গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

গল্পেরঝুড়িতে লেখকদের জন্য ওয়েলকাম !! যারা সত্যকারের লেখক তারা আপনাদের নিজেদের নিজস্ব গল্প সাবমিট করুন... জিজেতে যারা নিজেদের লেখা গল্প সাবমিট করবেন তাদের গল্পেরঝুড়ির রাইটার পদবী দেওয়া হবে... এজন্য সম্পুর্ন নিজের লেখা অন্তত পাচটি গল্প সাবমিট করতে হবে... এবং গল্পে পর্যাপ্ত কন্টেন্ট থাকতে হবে ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

প্রেমময় প্রদীপ

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Mujakkir Islam (০ পয়েন্ট)



#প্রেমময়_প্রদীপ #পর্ব_১ . . দেশের প্রায় সব টিভি চ্যানেল গুলোতেই এখন ঘুরেফিরে একটিই সংবাদ । কয়েকদিন ধরে বিভৎস লাশ পাওয়া যাচ্ছে ছিন্ন বিচ্ছিন্ন অবস্থায় । কারো মস্তক বিহীন দেহ পাওয়া যাচ্ছে, কারো মস্তক থাকলেও চোখ দুটো নেই, কারো বা হাত পা কাটা! আজও একটি তরুণীর লাশ পাওয়া গিয়েছে । এই কয়েকদিনে প্রায় পাঁচটার বেশি লাশ পাওয়া গেলেও, পুলিশ এর কোনো সুরাহা করতে পারছেনা । . টিভির সামনে বসে রাত দশটার সংবাদ দেখছেন ফারুক রশিদ । নরসিংদী জেলার চিনিশপুরের বাসিন্দা তিনি । স্ত্রী সামিনা ও মেয়ে সাফাকে নিয়ে সাজানো তার ছোট্ট সংসার । . গভীর মনোযোগে টিভির দিকে তাকিয়ে আছেন তিনি । তার স্ত্রী সামিনা রশিদ এসে বললেন- চারদিকের এই অবস্থার মাঝেও তোমার মেয়ে কি জেদটায় না করছে। . তিনি টিভির পর্দা থেকে নজর সরালেন না বলে সামিনা রশিদ চেঁচিয়ে বললেন- তোমায় কিছু বলছি আমি । . একটু নড়েচড়ে বসে ফারুক রশিদ বললেন- হ্যাঁ বলো । -সাফা পিকনিকে যেতে চাচ্ছে । -কার সাথে? -কলেজ থেকে ওদের বান্দরবান, নাফাখুম নিচ্ছে । -ভালো তো! ঘুরে আসুক । -ভালো! দেখছোনা চারদিকের কি অবস্থা? -কি অবস্থা? -মানুষ খুন হচ্ছে । একটু আগেও লামার এক মেয়ে খুন হলো । -উহু কোথার সাথে কি মেলাচ্ছ তুমি? সাফা একা যাবেনা ওখানে । শিক্ষক শিক্ষিকারা, বন্ধুবান্ধব সবাই থাকবে । তাছাড়া খুন তো নাফাখুমে হয়নি । . রাগে গজগজ করে সামিনা রশিদ বললেন- কাকে কি বলি আমি! -এইজন্যই বুঝি মেয়েটা ভাত খায়নি? -হু রাগ করে । -দিলে তো মেয়েটাকে রাগিয়ে? -ক্ষুধা পেলে এমনিতেই চলে আসবে । . . সাফা রশিদ..... নরসিংদী সরকারী কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী সে । উঠতি বয়সের মেয়ে হলেও ছেলেমানুষী একেবারেই কাটেনি তার । চঞ্চল একটি মেয়ে সে । দেখতে সুন্দরী হলে কি হবে! দুষ্টুমিতে ওস্তাদ । একমাত্র মেয়ে হওয়ার কারণে তার সব কিছুই সহ্য করতে হয় মা বাবাকে । এই বছর তাদের কলেজ থেকে পিকনিকের আয়োজন করা হয়েছে । একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নেয়া হবে বান্দরবানে । স্কুলের কোনো পিকনিক সে বাদ দেয়নি । কলেজের টা কি করে দিবে! নরসিংদী থেকে বেশ দূরত্ব রয়েছে বান্দরবানের । তাছাড়া কয়েকদিন ধরেই খুনের সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে । এসবের জন্য ঘোর আপত্তি