বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

অর্ধাঙ্গিনী- পর্ব ৩

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান তাবাসসুম ধ্রুবা (০ পয়েন্ট)



X সকালে ঘুম ভাঙল দরজার ধাক্কায়। ঘুম চোখে দরজা খুলতে গেলাম। দরজা খুলতেই বড়সরো একটা ধাক্কা খেলাম। একটা মেয়ে দাড়িয়া আছে। নাহ, মেয়ে না। পরী। গোলাপী শাড়ি, খোলা চুল আর হাল্কা সাজে অপূর্ব লাগছে। অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। তুড়ি মারার শব্দে হুশ হলো। --- এইযে মিস্টার,,কি দেখছেন এভাবে? --- কিছুনা। --- হুম, ভেতরে আসতে বলবেন না। --- ভাবছি ভেতরে আপনার অস্বস্তি লাগলে কি করব। --- ওহ আপনার কিছু করা লাগবে না, ভেতরে নিয়ে যান আমাকে। ইরা ঘুরের ভেতর ঢুকলো। চারদিকের অবস্থা একদম যতটা খারাপ বলা যায়। ঘরে একটা জানালা আছে যা, কিন্তু ওটা ১ বছর ধরে খোলা হয় না। জানালায় মরচা পড়ে গেছে। ইরা রুমে ঢুকেই নাক চেপে ধরলো। --- ইশ, কিসের মধ্যে থাকেন আপনি!! --- আগেই বলেছি আপনার অস্বস্তি লাগতে পারে। --- ঘরটা গোছাতে হবে। একটা কাজ করুন, আপনি পাশের দোকান থেকে চা খেয়ে আসুন, এর মধ্যে আমি ঘরটা গুছিয়ে দিচ্ছি। --- আমার ঘর আপনি গুছাবেন কেনো? --- আপনি বুঝবেন না। বাইরে যান, ঠিক একঘন্টা পর আসবেন। চা খাওয়ার টাকা না থাকলে আমি দিয়ে দিচ্ছি। নেন,এই ২০ টাকায় হবে না? --- হুম। --- ওকে যান। ১ ঘন্টা পর মুখ দেখাবেন। আমি রাস্তায় নেমে পড়ি। রাস্তাজুরে ব্যস্ত মানুষের চলাচল। তার মধ্যে আমি এক গন্তব্যহীন মানুষ। রোদের মধ্যে হাটলাম কিছুক্ষণ। দেড় ঘন্টা পর বাসায় গেলাম। যদিও ইরা ১ ঘন্টা পর যেতে বলেছিল। গিয়ে তো আমি অবাক। কি করেছে মেয়েটা আমার ঘরের। মনেই হচ্ছে না ওটা আগে ধ্রুব নামের একটা চরম অগোছালো ছেলের ছিল। রুমে মিষ্টি গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। সম্ভবত রুম স্প্রে করেছে। ১ বছর ধরে বন্ধ জানালাটাও খুলে দিয়েছে। --- কি কেমন লাগছে এখন? --- ভালো। --- আপনাকে না বলেছলাম ১ ঘন্টা পড় আসতে? আপনি দেড় ঘন্টা পর আসলেন কেন? --- বাইরে ভালো লাগছিলো। তাই আধা ঘন্টা বেশী হেটেছি। --- ওহ! ভালো কথা,চা খেয়েছন? আমি ২০ টাকার নোটটা ওর হাতে দিয়ে বললাম, --- না খাইনি! --- তা ভালো করেছেন। আমি চা নিয়ে আসি আপনি একটু বসেন। --- বাসায় চা পাতা, দুধ, চিনি কিচ্ছু নেই। --- আমার কাছে আছে। জানতাম আপনার কাছে থাকবেনা। তাই আসার সময় কিনে এনেছি। --- ওহ। ইরা মুচকি হেসে রান্নাঘরে চলে গেল। ওর মতলবটা যে একটু হলেও বুঝতে পারছি না তা নয়। আজ এতো কিছু করছে, কাল হয়তো বলবে, 'আমি আপনাকে ভালোবাসি'। আচ্ছা, তখন কি আমি ওকে ফিরিয়ে দিব? নাকি মেনে নেব ভাগ্যের পরিণতি? ওকে না ফিরিয়ে দিয়ে তো উপায় নেই। দেখি আমি আর আমার ভাগ্য একই কথা বলে কিনা!!! (to be continue.....)


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১২৯০ জন


এ জাতীয় গল্প

→ অর্ধাঙ্গিনী- ৪
→ অর্ধাঙ্গিনী- পর্ব ২

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...