গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !
জিজে রাইটারদের জন্য সুঃখবর ! এবারের বই মেলায় আমরা জিজের গল্পের বই বের করতেছি ! আর সেই বইয়ে থাকবে আপনাদের লেখা দেওয়ার সুযোগ! থাকবে লেখক লিস্টে নামও ! খুব তারাতারি আমাদের লেখা নির্বাচন কার্যক্রম শুরু হবে

যারা একটি গল্পে অযাচিত কমেন্ট করছেন তারা অবস্যাই আমাদের দৃষ্টিতে আছেন ... পয়েন্ট বাড়াতে শুধু শুধু কমেন্ট করবেন না ... অনেকে হয়ত ভুলে গিয়েছেন পয়েন্ট এর পাশাপাশি ডিমেরিট পয়েন্ট নামক একটা বিষয় ও রয়েছে ... একটি ডিমেরিট পয়েন্ট হলে তার পয়েন্টের ২৫% নষ্ট হয়ে যাবে এবং তারপর ৫০% ৭৫% কেটে নেওয়া হবে... তাই শুধু শুধু একই কমেন্ট বারবার করবেন না... ধন্যবাদ...

যারা একটি গল্পে অযাচিত কমেন্ট করছেন তারা অবস্যাই আমাদের দৃষ্টিতে আছেন ... পয়েন্ট বাড়াতে শুধু শুধু কমেন্ট করবেন না ... অনেকে হয়ত ভুলে গিয়েছেন পয়েন্ট এর পাশাপাশি ডিমেরিট পয়েন্ট নামক একটা বিষয় ও রয়েছে ... একটি ডিমেরিট পয়েন্ট হলে তার পয়েন্টের ২৫% নষ্ট হয়ে যাবে এবং তারপর ৫০% ৭৫% কেটে নেওয়া হবে... তাই শুধু শুধু একই কমেন্ট বারবার করবেন না... ধন্যবাদ...

মেয়ে part 3

"শিক্ষণীয় গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Roshni hima (০ পয়েন্ট)



