বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

অনুভবে শুধু তুমি♥ (পর্ব-১)

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Ariya Ibnat (০ পয়েন্ট)



X অনুভবে শুধু তুমি♥ Part:1 writer: Tuba Rubaiyat ♦ তোহা মুখ ফুলিয়ে সোফায় বসে আছে।।তবে এর কারন ও আছে।।আজ থেকে শীতের ছুটি শুরু হয়েছে।তোহাদের কলেজ ও বন্ধ দিয়েছে।।এবার অনেক লম্বা ছুটি।।কিন্তু আসল ব্যাপার সেটা নয়।।আসল কথা হলো এ ছুটিতে কি করবে??বাসায় বসে বসে বোর হওয়ার কোন মানে হয়না।।তোহা আর তোহার ভাইয়ের কথা হলো ওরা দাদুবাড়ি যাবে।।আর তার জন্য ওদের বাবাকে রাজী করাতে হবে।।ও বসে বসে এসব ভাবছে এর মধ্যেই ওর বাবা এলো।। "কি হয়েছে এভাবে বসে আছো কেন??" "বাবা চলোনা দাদুবাড়ি যাই" তোহার বাবা মুচকি হাসি দিয়ে বললেন,,,, "আমি তো সেটা বলতেই এলাম,,,,,আমরা কাল সকালে যাচ্ছি।।ব্যাগ গুছিয়ে নাও " "সত্যিইইইই!!!!লাভ ইউ বাবা।" "আই লাভ ইউ টু মামনি" ওর বাবা যেতেই ও খুশি হয়ে ব্যাগ গুছানো শুরু করে দিলো।।এবার আমরা পরিচয় জেনে নেই।। [তোহার পুরো নাম রাফিয়াত তাসনিম তোহা।বাবা তৌফিক ইসলাম।তোহা ইন্টারমিডিয়েট এ পড়ে।।দেখতে খুব মিষ্টি।। একটু বাচ্চা টাইপ] সারারাত এক্সাইটমেন্ট এ ঘুম হয়নি তোহার।।ওর দাদুবাড়ি গ্রামে।।ওর কাছে গ্রামের পরিবেশ খুব ভালো লাগে।।যাইহোক সকালের ট্রেনে ওরা যাবে।।সকাল সকাল সবাই স্টেশন এর উদ্দেশ্যে রুওনা করলো।।তোহা কেবিনে বসে বাইরের দিকে তাকিয়ে আছে।।চারদিকে অনেক মানুষ।। প্ল্যাটফরম এর উপর একটা ছেলে দাঁড়িয়ে আছে।।ছেলেটার চোখেমুখে বিরক্তির ছাপ।বারবার ঘড়ির দিকে তাকাচ্ছে আর কাউকে ফোন করছে।।কিন্তু ওপাশের ব্যাক্তিটি ফোন ধরছেনা।।মনে হয় কারো জন্য অপেক্ষা করছে।।কিছুক্ষন পর আরেকটা ছেলে দৌড়াতে দৌড়ারে এলো।।ছেলেটা রেগে চোখমুখ শক্ত করে কিছু বলতে যাবে তার আগেই ওই ছেলেটা কানে ধরে মাফ চেয়ে নিলো,,,,,,তারপর দুজনেই ট্রেনে উঠে গেল।।কিছুক্ষন পর ট্রেন ছেড়ে দিলো।। তোহার ভাই তাসিফ বসে বসে চুইংগাম চাবাচ্ছে।।তোহাদের দুইটা সিট সামনেই ওই ছেলেদুটো বসেছে।।ওদের মধ্যে একটা ছেলে পাশের লোকজনের সাথে কথা বলছে আরেকজন কানে ইয়ারফোন গুজে ফোন টিপছে।।তোহা এবার বাইরের দিকে মনোযোগ দিলো,,,,,!! তোহারা দুপুরের দিকেই ওর দাদুবাড়ি পৌছে গেল।।বাড়িতে ঢুকতেই সেকি আনন্দ।।শীতের ছুটি হওয়ায় ওর ফুফি, চাচ্চু সবাই এসেছে।।এ বাড়িতে এলে তোহা তাসিফ কারোই হুস থাকেনা।।ওরা গিয়ে সবাইকে সালাম করে।ওর দাদী এসে তোহাদেরকে জড়িয়ে ধরে।।। হঠাৎ তোহাকে কেউ এসে জানু বলে জড়িয়ে ধরে,,,,,,আর বলে,,, "কিরে তুইকি আমাকে ভুলে গেছিস জান??" "উফ তোকে কিভাবে ভুলি??কেমন আছিস তুই??" "আমি ভালো আছি,,,এখন তুই আসাতে আরো ভালো থাকবো।।" তোহার কাকীমা বলে উঠল,,, "নাফিসা কি শুরু করেছিস??ওরা জার্নি করে এসেছে আগে রেস্ট করুক তারপর কথা বলিস।।তোহামনি কে ঘরে নিয়ে যা।" "আচ্ছা চল তোহা" [নাফিসা তোহার কাজিন।।দুজনে একই ক্লাসে পড়ে।।ওরা বেস্টফ্রেন্ড এর মত।।তোহা এখানে আসলে দুজনেই সারাদিন একসাথে থাকে।।] তোহা রুমে এসে ফ্রেশ হয়ে নেয়।।তারপর খেয়ে দেয়ে একটু রেস্ট নেয়।।বিকেলে তোহার ঘুম ভাঙে।। আড়মোড়া দিয়ে উঠে নিচে যায়।।ওর কাকী রান্নাঘরে কফি বানাচ্ছিলো,,,,,তিনি তোহাকে কফি এগিয়ে দেন।।তোহা কফি খেতে খেতে রুমে যাওয়ার জন্য অন্যমনস্ক ভাবে সিড়ি দিয়ে উঠছে।।