জানাচ্ছে তার মা । ব্যাস, শুরু হয়ে গেল মান-অভিমানের পালা । খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে সাফা । জেদ ধরে বসে আছে, বান্দরবানে যাবেই সে! . রাত বারোটা পার হয়ে গেলেও খেতে আসলো না সাফা । তার মা খুব বেশিই চিন্তায় থাকেন মেয়েকে নিয়ে । দুষ্টুমির সাথে সাথে মেয়েটা বড্ড জেদ করে সব কিছুতে । একটা প্লেটে রাতের খাবার নিয়ে মেয়ের রুমে আসলেন তিনি । মুখ গোমড়া করে বসে আছে সাফা । তার পাশে বসে সামিনা রশিদ বললেন- স্কুলের কোনো পিকনিকে আমি তোকে যেতে নিষেধ করিনি । বান্দরবান অনেক দূরে । আমার টেনশন হয়না বুঝি? -অন্য মায়েদের টেনশন হয়না? সব টেনশন শুধু তোমারই । -অন্য মেয়েরা তোর মতো দুষ্টু নয়, এত বড় হয়েছিস তবুও দুষ্টুমি কমেনা তোর । -আমি কি দুষ্টুমি করব? স্যার ম্যাডামরা থাকবেন আমাদের সাথে । -এদিক সেদিক চলে যাবি একা একা । দেখছিস তো? আজও একটা মেয়ে খুন হলো । -তাই বলে ঘরে বসে আছে সবাই? -দেখ মা এসব বাদ দে, আমি আর তোর বাবা নিয়ে যাব তোকে । -এসব এমনিতেই বলো । তোমাদের সময় হয়না । তাই বলোনা । এসব বলে তুমি আমাকে ভাত খাওয়াতে পারবেনা । আর রাজি না হওয়া পর্যন্ত আমি খাচ্ছিনা । -জেদ করিস না । . দরজার পাশে দাঁড়িয়ে মা মেয়ের কথপোকথন শুনছিলেন, ফারুক রশিদ । তিনি এগিয়ে এসে মেয়ের দিকে তাকিয়ে বললেন- ঠিক আছে তুই যাবি । এবার খেয়ে নে । . তার কথা শুনে সামিনা রশিদ অবাক হলেও মুখে হাসি ফুটলো সাফার । কিন্তু পরক্ষণেই সে মুখটা ফ্যাকাসে করে বলল- আমি ভাত খাওয়ার জন্য মিথ্যে আশা দিচ্ছ আমায় । -ফারুক রশিদ কখনো মিথ্যে বলেনা, জানিস না? -সত্যি? -হু । কাল কলেজে গিয়ে পিকনিকের জন্য টাকা জমা দিয়ে আসবি । . বিছানার উপরে প্লেট রেখে হনহনিয়ে রুম ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন সামিনা রশিদ । অসহায় দৃষ্টিতে বাবার দিকে তাকালো সাফা । তিনি বললেন- আমি সামলে নিচ্ছি । তুই খেয়ে ঘুমিয়ে পড় । . . -তুমি রাজি কেনো হলে? . স্ত্রীর কথা শুনে ফারুক রশিদ বললেন- এত উত্তেজিত হচ্ছো কেনো তুমি? এর আগেও সাফা পিকনিকে গিয়েছে । -সেসব কাছে কোথাও গিয়েছে । এতদূরে নয় । -মেয়ে বড় হয়েছে সামিনা । -কিন্তু স্বভাব বদলায়নি । -তাই বলে ওকে আমরা বন্দী করে রাখতে পারিনা । -পিকনিকে যেতে না দেয়াই মানে বন্দী করে রাখা নয় । -ও সেটাই ভাবছে । কারণ ওর অন্যান্য সহপাঠিরা যাচ্ছে । . আপাতত ফারুক রশিদের সাথে তর্কে যাওয়ার ইচ্ছে নেই তার । চুপচাপ শুয়ে পড়েছেন সামিনা রশিদ । ফারুক রশিদ বললেন- একাধারে ক্লাস করতে করতে বাচ্চাদের মনে বিরক্তিভাব চলে আসে । বিরক্তি থেকে বের হয়ে আসার জন্য প্রয়োজন কোথাও ঘুরতে যাওয়া । -আমরা কি ঘুরতে নিয়ে যাইনা ওকে? আমরাই নিয়ে যেতে পারি বান্দরবান । -আমাদের সাথে যাওয়া আর সহপাঠীদের সাথে যাওয়ার মধ্যে তফাৎ আছে । -এত দূরে নিয়ে যাওয়ার কি দরকার ছিল? -সমস্যা টা কি শুধু এখানেই? -চারদিকের অবস্থা কেমন জানোই । তাও জিজ্ঞাসা করছ এসব? -সাফা