বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

আমার স্বপ্নের গল্পে তুমি(পর্ব৭)

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান ESHRAT JAHAN (৪১৩ পয়েন্ট)



X রনি বাসায় আসলো।ভেতরে ঢুকেই দেখে মায়ের হাতে লাঠি।রনি বলল,"কি হয়েছে মা?লাঠি কেন?" "এই রাতে কোথায় গেছিলি?" "একটু বাইরে গেছিলাম মা।" "বাইরে কি করছিলি?" "না মানে এমনি হাঁটাহাঁটি করছিলাম।" "হাঁটাহাঁটি করার জন্য বাইক নিয়ে গেছিলে?" "না মানে মা আসলে কেমনে যে বলি তোমাকে।" "তুই যেমনেই পারিছ তেমনেই বল।" "মা আমি ইসরাতকে ভালোবাসি।তাকে খুব দেখতে মন চাচ্ছিল তাই সেখানে গিয়েছিলাম।" রনি নিজের রুমে গেল।ইসরাতের ফটো বের করলো। "এই শোনো,তোমার চা কিন্তু দারুন লেগেছে রাত।তোমার সবই সুন্দর।তুমি যা করো তাই সুন্দর।" রনির মা দেখলো রনি ফোনে কি যেন বের করে কি যেন বিড় বিড় করে বলছে।রনি ভাবতে লাগলো ইসরাতের কথা।ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে গেলো।রনি আর রিফাহ প্লান্ট করেছে কোনো এক গ্রামের একটা বিলে যাবে।ইসরাত প্রথমে যেতে রাজি হচ্ছিল না।তারপর রাজি হলো। ইসরাত,রিফাহ,রনি,নীরব,নীরবের বউ, শান্ত,শান্তর বউ আর আয়শা যাবে।তারা একটা বাসে উঠলো।ইসরাত জানালার পাশে বসলো।রনি ইসরাতের পাশে বসলো।শান্ত আর নীরব একসাথে বসলো।আর রিফাহ আর আয়শা একসাথে আর শান্তর বউয়ের পাশে নীরবের বউ।রাতের বেলা যাওয়া হচ্ছে।কাল সকালে গিয়ে পৌঁছাবে।রনি বলল,"রাত।" "হুমম বলো।". "তোমাকে আজকে অনেক অনেক সুন্দর লাগছে।" "তোমার কাছে আমাকে সবসময়ই সুন্দর লাগে।" "হুমম।" এক ঘন্টা পর রনি বলল,"এই রাত।" "বলো ।" "তোমার ঘুম ধরছে না?" "না।" "আমার কিন্তু ভীষন ঘুম ধরছে রাত।আমি একটু ঘুম দিবো।" এটা বলেই রনি ইসরাতের কাঁধের ওপর মাথা রাখলো।ইসরাত বলল,"এই তুমি কি করছো?" প্লিজ রাত আমার ভীষণ ঘুম ধরছে।" "রনি এসব কি করছো?কেউ দেখলে কি মনে করবে।" রনি মাথা তুলে ইসরাতের দিকে তাকিয়ে বলল,"কেউ দেখলে মনে করবে আমরা স্বামী-স্ত্রী।" তারপর ইসরাতের কাঁধে মাথা রাখলো।ইসরাত আশেপাশে তাকালো।রিফাহর দিকে চোখ গেলো।রিফাহ ইশারায় বলে দিলো খুব সুন্দর দেখাচ্ছে তোদের।রনি ইসরাতের দান হাত ধরে ফেলল।সে এখন পুরোপুরি ঘুমের ভেতর তলিয়ে গেছে।কিছুক্ষন পর ইসরাত চোখ বন্ধ।ভাবতে ভাবতে ইসরাতও ঘুমিয়ে পড়লো।ঘুমের ভেতরই ইসরাত রনির মাথা ওপর মাথা রাখলো আর রনির হাত ধরলো।তাদের এ অবস্থা দেখে নীরব বলল,"দেখ শান্ত দুজনকে কি সুন্দর দেখাচ্ছে।" "রনিকে আসলে ইসরাতের সাথেই মানায়।রনির বিয়ে ইসরাতের সাথে হলেই বেস্ট হবে।" "কিন্তু ইসরাত হ্যা বললেই তো।ইসরাতকে রনির সাথেই ভালো মানায়।আমি একটা ফটো তুলি।কি সুন্দর দেখাচ্ছে তাদের।" নীরব তাদের একটা ফটো তুললো। দুই ঘন্টা পর রনি জেগে গেল।রনি খেয়াল করলো ইসরাত তার মাথার ওপর মাথা রেখেছে।আর তার হাত ধরে ঘুমোচ্ছে।ইসরাতও জেগে গেল।ইসরাত দেখলো সে রনির হাত ধরেছে।ছেড়ে দিলো।নীরব ভাবলো তাদের ওই ফটো রনির কাছে পাঠিয়ে দিতে।রনির কাছে পাঠিয়ে দিলো।রনি ফোন বের করে দেখল তার আর ইসরাতের ফটো।রনি আবার ইসরাতের ফোনে পাঠিয়ে দিলো।ইসরাত ফটোটা দেখে বলল,"এটা কি?" "জানি নাতো এটা কি?" "কে তুলেছে এই ফটো?" "নীরব না হয় শান্ত।" "কেন তুলেছে এমন ফটো ?এইজন্য তাদের আমি দেখে নিবো।" "রাত তোমাকে কিছু করতে হবে না আমি তাদের দেখে নিবো।" একটু পর তারা পৌঁছে গেল।সুন্দর গ্রাম।হাটতে হাটতে তারা বিলের কাছে এলো।ইসরাত বলল,"ওয়াও এত সুন্দর!!শাপলা ফুল আছে কচুরিপান ফুল অনেক সুন্দর লাগছে।" রিফাহ বলল,"চল বিলের ভেতর যাই।" "ইসরাত বলল,"না আমি যাব না।" "চল ইসরাত চল ইসরাত।" রনি রিফাহর কাছে যেয়ে আস্তে আস্তে বলল,"তোরা যা বিলের ভেতর আমি ইসরাতকে নিয়ে যাচ্ছি।" রনি ইসরাতের কাছে যেয়ে বলল,"কেন যাবে না?" "এমনি?" "তোমাকে তো যেতেই হবে।" "বললাম তো যাবো না।" রনি মুচকি হেসে বলল,"যাবে না ।" রনি ইসরাতকে কোলে তুলে নিলো।ইসরাত রনিকে আকড়ে ধরে বলল,"এই কি করছো তুমি?ছেড়ে দাও।রনি যাবো না।" "যেতে তো হবেই।"


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৫৮২ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...