বাংলা গল্প পড়ার অন্যতম ওয়েবসাইট - গল্প পড়ুন এবং গল্প বলুন

বিশেষ নোটিশঃ সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান - আপনারা যে গল্প সাবমিট করবেন সেই গল্পের প্রথম লাইনে অবশ্যাই গল্পের আসল লেখকের নাম লেখা থাকতে হবে যেমন ~ লেখকের নামঃ আরিফ আজাদ , প্রথম লাইনে রাইটারের নাম না থাকলে গল্প পাবলিশ করা হবেনা

আপনাদের মতামত জানাতে আমাদের সাপোর্টে মেসেজ দিতে পারেন অথবা ফেসবুক পেজে মেসেজ দিতে পারেন , ধন্যবাদ

একটী হৃদয়বিদারক গল্প

"সত্য ঘটনা" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান MD.Belal Hosan (১৪ পয়েন্ট)



X এক বৃদ্ধ মা তার ছেলে,ছেলেরবউ ও ছয় বছরের এক নাতীর সাথেবাস করতো । বৃদ্ধ মা খুবদুর্বল ছিল । সে ঠিকভাবে হাটতে পারতো না,চোখ দেখতো ,বৃদ্ধ হওয়ার কারনে তার হাত কাঁপতো ,কিছু ধরতে পারতো না। যখন বৃদ্ধ মা ,ছেলে ও ছেলের বউয়ের সাথে রাতে একসাথে খেতে বসতো তখ প্রায় প্রতিদিন ই কোন না কোন ঘটনাঘটাতো ।কোনদিন হয়তো হাত কাপার ফলে দুধের গ্লাস ফেলেদিয়ে টেবিল নষ্ট করতো,আবার কোনদিন ফ্লোরে তরকারীফেলে দিত । প্রতিদিন খাওয়ার সময় এরকম ঝামেলা হওয়ায় ছেলে তার মায়ের জন্য আলাদা একটিটেবিল বানিয়ে দিল । টেবিলটি ঘরের কোনায় সেট করে দিল । বৃদ্ধ মা সেখানে একা বসে খেতআর একা একা চোখের পানি ফেলতো । ছোট্ট নীতিটি এসব নিরবে দেখছিল । একদিন বৃদ্ধ মা কাঁচের প্লেট ভেঙে ফেললো ।বৃদ্ধের ছেলেটি এজন্য তাকে কাঠের প্লেট কিনে দিল । একদিন সন্ধ্যায় বৃদ্ধের ছেলেটি দেখলো তার শিশু বাচ্চা কাঠের টুকরা দিয়ে কি যেন বানাতে চাচ্ছে । বাবাতার ছেলের কাছে গিয়ে বললো,বাবা তুমি কি কর তখন শিশুটি বললো ,আমি টেবিলও একটি কাঠের প্লেট বানাচ্ছি ।যখন আম্মু বুড়ো হবে তখন কিসে খাবে ! তাই আগেথেকে বানিয়ে রাখছি ছেলের এরকম কথায় বাবা তার ভূল বুঝতে পারলো ।সেদিন থেকে তার স্ত্রীকে বললো,প্রতিদিন আমরা দুজন মাকে খাইয়ে তারপর আমরা খাব। কিন্তু হায় ,যখন সন্ধ্যার পরতারা দুজন মাকে খাওয়ানোর জন্য গেল তখন দেখলো ,তার গর্ভেধারিনী মা মারা গেছে । মা কে কষ্ট দিওনা মা কে কষ্ট দিলে আল্লাহর আরষ কেঁপে ওঠে । মাকে ভালবেসে থাকলে অবশ্যই গল্পটি লাইক শেয়ার করে সবাইকে জানার সুযোগ করে দিবেন।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১৩৪৬ জন


এ জাতীয় গল্প

→ একটী হৃদয়বিদারক গল্প
→ একটী হৃদয়বিদারক গল্প
→ একটী হৃদয়বিদারক গল্প
→ একটী হৃদয়বিদারক গল্প
→ একটী হৃদয়বিদারক গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...