গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

সুপ্রিয় পাঠকগন আপনাদের অনেকে বিভিন্ন কিছু জানতে চেয়ে ম্যাসেজ দিয়েছেন কিন্তু আমরা আপনাদের ম্যাসেজের রিপ্লাই দিতে পারিনাই তার কারন আপনারা নিবন্ধন না করে ম্যাসেজ দিয়েছেন ... তাই আপনাদের কাছে অনুরোধ কিছু বলার থাকলে প্রথমে নিবন্ধন করুন তারপর লগইন করে ম্যাসেজ দিন যাতে রিপ্লাই দেওয়া সম্ভব হয় ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

পোড়া বাড়ি

"ভূতুড়ে অভিজ্ঞতা" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান অনিক আহমেদ (৩ পয়েন্ট)



আমাদের গ্রামে একটা পোড়া বাড়ি ছিল। বাড়িটি দেখতে আগের আমলের বাড়ির মত। মজার ব্যাপার হল ওই বাড়িতে আগে একটা পাগল থাকতো। তো যাই হোক, পোড়া বাড়িটি আমাদের বাড়ি থেকে খুব একটা দুরে ছিল না। আর পোড়া বাড়িটি দেখতেও অনেক সুন্দর ছিল। সামনে ছিল একটা ছোট পুকুর তার ডান পাশেই ছিল বাশঝাড়। জায়গা টা অনেক খোলামেলা ছিল। তাই এলাকার যুবক ছেলেপেলেরা পোড়া বাড়িটির সামনে আড্ডা দিত। টাশ খেলতো। আমরা বন্ধুরা মিলেও ওখানে প্রায়ই আড্ডা দিতাম সিগারেট খেতাম এই আর কি। তো যাই হোক একবার আমরা তিন বন্ধু আমি সাকিল আর মুকুল ওখানে সন্ধার পর যাই হাওয়া খেতে। ওখানে সব সময় বাতাশ থাকতো। আমরা আড্ডা দিচ্ছিলাম সাথে সিগারেট খাচ্ছিলাম। আমি আর সাকিল একটু সাহসী ছিলাম কিন্তু মুকুল একটু ভীতু ছিল। আড্ডা শেষ হওয়ার পর যখন বাড়ি আসবো তখন সাকিল বলে দোস্ত দাড়া আর একটু পরে যাই ১১ টা বাজুক। চাদের আলোয় পোড়া বাড়িটি দেখতে আরো ভয়ংকর দেখতে লাগছিল। আমরা পুকুর এর পাশে বসে চাদের আলোয় কার্ড খেলতেছিলাম। হঠাত আমি কি মনে করে যেন পোড়া বাড়িটির দিকে তাকালাম, আমার স্পষ্ট মনে আছে আমি যখন বাড়িটির দিকে তাকাই তখন ওই পাগলটি কে দেখতে পেয়েছিলাম। যদিও পাগলটি অনেক আগেই মারা গিয়েছিল কিন্তু কিভাবে মারা যায় এটা কেউ ঠিক ভাবে বলতে পারেনি। কিন্তু লোকমুখে শোনা পাগলটি পোড়া বাড়িটিতে আত্নহত্যা করে আবার কেউ বলতো পাগলটি কে কেউ নাকি পোড়া বাড়ির ভিতর জবাই করে মারা হয়। তো যাই হোক আমি যখন পোড়া বাড়িটির দিকে তাকাই তখন চাদের আবছা আলোয় দেখতে পেয়েছিলাম পাগলটি ঠিক আমার দিকে তাকিয়ে আছে আমি একটু ভয় পেয়ে মুকুল আর সাকিল কে বলি ওরা বলে তুই ভুল দেখছিস। কিন্তু আমি যা দেখেছিলাম তা শুধু নিজেই জানি। এরপর মুকুল বলে দোস্ত আমার ভয় লাগছে বাড়ি চল। আমরা বাড়ি যাওয়ার জন্য উঠে দাড়াতেই প্রচন্ড জোরে একটা বাতাস আসে আমরা ভয় পেয়ে পোড়া বাড়িটির পিছন দিয়ে জোরে হাটতে লাগলাম। তিনজনে এক সাথেই হাটছিলাম একটু দুর আসার পর মনে হল আমরা দুইজন হাটছি সাথে মুকুল নেই। আমরা মোবাইল এর ফ্ল্যাশ জালিয়ে মুকুল কে খুজতে পোড়া বাড়িটির সামনে যাই গিয়ে যা দেখলাম এখনো নিজেরই বিসসাস হয়না গিয়ে দেখি সেই পাগলটি দাড়িয়ে আসে বিভতস চেহারায় আমরা দুজন তখন দোয়া দুরুদ পড়তে লাগলাম আর বল্লাম আমরা তোমাকে কোনো ক্ষতি করিনি আমার বন্ধুকে ফিরিয়ে দাও তারপর পিছন থেকে একটা চিল্লানির আওয়াজ পাই দেখি মুকুল পুকুর এর পাশে শুয়ে গোজ্ঞাইতেছে ওর কাছে গিয়ে ওকে ধরে নিয়ে তারাতাড়ি বাসায় চলে আসি। এরপর মুকুলের এক সপ্তাহ জর ছিল। এই ঘটনার পর আমরা এখন পর্যন্ত আর সন্ধার পর ওই পোড়া বাড়িটির সামনে যাইনি।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২৩১ জন


এ জাতীয় গল্প

→ আমার বাড়ি সিলেট
→ বাড়িয়ালার মেয়েটি part-01
→ ~বাড়ি থেকে পালিয়ে-শিবরাম চক্রবর্তী(বুক রিভিউ)
→ রাঘববাবুর বাড়ি-১
→ ভূতের বাড়ি
→ নানীর বাড়িতে ঘুম
→ ≠°°আমগোর বাড়ির কাজের বেডী°°
→ ★সেই বাড়ি★(৩] শেষ
→ ★সেই বাড়ি★(২]

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...