গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !
জিজে রাইটারদের জন্য সুঃখবর ! এবারের বই মেলায় আমরা জিজের গল্পের বই বের করতেছি ! আর সেই বইয়ে থাকবে আপনাদের লেখা দেওয়ার সুযোগ! থাকবে লেখক লিস্টে নামও ! খুব তারাতারি আমাদের লেখা নির্বাচন কার্যক্রম শুরু হবে

সুপ্রিয় পাঠকগন আপনাদের অনেকে বিভিন্ন কিছু জানতে চেয়ে ম্যাসেজ দিয়েছেন কিন্তু আমরা আপনাদের ম্যাসেজের রিপ্লাই দিতে পারিনাই তার কারন আপনারা নিবন্ধন না করে ম্যাসেজ দিয়েছেন ... তাই আপনাদের কাছে অনুরোধ কিছু বলার থাকলে প্রথমে নিবন্ধন করুন তারপর লগইন করে ম্যাসেজ দিন যাতে রিপ্লাই দেওয়া সম্ভব হয় ...

সুপ্রিয় পাঠকগন আপনাদের অনেকে বিভিন্ন কিছু জানতে চেয়ে ম্যাসেজ দিয়েছেন কিন্তু আমরা আপনাদের ম্যাসেজের রিপ্লাই দিতে পারিনাই তার কারন আপনারা নিবন্ধন না করে ম্যাসেজ দিয়েছেন ... তাই আপনাদের কাছে অনুরোধ কিছু বলার থাকলে প্রথমে নিবন্ধন করুন তারপর লগইন করে ম্যাসেজ দিন যাতে রিপ্লাই দেওয়া সম্ভব হয় ...

আসুন !! ভালোবাসার একটা গল্প পড়ি

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান R.H (dangeor-virus) (১১ পয়েন্ট)



