গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !
জিজে রাইটারদের জন্য সুঃখবর ! এবারের বই মেলায় আমরা জিজের গল্পের বই বের করতেছি ! আর সেই বইয়ে থাকবে আপনাদের লেখা দেওয়ার সুযোগ! থাকবে লেখক লিস্টে নামও ! খুব তারাতারি আমাদের লেখা নির্বাচন কার্যক্রম শুরু হবে

গল্পেরঝুড়িতে লেখকদের জন্য ওয়েলকাম !! যারা সত্যকারের লেখক তারা আপনাদের নিজেদের নিজস্ব গল্প সাবমিট করুন... জিজেতে যারা নিজেদের লেখা গল্প সাবমিট করবেন তাদের গল্পেরঝুড়ির রাইটার পদবী দেওয়া হবে... এজন্য সম্পুর্ন নিজের লেখা অন্তত পাচটি গল্প সাবমিট করতে হবে... এবং গল্পে পর্যাপ্ত কন্টেন্ট থাকতে হবে ...

গল্পেরঝুড়িতে লেখকদের জন্য ওয়েলকাম !! যারা সত্যকারের লেখক তারা আপনাদের নিজেদের নিজস্ব গল্প সাবমিট করুন... জিজেতে যারা নিজেদের লেখা গল্প সাবমিট করবেন তাদের গল্পেরঝুড়ির রাইটার পদবী দেওয়া হবে... এজন্য সম্পুর্ন নিজের লেখা অন্তত পাচটি গল্প সাবমিট করতে হবে... এবং গল্পে পর্যাপ্ত কন্টেন্ট থাকতে হবে ...

বলতে পারবো না (1 পর্ব)

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান মুন্না (০ পয়েন্ট)



কাল আমার অর্ধ বার্ষিক পরিক্ষা। দুইটা পরিক্ষা হইছে। কালকে বাংলা পরিক্ষা। বাংলা তো আবার অন্য বই এর থেকে বেশি পরতে হয়। তাও আমি খুব বেশি রিভিউ করলাম না। পরদিন সকালে উঠে একটু বই দেখে পরিক্ষার উদ্দেশে রওনা হলাম। হাতে প্রশ্ন পেয়ে দেখলাম প্রায় সবই কমন পরছে। তো আমি লেখা শুরু করলাম। আমি পরিক্ষার হলে এদিক ওদিক কম তাকাই। কিন্তু হঠাৎই আমি ডান দিকে তাকিয়ে একদম পাথর হয়ে গেলাম। বুকের ভিতর ঘন্টা বাজতে লাগলো। এটা মেয়ে না পড়ি। এত সুন্দর মেয়ে এতদিন কোথায় ছিলো। অনেক কষ্টে খাতার দিকে মন দিলাম। কিন্তু আমি একটা অক্ষরও লিখতে পারলাম না। শুধু ওই মেয়েটার দিকে তাকিয়ে থাকতে ইচ্ছা করছে। সেদিনের পরিক্ষা তেমন ভালো হলো না। এমনকি তার পরের একটা পরিক্ষাতেও সম্পুর্ন উত্তর দিতে পারি নাই। পরিক্ষা শেষে ভাবলাম মেয়েটিকে কেন যে দেখলাম। তার নাম কি, বাড়ি কোথায়, সে কি আমাকে পছন্দ করবে। পরিক্ষার ছুটি শেষে আবার ক্লাস শুরু হলো। এতদিনে মেয়েটিকে প্রায় ভুলে গেছিলাম। কিন্তু তাকে আবার দেখলাম। আবার যেন আমার বুকের মধ্যে বজ্রপাত শুরু হলো। মেয়েটিকে দেখলেই আমার মধ্যে কেমন যেন ফিলিংস কাজ করে। একদিন আমার এক বন্ধুর কাছ থেকে জানলাম সেই মেয়েটার নাম জারিফা। সেই থেকে তার নাম দিলাম জিরাফ। একদিন স্কুল ছুটির পর জারিফার পিছু নিয়ে তার বাড়ি দেখলাম। আমি প্রায় দিনেই তার পিছু নেই। আমার এক বন্ধু ছিলো। সে আমার প্রতিবেশীও হয়। একদিন জানতে পারলাম জারিফা নাকি তার চাচাতো বোন। শুনেই মাথা ঘুরে গেলো। ওকে বললাম আমার ভালোবাসার কথা। শুনেই আমাকে টানতে টানতে জারিফার সামনে নিয়ে গিয়ে বললো, সিজানা এই ছেলেটাকে ভালো লাগে। ও কিছু বললো না। জারিফা যাওয়ার পরে আমি জানতে চাইলাম যে ও জারিফাকে সিজানা বললো কেন। আমার বন্ধু বললো জারিফার আসল নাম সিজানা।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৬২৪ জন


এ জাতীয় গল্প

→ ♥প্রেম যমুনায়- মাঝি ও আমি♥পর্ব-১২♥
→ প্রেমের গল্প লাভ ইন দ্য টাইম অব করোনা
→ মোনাজাতের শক্তি!
→ ❄️সচ্চরিত্র নারীর গুণাবলী❄️
→ কবিতা শোনাবে আজ রাতে।
→ হযরত মুসা (আঃ) এর জামানার একটি চমৎকার ঘটনা।
→ সমালোচকদের বর্ণনায় ইসলামিক সভ্যতার রূপ দিয়েছিলেন যারা
→ করোনা আক্রান্ত বউ
→ জান্নাতে ভালো থাকুন, জুনায়েদ জামসেদ
→ ♥প্রেম যমুনায়- মাঝি ও আমি♥পর্ব-১১♥

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...