ্টিপাখি, ঢাকা মেডিকেলে হয়ে গেছে।।আমার মিস্টিপাখি জাতীয় মেধায় তৃতীয় হয়েছে।" "সত্যিইইইই!!!তাহলে আব্বুকে জানাচ্ছি,,,,,,,,"(তোহা) "হ্যা জানাও,,,,,খুব খুশি খুশি লাগছে তাাইনা??" "হুম অনেক!!তোমার খুশি লাগছেনা??" "তুমি খুশি হলে আমি খুশি হবোনা তো কে হবে??আজ আমিও অনেএএক খুশি।" আজ সবাই অনেক খুশি।।তোহার চেয়ে তোহার বাবা-মা আর তীব্র বেশি খুশি হয়েছে।। (চলবে)


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৬২৩ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...