# ১ ২০০২-০৩ সালের কথা । তখন ক্লাস সিক্স কি সেভেন পড়তাম । আমার খালাতো ভাই ( উনাকে আমরা শুভ দাদা নামেই ডাকতাম ) তখন কলেজে পড়তেন । আমাদের বাসা থেকে খালার বাসা খুব কাছাকাছি ছিলো । তাই তিনি প্রায়ই আমাদের বাসায় আসতেন । বয়সে তিনি আমাদের চেয়ে অনেক বড় হলেও আমাদের ভাই বোনের সাথে উনার খুবই ক্লোজ সম্পর্ক ছিলো । তো উনি নিজেই আমাদের একদিন জানালেন যে , উনি নাকি উনার কলেজের এর ক্লাস মেট এর সাথে প্রেম করছেন । প্রথম প্রথম আমরা বিশ্বাস করি নি । তখন কার সময়ে প্রেমিক প্রেমিকাদের মাঝে চিঠির আদান প্রদান হত । তিনি প্রায়ই চিঠির শেষ অংশে তার প্রেমিকার নাম দেখাতেন । এভাবে বেশ কিছু দিন চললো । একদিন শুনলাম শুভ দাদা একসাথে অনেক গুলো ঘুমের ওষুধ খেয়েছেন । খালা-খালু দাদা কে হাসপাতালে নিয়ে গেলেন ।পরে যা শুনলাম তার সারমর্ম হল এই যে , উনার প্রেমিকার বিয়ে হয়ে যাচ্ছে । সে শোক কাটাতেই তিনি ঘুমের ঔষুধ খেয়েছিলেন । বিয়ে হওয়াটা হয়ত সমস্যা ছিলো না । আসল সমস্যাটা ছিলো , আমার দাদা ছিলেন হিন্দু আর উনার প্রেমিকা ছিলো মুসলিম । স্বাভাবিক ভাবেই এই অসম প্রেম আমার খালা-খালু মেনে নেন নি । কিছু দিন পরে উনার প্রেমিকার বিয়ে হয়ে গেলো । শুভ দাদা সে শোক কাটানোর জন্য ড্রাগ এর নেশা ধরলেন । খালা খালু দাদাকে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করিয়ে দিলেন । কিছুদিন পরে সেখান থেকে সুস্থ হয়ে ফিরলেন । এরপর দাদার সাথে উনার প্রাক্তন প্রেমিকার যোগাযোগও হয়েছিলো , কিন্তু ততদিনে অনেক দেরি হয়ে গেছে । # ২ তখন সবে মাত্র এস এস সি পরিক্ষা দিয়েছি । পরীক্ষার পরের তিন মাস পুরোই ফ্রি । তাই এলাকার এক কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ভর্তি হলাম । তো সেখানকার ইন্সট্রাক্টটর ছিলেন তপু ভাই । তিনি আমাদের বাসার সামনে একটা মেসে থাকতেন । তিনি তার পরিবার ছেড়ে কেন মেসে থাকতেন সে প্রস্নের উত্তর কিছু দিন পরে জানতে পারলাম । তপু ভাই আগে হিন্দু ছিলেন । উনার এলাকার এক মুসলিম মেয়ের সাথে উনার প্রেম হয় । সে মেয়ে শর্ত দিলো , তিনি যদি মুসলিম হতে পারেন তাহলেই তপু ভাই কে তিনি বিয়ে করবেন । একদিকে ছিলো বাপ-দাদাদের ধর্ম অন্যদিকে ভালোবাসা । তপু ভাই দ্বিতীয় পথটাকেই বেছে নিলেন । প্রেমিকার কথামত তপু ভাই মুসলিম হলেন । কিন্তু ধর্মান্তরিত হওয়াটা তপুভাইয়ের পরিবার মেনে নিলো না । উনাকে বাসা থেকে বের করে দেয়া হলো । এই ছিলো তপু ভাইয়ের মেসে থাকার কাহিনী । যার জন্য তিনি নিজের ধর্ম ছাড়লেন , নিজের পরিবার থেকে দূরে চলে আসলেন , সেই মেয়েটির পরে অন্য কোথাও বিয়ে হয়ে যায় । পুরো কাহিনি শুনে উনার জন্য অনেক খারাপ লেগেছিলো । হয়ত কিছু মানুষের ভাগ্যটাই খারাপ থাকে , হয়ত ভালোবাসার অঙ্ক কেউ কেউ মিলাতে পারে না । # ৩ এই গল্পটা আমার কলেজ জীবনের দুই ক্লাসমেট অরুপ আর শ্যামার । আমি , মান্না , অরুপ , শাহিন আমরা এই চার জন ছিলাম কলেজের খুব ঘনিষ্ঠ বন্ধু । তো অরুপের সাথে শ্যামার প্রথম দেখা হয় আহমেদ স্যারের কাছে প্রাইভেট পড়তে গিয়ে। তখনো আমাদের এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট দেয় নি । আহমেদ স্যার ছাড়াও লিটন স্যার এর কাছেও তারা দুই জন একই ব্যাচ এ পড়তো । সেখান থেকে শ্যামার প্রতি অরূপের ভাললাগা শুরু । অবশ্য এ ক্ষেত্রে অরুপের দোষ দেয়া যাবে না । শ্যামা দেখতেও সেই লেভেলের রূপ সৌন্দর্য ছিলো । গায়ের রঙ যেমন ছিলো