--বয়স কত ? সামনে বসে থাকা ভদ্রমহিলাটি পান চিবাতে চিবাতে প্রশ্ন করলো আমায়। বয়স জিজ্ঞেস করছে! আশ্চর্য ! --৩৩ বেশ বিব্রত হয়ে উনার প্রশ্নের উত্তর দেই।আর কথা না বাড়িয়ে ট্রেনের কামরাতে গা এলিয়ে চোখ বন্ধ করে বসে থাকি।ভীষণ ক্লান্তি নিয়ে বাড়ি ফিরছি।জার্নি ব্যাপারটা আমার একদমই সহ্য হয় না। --বিয়ে হয়েছে ? ভদ্রমহিলা আরেকটা পান মুখে পুরে দিয়ে আমার সামনের কামরাতে বসতে বসতেই প্রশ্ন করলো। --জ্বি না। একটু নড়েচড়ে বসে উনার প্রশ্নের উত্তর দিলাম। --ও মা মারে! এত বয়স হয়ে গেছে! আর এখনও বিয়ে করোনি? কয়েকদিন পরে তো চুলে পাক ধরবে।বুড়ি হয়ে যাবা।বিয়ে হবে ? আমি উনার কথার পরিপ্রেক্ষিতে কিছুই বললাম না।চোখ বন্ধ করে এড়িয়ে গেলাম।মূলত এই টাইপের কথাগুলো শুনে অভ্যস্ত হয়ে গেছি।অফিসে,বাড়িতে,প্রতিবেশীদের কাছ থেকে,ইনফ্যাক্ট বন্ধুরাও বলতে ছাড়েনা। --নাকি কারো সাথে অশ্লীল বা অবৈধ সম্পর্ক আছে? ঐ যে প্রেম টেম আরকি!আছে? কি বিশ্রীভাবে একটা মানুষ অন্য একটা মানুষকে এইসব কথা বলতে পারে সেটা এই মহিলার সাথে মুখদর্শন না হলে আমি বুঝতেই পারতাম না। --প্রেমকে আপনি অশ্লীল বা অবৈধ বলছেন! আশ্চর্য! --মেয়ের তো দেখছি গায়ে লেগে গেছে! হেহে, তো বিয়েতো করোনি। বাপের ঘেটির উপর বসে বসে খাচ্ছো নাকি? ভদ্রমহিলা স্বাভাবিকভাবেই কেমন অভদ্রটাইপ কথাগুলো বলে চলেছে! আশ্চর্য ! --আমি সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার।একটা মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানিতে ভালো পোস্টেই জব করছি। ট্রেনের জানালাটা খুলে দিয়ে উত্তর দিলাম।ভ্যাপসা গরমে ক্লান্তিভাবটা ভীষণরকম টের পাচ্ছিলাম।এখন হালকা হাওয়াতে বেশ লাগছে! --ও মা মারে! এবার বুঝছি, বাপ মা কেন বিয়ে দেয় না! মেয়ের কামাই খাওয়ার জন্যই মেয়েকে বিয়ে দিচ্ছেনা।বাপরে! কি লোভী বাবা মা তোমার? --দেখুন,ভদ্রভাবে কথা বলুন।এসব উল্টাপাল্টা কি বলছেন আপনি?আপনি আমার থেকেও বয়সে বড় তাই আমি কিছুই বলছিনা, এর মানে এটা নয় যে আমি চুপ করে সব হজম করে যাবো! --শাবাশ মেয়ে। কখনোই এই ধরণের বাক্যবাণ হজম করবে না।মনে রাখবে যত বেশি হজম করবে মানুষ ততবেশি বলবে।আমাদের সমাজে একদল মানুষ আছে,যারা বলে বেড়ায় মেয়েদের হজম করতে হয়, সেটা মেয়েদের ধর্ম। হ্যাঁ মেয়েরা মায়ের জাত,হজম করতেই পারে মেয়েরা।কিন্তু হজমের নাম করে ওরা মেয়েদের ঘাড়ের উপর নোংরা কথার ঝুড়ি উঠিয়ে দেয়, বুঝলে? মনে রাখবে,ঝুড়ি বেশি ভারি হলে মানুষ কিন্তু সেটা আর বহন করতে পারেনা।হয় ঝুড়িটা ফেলে দেয় আর নতুবা নিজেকে বিসর্জন দেয়।ঝুড়ির থেকে অবশ্যই নিজের মূল্য বেশি।সুতরাং নোংরা কথা পুঁজি করে ঝুড়ির ওজন বাড়িও না। --মানে ? আমি বেশ অবাক হয়ে সামনে বসে থাকা ভদ্রমহিলার কথাগুলো শুনছি! অথচ একটু আগে ইনি আমাকে কি সব বলছিলেন! --আমার বয়স ৪০ ছুঁই ছুঁই। এখনও বিয়ে করিনি।তোমার মতই জব করি।আমি তোমাকে যেসব কথা বলেছিলাম ট্রেনে উঠার আগে বা পর থেকে, সেসব কথা আমাদের সমাজে প্রতিনিয়ত মেয়েরা শুনে আসছে।ইভেন আমাকেও শুনতে হয়েছে।কিন্তু আমি কখনোই এসব কথা বলা নিম্ম মন মানসিকতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের প্রশ্রয় দেই নি।তুমি যদি আমার প্রথম কটু কথাটার প্রতিবাদ করতে তাহলে নিশ্চয় পরের কথাগুলো বলার সাহস আমার হতো না। আর তোমাকেও শুনতে হতো না।বুঝলে? --জ্বি, আমি বুঝেছি। মৃদু হেসে উত্তর দিলাম। পরের ষ্টেশনে ভদ্রমহিলা নেমে গেলেন।যাওয়ার আগে বলে গিয়েছেন, --আগামী জুলাই মাসের ১৪তারিখ আমার বিয়ে।প্রিয় মানুষটির সাথেই ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখছি।আমাদের জন্য দোয়া করবে। আর হ্যাঁ তোমার জীবনের জন্য শুভ কামনা রইলো। উনি নেমে গলেন।আমি আবারও চোখ বন্ধ করে বসে আছি।ট্রেন চলছে আপন গতিতে। মনে হচ্ছে,ভদ্রমহিলার বলে যেওয়া শেষ কথাগুলো প্রতিধ্বনি হয়ে কানে বাজছে! ঝনঝন শব্দ করে,ঠিক যেভাবে ট্রেন পুল অতিক্রম করে যাচ্ছে অজানা গন্তব্যে। #collected


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৩০০ জন


এ জাতীয় গল্প

→ শূন্য থেকে শুরু-৩
→ অদ্ভুত মেয়ে
→ অ্যামাজনে কয়েকদিন [পর্ব ২৩]
→ অনুভবে শুধু তুমি♥ (পর্ব-১৩)
→ সাগরকন্যা কুয়াকাটা ভ্রমণ(পর্ব৩)
→ ২২ বছর বয়সের মধ্যে বিয়ে না হলে মেয়েদের ৭ টি সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়
→ মেয়ের ভালোবাসা।
→ পদ্মগোখরো (last part)
→ পদ্মগোখরো (part 6)
→ পদ্মগোখরো (part 5)

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...