হঠাৎ একটা খাম্বার সাথে ধাক্কা।তোহা ভাবছে এখানে তো কোন খাম্বা ছিলোনা তাহলে?? ও চোখ বন্ধ করে ভাবছে আসলে ব্যাপারটা কি?? "হেই ইউউ!!" হঠাৎ কারো চিৎকার এ ওর ঘোর ভাঙে।। উপরের দিকে তাকিয়ে তো ওর চক্ষু চড়কগাছ।।এটা তো কোন খাম্বা না এ তো জলজ্যান্ত মানুষ।।কিন্তু যা হবার হয়েই গেছে মানে সামনে র ব্যাক্তি কফি দিয়ে গোসল করে ফেলেছে।।তোহা মনে মনে ভাবছে "তোহারেএ এবার কি হবে?" ও ভয় পেয়ে তাড়াতাড়ি বলে উঠলো "দেখুন আম স্যরি!!আমি আসলে দেখিনি।।ছেলেটা কিছু বলতে নিয়েও বলল না।।তোহা এবার ছেলেটার চেহারার দিকে তাকালো।।তাকিয়েই ও অবাক।।সেই স্টেশনের ছেলেটা।।ও কিছু বলতে যাবে।তখনই তোহার কাজিন আসিফের গলা শোনা গেল,,,,,, "তীব্র উঠে গেছিস??ঘুম কেমন হয়েছে??" বলতে বলতে আসিফ এগিয়ে এলো।।এসেই ছেলেটাকে জিজ্ঞেস করলো "কিরে তোর এই অবস্থা কেন??" তোহাকে দেখে,,,,,,,, "আরে তোহা কেমন আছিস??সরি তুই ঘুমাচ্ছিলি তাই দেখা হয়নি,,,,তোরা যখন এসেছিস তখন আমি তীব্রদেরকে আনতে গিয়েছিলাম" "আমি ভাল আছি ভাইয়া তুমি কেমন আছো???" "আমিও ভালো আছি।" "ভাইয়া এটা,,,,,,,,,,,, (তীব্রকে দেখিয়ে) "ওহ এটা তীব্র।আমার বড় খালামনির ছেলে।।এবার শীতের ছুটিতে নিয়ে এলাম।।আর তীব্র এটা তোহা।।চাচ্চুর মেয়ে।।" তীব্র এবার বলল,,, "হাই আমি রাদিফ আবরার তীব্র।।এমবিবিএস 3rd year।।ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে।।আসিফ আর আমি সমবয়সী।। " "হ্যালো আমি রাফিয়াত তাসনিম তোহা।ইন্টার ফার্স্ট ইয়ারে পরিক্ষা দিলাম এবার সেকেন্ড ইয়ারে উঠবো।।আর স্যরি আপনার গায়ে কফি,,,,,,,,,,,, " তীব্রর রাগ লাগলেও বলল,,,, "ইট'স ওকে।" "আচ্ছা তীব্র তুই চেঞ্জ করে নে।।আর রোহান(তীব্রর ফ্রেন্ড) কোথায়??এখনো ঘুম থেকে উঠেনি??"(তাসিফ) "না ও এখনো ঘুমাচ্ছে"(তীব্র) ♦♦ তোহা আর নাফিসা ছাদে বসে আছে।।দুজনে গল্পের ঝুড়ি নিয়ে বসেছে।।এরমধ্যে কারো চিতকারে ওরা তাড়াতাড়ি নিচে নেমে আসে।।চিৎকার তীব্রের রুম থেকে আসছে।।ওরা ভেতরে গিয়ে দেখে একটা ছেলে খাটের উপর উঠে লাফাচ্ছে আর চিল্লাচ্ছে।।ওর চিৎকার শুনে তীব্র আর আসিফ ও চলে এসেছে।। "রোহান কি হয়েছে??এভাবে চিল্লাচ্ছিস কেন??"(তীব্র) "ব্রোওওও আমি শেষ!! প্লিজ সেভ মি!" "আরে কি হয়েছে সেটা তো বল।" "দোস্ত কক্রোচ!!মানে তেলাপোকা" রোহানের কথা শুনে ওরা সবাই একে অপরের দিকে তাকালো।।সবাই অবাক।।নিরবতা ভেঙে নাফিসা হু হা করে হেসে দিলো।।ওর সাথে সাথে আসিফ আর তীব্র ও হেসে দিলো।।শুধু তোহা চুপ করে আছে।।আসলে ও সেই তেলাপোকা টাকে খুজছে।।কারন ও নিজেও তেলাপোকা খুব ভয় পায়।।ওকে যদি ধরে একবার তাহলে আর বলতে হবেনা।।।। "লাইক সিরিয়াসলি?? আপনার মত বুইড়া ছেলে তেলাপোকা কে ভয় পায়??"(নাফিসা) "এই মেয়ে হাসছো কেন??তেলাপোকা যদি আমাকে ধরে কামড় দেয় তখন??আর আমি বুইড়া??" "হুম আপনি বুড়া ই তো।" "ইইইইউউউউউ!!" "এই আপ,,, ,, ,,,,, (নাফিসা) "আচ্ছা দুজনেই চুপ,,,,,আর রোহান সত্যিই তেলাপোকা খুব ভয় পায়।।আর রোহান তেলাপোকা চলে গেছে আর ভয় নেই।।এবার খাট থেকে নেমে আয়।।"(তীব্র) রোহান ভয়ে ভয়ে খাট থেকে নেমে এলো।।এরপর বাকিরা সবাই হাসতে হাসতে রুম থেকে বেরিয়ে গেল।।। চলবে,,,,, [আচ্ছা ইহা কি চলিবে???????]


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১২৮৯ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...