বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

★সেলিব্রেটি★

"মজার গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Ariya Ibnat (০ পয়েন্ট)



X একটা হরর মুভি ডাউনলোড করেছি।। লাইট অফ করে দরজা বন্ধ করে মুভিটা দেখছিলাম।।। ভয়ে উত্তেজনায় চোখ বড় বড় করে ফোনের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। এমন সময় আম্মু এসে কানের কাছে একটা চিল্লানি দিলো, "তুবা রে পেয়েছি ! পেয়েছি !" শকটা কাটিয়ে উঠতে মিনিট দুয়েক সময় লাগলো। তড়িঘড়ি করে লাইটটা অন করে আম্মুর দিকে রাগী রাগী গলায় জিজ্ঞেস করলাম,  "আম্মু কোহিনূর হীরা কোথায় পেয়েছ??? আম্মু চোখ বড় বড় করে বললেন,,, --"কোহিনূর হীরা মানে??আমি কখন বললাম যে আমি কোহিনূর হীরা পেয়েছি।।" --"তুমি যেভাবে চিৎকার করে ছিলে আমি তো ভেবেছি কোহিনুর পেয়েছো।।এখন বলো কি জন্য এভাবে চিল্লাচ্ছিলে??? আম্মু চোখ চকচক করে বলল,  "তোর ভাইয়ের জন্য একটা মেয়ে পেয়েছি। মেয়ে তো একেবারে মডেল !"  আমি হাই তুলতে তুলতে বিছানায় এসে বসলাম। শুধু শুধু আমার এতগুলো মিনিট আম্মু নষ্ট করলো ! আমার কোন রকম আগ্রহ না দেখে আম্মু বলল,  তোর কাছে যেজন্য এসেছি সেটা শোন... একটা চিরকুট আমার হাতে দিয়ে বলল, এই যে মেয়ের ফেসবুক ইন্সটা আরও কি কি যেন একাউন্টের নাম। একটু চেক কর তো ! শুনলাম মেয়ের নাকি অনেক ফলোয়ার ! কি সব টিকটিক না কি যেন করে...আমি আরো ভাবি সে তো আর টিকটিকি না যে টিকটিক করবে ! বিরক্ত মুখে কাগজটা হাতে নিয়ে বললাম,  টিকটিক না আম্মু। টিকটক ওটা। আচ্ছা তুমি যাও এখন। আমি পরে চেক করব। এখন মুভি দেখছি। আমি হতাশ ভঙ্গিতে ঘর থেকে চলে গেল। . অতঃপর আমি মুভি দেখা শেষ করে নতুন ভাবীর ফেসবুক, টিকটক, ইন্সটাগ্রাম চেক করতে লাগলাম। মা ভুল শোনেনি। মেয়ে তো আসলেই সেলিব্রিটি ! মেয়ের দেখি সব জায়গায় হাজার হাজার ফলোয়ার। আবার সবখানেই বায়োতে লেখা "Model at Facebook, actress and dancer at tiktok"  কি অদ্ভুত ! তার কন্ঠে কিছু টিকটক ভিডিও দেখে বড় একটা শক খেলাম। একি ভাবী যে বাংলা ঠিকমতো বলতেই পারে না ! ভাঙা ভাঙা বাংলা বলে তাও আবার নাঁকি সুরে ঢং করে ! দুইদিন পরে যখন আমরা তাকে দেখতে গেলাম, সামনাসামনি অবস্থা আরও ভয়াবহ। মুখে গাদাগাদা মেক আপ, ভ্রু আর্ট করা, চোখে লেন্স, চুল রিবাউন্ডিং। তার ওপর সালাম থেকে শুরু করে সব কথা ঢং করে বলে ! মাকে ব্যাপারটা বলতেই মা একটা ঝামটা দিয়ে বলল, আজকালকার মেয়ে কি না, একটু ওভাবে তো কথা বলবেই! ভাইয়ারও এক দেখাতে মেয়ে পছন্দ হয়ে গেল৷ এখানে আমি আর কি বলি ! . মাস দেড়েক