বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

রাজকন্যা মণিমালা(পর্ব০৮)

"রূপকথা " বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান মোয়ানা(guest) (২২৮৮ পয়েন্ট)



X পরদিন সে ফুল তোলার অজুহাতে উত্তরের জঙ্গলে গেলো।অনেক গভীরে প্রবেশ করার পর সে একটা কুয়ো দেখতে পেল।সে কুয়োটার কাছে যেতেই সেখান থেকে এক বিরাট দৈত্য বের হলো।মণিমালা আত্মরক্ষার জন্য তাকে আঘাত করল।শুরু হলো তুমুল যুদ্ধ।মণিমালা যেহেতু অস্ত্রবিদ্যায় পারদর্শী তাই সে দৈত্যকে হারাতে সক্ষম হলো।সে এক কোপে দৈত্যের মাথা আলাদা করে দিলো।সাথে সাথে তার সমস্ত রক্ত একত্র হয়ে জমাট বেধে গেলো।সেটা একটা মুদ্রার আকার ধারন করল।মণিমালা দেখলো মুদ্রাটিতে কীসের যেনো একটা নকশা।সেদিনের মতো সে ফিরে আসল।পরী মায়া করে তাকে এক ঝুড়ি বাহারী ফুল দিলো।সেই ফুল দিয়ে সে কুড়মুড়ির ঘর সুন্দর করে সাজালো।এতো সুন্দর ফুল দেখে কুড়মুড়ি তো মহাখুশি।সে খুশি হয়ে মণিমালাকে একটা গলার হার উপহার দিলো।পরদিন সে কুড়মুড়িকে বললো মায়াবনে আরো অনেক বাহারী ফুল আছে।কুড়মুড়ির অনুমতি পেতেই সে বেরিয়ে পড়লো।সে মুদ্রার নকশা অনুযায়ী পথ চলতে শুরু করল।এদিকে আবার কুড়মুড়ি মা কুৎসুটি মণিমালাকে মোটেও পছন্দ করে না।মণিমালা না থাকায় সে মণিমালার নামে তার কান ভারি করতে লাগল.....


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৭৩৪ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...