একা যাচ্ছেনা সেখানে । কিছুই হবেনা । এত টেনশন করো নাতো । মেয়েটার মন খারাপ করে দিওনা । -আমার মন খারাপের মূল্য নেই তোমার কাছে? . কথা বাড়ালেন না ফারুক রশিদ । সামিনা রশিদ অন্যদিকে মুখ ঘুরিয়ে নিয়েছেন । আজ রাতে তার মন আর ভালো করা যাবেনা... . . এদিকে খুশিতে নাচতে ইচ্ছে করছে সাফার । তার বাবা এত সহজে রাজি হয়ে যাবে, ভাবতেই পারেনি সে ৷ তবে এখনো ভরসা করা যাচ্ছেনা তার বাবাকেও । মা যদি পটিয়ে ফেলে? নানারকমের চিন্তা এসে ভর করলো তার মনে আবার! শেষ পর্যন্ত যেতে পারবে তো সে? . . দেখতে দেখতে সাতদিন কেটে গেল । সাফা বাসে বসে আছে তার সহপাঠীদের সাথে । অবশেষে সে সফল হয়েছে । এই সাতদিনে আর কোনো খুনের সংবাদ শুনতে না পাওয়ার কারণে তার মা খুব একটা ঝামেলা করেনি । এর আগেও সে বেশ কয়েকবার পিকনিকে গেলেও এবারের টা তার কাছে অনেক বেশিই স্পেশাল । বান্দরবানের সৌন্দর্য্য সম্পর্কে অনেক শুনেছে সে । কিন্তু কখনো যাওয়ার সুযোগ হয়নি । আজ তার বান্দরবান দেখার যাওয়ার ইচ্ছেটা পূরণ হবে আর পূরণ হবে নাফাখুম দেখার ইচ্ছেও... . . থানচি এসে পৌঁছালো সাফারা । নাফাখুম যেতে হলে বান্দরবান জেলা সদর থেকে এখানেই আগে আসতে হয় । এটি একটি উপজেলা । সাঙ্গু নদীর পাড়ে অবস্থিত থানচি বাজার । এই সাঙ্গু নদী ধরে রেমাক্রীর দিকে ধীরে ধীরে উপরে উঠতে হয় নৌকা বেঁয়ে । নদীর দুপাশে উঁচু উঁচু পাহাড় । সবুজে মোড়ানো প্রতিটি পাহাড় যেন মেঘের কোলে শুয়ে আছে অবলিলায় । কোন কোন পাহাড় এতটায় উঁচু যে, তার চূড়া ঢেকে আছে মেঘের আস্তরে । . গাড়ি, নৌকা সব কিছুর রাস্তা শেষ । সকাল আটটায় থানচিতে নাস্তা সেরে হাঁটা শুরু করলো তারা । পাহাড়, পাথর ও ঝিরি পথের মধ্য দিয়ে তারা হাঁটতে লাগলো । একসাথে পঞ্চাশ জনের বেশি থাকলেও, সাফার ভালো ভাব রয়েছে তনিমা ও রাইমার সাথে । কলেজের শুরু থেকেই তাদের সাথে ভালো সম্পর্ক তার । বেস্ট ফ্রেন্ডও বলা যায় । . এভাবে হাঁটতে হাঁটতে প্রায় দুই ঘন্টারও বেশি সময় লাগলো নাফাখুমে আসতে । এত হাঁটার পরেও কারো মুখে ক্লান্তির কোনো ছাপ নেই । সবার মুখেই আনন্দের ঝিলিক । নাফাখুম জলপ্রপাতে পৌঁছেই চারদিকে অবাক দৃষ্টিতে তাকাতে লাগলো সাফা । অসাধারণ সুন্দর একটি স্থান এটি । যেন প্রকৃতির খেয়ালে সৃষ্টি হয়েছে চমৎকার এই জলপ্রপাত! সূর্যের আলোয় যেখানে নিত্য খেলা করে বর্ণিল রংধনু! প্রকৃতি এতটা সুন্দর ও নির্মল হতে পারে, এখানে না আসলে জানতোই না সে । একে একে সকলে ঝর্ণার দিকে গেলেও সাফা চারদিকে তাকিয়ে প্রকৃতির সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে লাগলো । এদিকে সব কিছু উপেক্ষা করে তার দিকে তাকিয়ে আছে তাইফ । আসল নাম তাইফুল ইসলাম । ক্লাসের প্রথম দিন থেকেই সাফাকে পছন্দ করে সে । তবে মনের কথা মনেই রয়ে গেল । এখনো তাকে ভালোবাসার কথা জানাতে পারেনি তাইফ । সাফাকে একা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে তনিমা এসে বলল- কিরে এখানে দাঁড়িয়ে থাকলে হবে? খুব তো