হলো বাসার সবাই কোয়ারেন্টাইনে৷ ভাইয়া ভাবী তিন মাস আগেই বিয়ে করে আলাদা ফ্লাটে থাকে। গত দেড় মাসে ভাইয়ার সাথে আমাদের প্রায়ই ভিডিও কলে কথা হয়। কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপার গত দেড় মাসে একবারও ভাবী আমাদের সামনে আসে নি ! মা তো এই ব্যাপারটা নিয়ে বাসায় হুলস্থুল কান্ড বাধিয়ে ফেলেছে। চিৎকার করে আর বলে, এ কেমন বেয়াদব মেয়েকে ঘরে আনলাম। আমিও ব্যাপারটা ভাইয়াকে বলতে সেও কেন যেন ইগ্নোর করে বা কথা পাল্টিয়ে ফেলে। অতঃপর একদিন ভাইয়া আমাকে কল দিয়ে কাতর স্বরে বলছে, -তোর ভাবী কেমন যেন করছে ! আমি অবাক হয়ে বললাম,  -কি করছে? -কি যে হয়েছে ওর! বারবার বলছে মরে যাব। বেঁচে থেকে কি হবে!  -(কাঁপা কাঁপা কন্ঠে)ভাইয়া তুমি একটু ভাবীর কাছে ফোনটা দাও। আমি দেখছি ব্যাপার কি... ভাবী ফোনটা হাতে নিয়ে কাঁদো কাঁদো স্বরে বলল, --তুবু! ! এই জীবন আমি আর রাখব না ! এত্ত চাপ আমি নিতে পারছি না ! এত্ত চাপ !  আমি শান্তনা দিয়ে বললাম,  -এত চাপ যদি আরেএফএল পাইপ নিতে পারে, তুমি কেন পারবে না ! ভাবী এখন ভালোয় ভালোয় বলো তো কি হয়েছে বলো... -আমাদের শহর লকডাউন হওয়ার কারণে এখানে সব বন্ধ। শহরের সব পার্লারও ! একটা পার্লারও খোলা নেই ! গত দেড় মাস ধরে আমি পার্লারে যাই না। কতদিন হয়ে গেল ভ্রু প্লাগ, হেয়ার স্পা, ফেসিয়াল কিছুই করা হয়না ! এখন নিজেই নিজেকে আয়নায় দেখতে পারিনা। তোমার ভাইয়াও আমার থেকে দূরে দূরে থাকে। কোনমতে হাসি আটকিয়ে ভাবীকে বললাম,  -কেঁদো না...ভাইয়াকে ফোনটা দাও... ভাইয়া ফোন হাতে নিতেই বললাম, ভাইয়া ভিডিও কল দাও এক্ষুনি ! আমার কথামত ভিডিও কল দিতেই চোখে পড়ল, সব এলোমেলো অবস্থায় এক অদ্ভুত চেহারার নারী মেঝেতে বসে আছে ! কোথায় সেই অপ্সরী মডেল ভাবী? ভাবীকে দেখামাত্রই হো হো করে হেসে ফেলেছি ! ভাবীর ভ্রুগুলো বড় হয়ে চারপাশে ছড়িয়ে আছে, চেহারার রঙ পাল্টে গেছে, চোখের নিচে কালি পড়েছে, চুল কেমন যেন ঝাড়ুর মত হয়ে গেছে ! এক কথায় পুরো জংলী অবস্থা ! ভাগ্যিস আমার ক্যামেরা অফ ছিল । তাড়াহুড়ো করে একটা স্ক্রিনশট তুলে আম্মুকে দেখিয়ে বললাম, এই দেখো তোমার মডেল বৌ মা ! মা কিচ্ছুক্ষণ অপলক দৃষ্টিতে ফোনের দিকে তাকিয়ে আছে।।আম্মুর অবস্থা হলো অল্প শোকে কাতর, অধিক শোকে পাথর!! আম্মুর রিয়্যাকশন দেখে আমি আবার হাসতে হাসতে বিছানায় গড়াগড়ি দিতে লাগলাম ।।।।।।।।।।। [বি:দ্র আমার কিন্তু বড় ভাই নেইgjgjgj]


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৬৯৫ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...