ফর্সা তেমনি ছিলো লম্বা আর দেখতেও ছিলো সুন্দরি । ক্লাসের অধিকাংশ ছেলেই শ্যামার প্রতি ক্রাশড ছিলো । যাই হোক , এসএসসির রেজাল্টের পর আমরা কলেজে ভর্তি হলাম । শ্যামা কিন্তু তখন ও জানত না যে , অরুপ শ্যামা কে পছন্দ করে । ক্লাস শুরু হওয়ার পরে মেয়েরা যে দিকে বসত অরুপ ঠিক সে দিকের বেঞ্ছের একেবারে শেষ প্রান্তে বসত । যাতে ঘাড় ঘুরালেই যেন সে শ্যামা কে দেখতে পায় । আর কলেজ ছুটি হলেই শ্যামার পিছু নিত । প্রেম ভালবাসার ক্ষেত্রে মেয়েদের সিক্সথ সেন্স খুবই প্রবল হয় । অরুপ মুখ ফুটে তার ভালো লাগার কথা না বললেও শ্যামা ঠিক বুঝে গেলো । এভাবেই দেখতে দেখতে দুই বছর চলে গেলো । অরুপ শ্যামাকে মনের কথা বলতে পারলো না । আমরা এইচএসসি পরিক্ষা দিলাম । পরীক্ষার রেজাল্ট দিলো । আমাদের ফ্রেন্ড সার্কেল এর সবাই পাস করলাম । কিন্তু অরুপ ফেল করলো । অরুপ যে শ্যামা কে পছন্দ করে , সেটা ইতিমধ্যে ক্লাসের সবাই জেনে গেছে । অরুপ পরের বার পরিক্ষা দিলো । আবারও ফেল করলো । শ্যামা তত দিনে চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এর ফরেস্ট্রী তে ভর্তি হয়ে গেছে । যাই হোক , ঘনিষ্ঠ বন্ধু হওয়ায় কলেজ ছাড়ার পর অরুপের সাথে দেখা হয়েছে অনেক বার । তাকে প্রায়ই শ্যামার কথা ঘুরে ফিরে জিজ্ঞাস করতাম । আমি বলতাম , "তুই অকে কেন প্রপোজ করলিনা । হয়ত বা সে রাজিও হত ।" সে বলল , "আমি কলেজে থাকার সময়ই তাকে প্রপোজ করেছিলাম । (যদিও তখন পর্যন্ত আমি জানতাম যে , অরুপ শ্যামা কে সেই রকম কিছু কখনো বলে নাই ) সে দিন অনেক বৃষ্টি হচ্ছিলো । মান্না , শাহিন ( আমার কলেজের অন্য দুই বন্ধু ) সেদিন অরুপকে অনেক জোড়াজুড়ি করলো যে , যে প্রপোজ করলে আজকেই করতে হবে । অরুপ শ্যামার বাসার সামনে দাড়ালো । যখন শ্যামা তার বাসায় ঢুকছিল , তখন অরুপ শ্যামার নাম ধরে ডাক দিলো । অরুপের ডাক শুনে শ্যামার তার সামনে আসলো । সে অরুপকে বলল ,"কি ব্যাপার !! তুমি বৃষ্টিতে ভিজছো কেন ?" তারপর অরুপ শ্যামাকে প্রপোজ করলো । মেয়েটা অরুপকে কিছু না বলেই সেদিন চলে গেলো । ব্যস , এত টুকুই ছিলো কাহিনি । আজও অরুপ সারা বছর ধরে একটা দিনের জন্য অপেক্ষা করে । কারন বছরের অই একটা দিনেই শ্যামা পুজা দেখতে মন্দিরে আসে এবং সেই দিনেই শ্যামাকে সে কাছ থেকে দেখতে পায় । # ৪ এটা আমার দেখা জীবনের সব চেয়ে অদ্ভুত প্রেমের কাহিনি । এ গল্পটা আমার আরেক ঘনিষ্ঠ বন্ধু ইমনের । মেয়েরা যে ছলনাময়ী হয় , সেটা ইমনের কাহিনিটা না জানলে হয়ত জানতামই না । অরুপ , মান্না , শাহিন এর মত সেও আমার কলেজেরই বন্ধু । তো প্রথম এইচএসসি পাসের প্রথম বছর সে অনেক গুলো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরিক্ষা দেয় ।কিন্তু প্রথম বার কোথাও সুযোগ পেলো না । পরের বছর আবার ট্রাই করলো । তো পলির সাথে তার প্রথম দেখা হয় খুব সম্ভত যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষা দিতে গিয়ে । প্রথমবার দেখায় তাদের মধ্যে অল্প সল্প কথা , পরে মোবাইল নাম্বার বিনিময় । এভাবেই তাদের সম্পর্কের সুচনা হলো । এরপর কয়েকটা দিন কাটল । ইমন ততদিনে কোথাও সুযোগ না পেয়ে ঢাকার এক কলেজে ভর্তি হলো আর পলি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলো । দুই জনের মধ্যে নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছিলো আর দুই জনেই ঢাকায় থাকায় মাঝে মাঝে দেখাও হচ্ছিলো । অবশ্য শুরুতে তারা দুই জনের মধ্যে শুধু বন্ধুত্তের সম্পর্কই ছিলো । তাছাড়া , ইমনের সাথে দেখা হওয়ার আগে থেকেই পলির সাথে অন্য একটা ছেলের রিলেশন ছিলো । যেহেতু প্রথম প্রথম তাদের মাঝে বন্ধুত্তের সম্পর্ক ছিলো , তাই ইমন পলির রিলেশন এর ব্যাপারে আগেই থেকেই জানত । তো কিছুদিন পর , পলির সাথে তার বয়ফ্রেন্ডের সম্পর্কে ফাটল ধরে । পলির বন্ধু হিসেবে ইমন অনেক চেস্টা করে সে রিলেশন টিকিয়ে রাখতে ।কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাদের মধ্যে ব্রেক-আপই হয় । ব্রেক-আপের পরে প্রেমিক-প্রেমিকাদের মানসিক অবস্থা খুব একটা ভালো থাকে না । ততদিনে ইমন পলির অনেক কাছের একজন বন্ধু । সে পলিকে সে সময়টায় অনেক মেন্টাল সাপোর্ট দিলো । এভাবে ধীরে ধীরে তাদের ঘনিষ্ঠতা বাড়লো । তো একদিন পলি ইমন কে বলল , আমরা যেহেতু একে অপরকে এত দিন চিনি আর আমাদের মধ্যে বোঝাপড়া অনেক ভালো । তাই আমরা দুই জন রিলেশনে যেতেই পারি । সাধারণত দেখা যায় ছেলেরাই মেয়েদেরকে প্রপোজ করে । কিন্তু যখন কোন মেয়ে কোন ছেলেকে প্রপোজ করে , তখন অই ছেলেটার পক্ষে সেই মেয়েকে ফিরিয়ে দেয়াটা অনেক কঠিন হয় । তাছাড়া এক নাগাড়ে কোনো মেয়ের সাথে অনেক দিন ধরে যোগাযোগ থাকলে , সেই মেয়ের প্রতি দুর্বল হওয়াটাই স্বাভাবিক । আমার বন্ধু ইমনের ক্ষেত্রে তাই ঘটলো । তাঁরা দুই জন একে অপরের প্রেমে পড়লো । ইমনের কিছু দিন খুব ভালোই কাটল । তারা চুটিয়ে প্রেম করা শুরু করলো । রাত জেগে কথা বলা , জন্মদিনে একে অপরকে গিফট দেয়া , ডেটিং এ যাওয়া । আজকালকার প্রেম বলতে যা বোঝায় ,ঠিক সে রকমেরই প্রেম । তো পলির অন্য এক বন্ধু এবার পলিকে কান পড়া দিতে লাগলো । ছেলেটা পড়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে , আর তুই পড়িস পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে । তোর ফ্যামিলি স্ট্যাটাস এর সাথে এই ছেলের স্ট্যাটাস মিলে না । এই রকম আর অনেক কিছু বলে পলির কান ভারি করতে লাগলো । এভাবেই তাদের ভালবাসায় ফাটল ধরা শুরু হলো । বেচারা ইমন রিলেশন ধরে রাখার অনেক চেস্টা করলো , কিন্তু কোন লাভ হলো না ।কিছু দিন পরে তাদের মধ্যে ব্রেক আপ হলো । আগেই বলেছিলাম ব্রেক আপ পরবর্তী সময়ে প্রেমিক প্রেমিকাদের জন্য খুবই কঠিন একটা সময় । প্রাক্তন প্রেমিকার কথা ভুলার জন্য প্রেমিক মদ গাঁজার নেশা ধরে । আমার বন্ধু ইমনের ঠিক সেরকমই কিছু হয়েছিলো । যাই হোক , ইমন কিছুদিন পর সে অবস্থা থেকে কামব্যাক করে । পরে ইমন চেয়েছিলো পলির উপরে প্রতিশোধ নেয়ার , কিন্তু আমি মানা করলাম । তাকে বললাম ," সে যাওয়ার সে চলে গেছে , তার কথা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দেয় । তাহলে তার কথা এমনি ভুলে যাবি ।" তবে মজার ব্যাপার হচ্ছে ইমনের সাথে ব্রেক আপ হওয়ার পর সেই প্রাক্তন প্রেমিকা পলি আবার আরেক জনের প্রেমে পড়েছিলো । ( খুব সম্ভবত তিন নাম্বার প্রেম ) ।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১৪৪ জন


এ জাতীয় গল্প

→ প্রেমের গল্প লাভ ইন দ্য টাইম অব করোনা
→ {রম্য গল্প}মনারে মনা এবং আমার ঘাসের বাণিজ্য
→ বৃষ্টির অসম্পূর্ণ গল্প
→ ❄️একজন মনীষীর গল্পঃ ফখরে বাঙ্গাল তাজুল ইসলাম❄️
→ তেলাপোকার গোঁফ [নির্বাচিত কিশোর গল্প]
→ লম্বু ভূত [নির্বাচিত কিশোর গল্প]
→ জিজে আসার গল্প
→ আফ্রিকার গল্প (সৈকত রুদ্র)
→ ইমাম গাজ্জালী এর গল্প
→ ইসলামী ঐতিহাসিক গল্প: জেরুজালেমের পথে

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...