বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

সৌন্দর্যই সমাজের সর্বশেষ অন্তরায়।

"শিক্ষণীয় গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান SHUVO SUTRADHAR (০ পয়েন্ট)



X এক সময় মৃণাল নামের একজন অত্যন্ত ক্ষমতাশালী এবং বলিষ্ঠ দেহী মানুষ, যার চরিএ ছিল অত্যন্ত সন্দেহভাজন। তিনি বন্যা নামের এক অতি সুন্দরী রমণীর প্রেমে আসক্ত হন। বন্যা কেবল সুন্দরীই ছিলেন না,তার চরিএও ছিল অত্যন্ত নিমর্ল। তাই তিনি মৃনালের প্রেম নিবেদন মোটেই পছন্দ করেননি। কিন্তু মৃণাল তার অবস্থার পরিপেক্ষিতে বন্যাকে প্রেম নিবেদন গ্রহণ করতে উতক্ত করতে থাকে। তাই তিনি মৃনালকে অনুরোধ করলেন তার প্রেম নিবেদন এর উওর এর জন্য তাকে সাত দিন অপেক্ষা করতে হবে এবং একটি নিদিষ্ট যায়গায় দেখা করতে বললেন। বন্যার কথাগুলোতে মৃনাল রাজি হয়ে গেল তাও রমনীর প্রেম চাই এবং অনেক আশা নিয়ে সেই নিদিষ্ট সময়ের প্রতিক্ষা শুরু করেন মৃনাল। অন্যদিকে বন্যা তখন পরম সত্যের প্রকৃত সৌন্দর্য প্রকাশ করার জন্য এক শিক্ষণীয় পন্থা অবিলম্বন করলেন। তিনি অত্যন্ত উগ্র রেচক গ্রহন করেন এবং তার ফলে সাত দিন ধরে ক্রমান্বয়ে মল-মূএ ত্যাগ করতে থাকেন এবং বমি করতে থাকেন। সেই মল-মূএ এবং বমি তিনি একটি পাএে জমা করে রাখেন। সেই উগ্র রেচক গ্রহনের ফলে অতি সুন্দরী রমণী বন্যা রুগ্ন ও কংকালসার রুপ ধারন করেন এবং তার গায়ের রং কালো হয়ে যায় ও তার সুন্দর চক্ষুদ্বয় অক্ষিকোটরের গভীরে প্রবিষ্ট হয়ে নিষ্প্রভ হয়ে পড়ে। এভাবে তিনি তার প্রেমীক পুরুষটির জন্য প্রতিক্ষা করতে থাকেন। অন্যদিকে মৃনাল সাত দিন পর সুন্দর পোশাকে সজ্জিত হয়ে সেখানে আসে,সুন্দর ব্যবহার সহকারে সেই কুৎসিত রুগ্ন মহিলাটিকে জিজ্ঞাসা করেন, বন্যা নামের সুন্দরী রমনীকে দেখেছেন কিনা। মৃনাল বুঝতেই পারেনি, যে সুন্দরী প্রতিক্ষা তিনি করছিলেন, তিনি তার সম্মুখে দাড়িয়ে। কিন্তু মৃনালকে বন্যা বার বার তার পরিচয় দেন, কিন্তু তার করুন অবস্থার জন্য মৃনাল তাকে চিনতেই পারেনি। অবশেষে বন্যা সেই প্রতিপওিশালী মৃনালকে বলেন যে, তিনি তার সৌন্দর্যময় উপাদানগুলি আলাদা করে একটি পাএে জমা করে রেখেছেন। তিনি তাকে এও বলেন যে, তিনি ইচ্ছা করলে তার সৌন্দর্যের রস উপভোগ ও করতে পারেন। তখন বিষয়াসক্ত সৌন্দর্য- পিপাসু মৃনাল সেই সৌন্দর্যের রস দেখতে চাইলেন, তখন বন্যা তাকে অত্যন্ত পূতিগন্ধময় মল-মূএ ও বমি পাএটি দেখিয়ে দেন। তখন বন্যা বলেন আমার সৌন্দর্য এই পাএের মধ্যে। তখন তিনি তার ভুল বুঝতে পারলেন। মৃনাল বলেন সৌন্দর্য মানুষের চিরস্থায়ী নয় সৌন্দর্য আপেক্ষিক বিষয়। তাই আমাদের সৌন্দর্যকে নয় আমাদের আচরন,ন্যায় ও মনুষ্যত্বকে ভালোবাসা উচিত। সৌন্দর্যের বহিঃপ্রকাশ থেকে বেড়িয়ে আসতে পাড়লেই আমাদের মনুষ্যত্ব জাগ্রত হবে। এবং সবশেষে মৃনাল বলেন সৌন্দর্যই সমাজের সর্বশেষ অন্তরায়।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৩৬৯ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...