ঝর্ণায় গোসল করবি বলে লাফিয়েছিস । চল এবার! -হু চল । . ঝর্ণার নিচে আসতেই অন্যরকম ভালো লাগা কাজ করছে সাফার মনে । উপর হতে আছড়ে পড়া পানির আঘাতে ঝর্নার চারিদিকে সৃষ্টি হচ্ছে ঘন কুয়াশার । উড়ে যাওয়া জলকনা বাষ্পের সাথে ভেসে ভেসে শরীরে এসে পড়ছে সাফার । এ যেন রোমাঞ্চকর অনুভূতি! . নাফাখুমে প্রায় দুই ঘন্টা ঝর্ণা ও নদীতে সময় কাটানোর পর তাদের শ্রেণি শিক্ষিকা নাদিয়া জান্নাত সবার উদ্দেশ্যে বললেন- সবাই উঠে এসো । নাফাখুম পাড়াতেই দুপুরের খাবার টা সারতে হবে । . কাপড় বদলে সবাই দুপুরের খাবারটা খেয়ে নিলো । হঠাৎ একজন পুরুষের কাছে জানতে পারলো, ঝর্ণার পাশে একটি ছেলের লাশ পাওয়া গিয়েছে । কথাটি শুনেই নাদিয়া জান্নাত সব শিক্ষার্থী আছে কিনা দেখতে লাগলেন । সবাই ঠিকঠাক মতো আছে দেখে স্বস্তির একটা নিঃশ্বাস ফেললেন তিনি । এরপর সবাই ঝর্ণার পাশে এসে ভিড় জমালো । একটু আগেও তারা এখানে ছিল । এই খুনটা হলো কিভাবে এই বিষয়ে তাদের কোনো ধারণাই নেই । অথচ লাশটি দেখে বোঝাই যাচ্ছে, সদ্য খুন হয়েছে । লাশটি দেখে সবাই ভয়ে আতঙ্কিত হয়েছে । কারণ লাশটি ছিল মস্তক বিহীন । মাথাটি দেহের একপাশে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় পড়ে রয়েছে । অনেক মেয়ে লাশ দেখে বমি করে যা তা অবস্থা, কেউ বা হাউমাউ করে কেঁদে ফেলেছে । এইরকম ভয়ানক পরিস্থিতি দেখে শিক্ষকরা নিজেদের মাঝে পরামর্শ করে সিদ্ধান্তে আসলেন যে, এই মুহুর্তেই এই স্থানটি ত্যাগ করা জরুরী । শুধু এই স্থান নয়, ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে তাদের বাড়ি ফেরা উচিত । যদিও আজ জিন্না পাড়ায় রাত কাটানোর কথা ছিল । নাদিয়া জান্নাত সবাইকে উঠে আসতে বললেন, সাথে জানালেন এখুনি নরসিংদী ফিরবেন তারা । একে একে সবাই উঠে আসতে লাগলো । উপরে উঠে আসার সময় হঠাৎ সাফার পায়ের সাথে কিছু একটা লেগে সে হোঁচট খেলো । নিজের শরীরের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য একটু নিচু হতেই একটি প্রদীপ দেখতে পেলো । প্রদীপটি তার দৃষ্টি আকর্ষণ করলো । তাই হাতে নিয়ে নড়াচড়া করে দেখলো সে ৷ কাদামাখা পুরনো পিতলের প্রদীপটি ছুঁড়ে ফেলতে চাইলে তনিমা বলল- এটা কি? দেখে মনেহচ্ছে আলাদীনের চেরাগ! -এই যুগে আলাদীনের চেরাগ! -হতেও তো পারে । -কি যে বলিস না! . নাদিয়া জান্নাত তাড়া দিতেই হনহনিয়ে উপরের দিকে উঠতে লাগলো তনিমা । সাফার কেনো যেন প্রদীপটি ফেলতে ইচ্ছে করলো না । পানিতে ধুঁয়ে সে নিজের কাঁধে থাকা ব্যাগটিতে ঢুকিয়ে নিলো সে। ------------------ চলবে


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২৮১ জন


এ জাতীয় গল্প

→ প্রেমময় ভালোবাসা
→ প্রেমময় কাহিনী
→ প্রদীপ্ত কুটির -আরিফুল ইসলাম
→ প্রেমময়
→ প্রেমময়,,,,,,,,পর্ব(১৯)
→ প্রেমময়,,,,,,, পর্ব(১৮)
→ প্রেমময়,,,,,, পর্ব(১৭)
→ প্রেমময়,,,,,,,, পর্ব(১৬)
→ প্রেমময়,,,,,,, পর্ব(১৫)

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...