বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

প্রসাব করা নিষেধ (শেষ পর্ব)

"মজার অভিজ্ঞতা" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান রাগিব আহমেদ তুহিন (০ পয়েন্ট)



X আছেম: (আমতা আমতা করে) তুই যাওয়ার কিছুক্ষণ পর এখানে আরও এক দল মিস্ত্রী কোথা থেকে যেন গোসল করতে আসে। পড়ালেখা মোটামুটি পারে।তারা আমাদের এই বিজ্ঞপ্তির ব্যাপারটাকে হেসেই উড়িয়ে দিলো এবং টানা ১০-১২ জন প্রসাব করে।আজিম বাজার থেকে ১০৳ দিয়ে ব্লিচিং পাউডার আনে।ওদের কাছে জরিমানা চায়।কিন্তু পাত্তা দেয় না।আমাদের পাড়ার বড় ভাইয়া এটা লিখে বিজ্ঞপ্তি লাগায়:"এখানে যে প্রসাব করবে সে পশু"।আমি ঃ কেন? আজিম ঃ ভাইয়া বলেন, এটা দেখে কেউ নিজের পশুর পরিচয় দিবে না! আমি ঃ তারপর? আছেম ঃ যুবক এসে বলে, "ছি! ছি! এটা কি লিখেছে? ব্যবহারে বংশের পরিচয়। ভুলবশত কেউ প্রসাব করতেই পারে।" পাশে থেকে ভাইয়া বলেন, আমাদের সর্বনাশ, আপনাদের পৌষমাস।ঘাটলায় একটু বসা যায় না।আমি ঃ এত ভণিতা না করে বল, তারপর কি হয়েছে? আজিম ঃ কতক্ষণ কথা কাটাকাটির পর হাতাহাতি শুরু হয়।সবাই ছাড়ি দেয়।যাতে পরবর্তীতে এরকম ঝামেলায় পড়তে না হয়, তাই এ বিজ্ঞপ্তি! আমি ঃ"তাড়াতাড়ি ছিঁড়।আগে যেমন ছিল, তেমনই থাক।" কয়েকদিন কেটে গেল।কেউ এটার ঘটার পর ঘাটলার কাছে ভয়ে ভুলেও প্রসাব করে না।আছেম: ঝগড়াটাতে তো ভালো ফলাফল। আজিম: কথায় আছে না, ২ জনের ঝগড়া ৩য় ব্যক্তি লাভবান। আমি: এবার আরামসে ফোন চালা! হা! হা!


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৪৮৭ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...