গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

গল্পেরঝুড়িতে লেখকদের জন্য ওয়েলকাম !! যারা সত্যকারের লেখক তারা আপনাদের নিজেদের নিজস্ব গল্প সাবমিট করুন... জিজেতে যারা নিজেদের লেখা গল্প সাবমিট করবেন তাদের গল্পেরঝুড়ির রাইটার পদবী দেওয়া হবে... এজন্য সম্পুর্ন নিজের লেখা অন্তত পাচটি গল্প সাবমিট করতে হবে... এবং গল্পে পর্যাপ্ত কন্টেন্ট থাকতে হবে ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

ফিরে আসা

"ভৌতিক গল্প " বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Mujakkir Islam (০ পয়েন্ট)



গল্পঃ ফিরে আসা পর্ব: ১ আজ ভাবনির ষোলতম জন্মদিন।আর এজন্য আশরাফ চৌধুরী অনেক বড় করে তার মেয়ে ভাবনির ষোলতম জন্মদিনটা পালন করছেন নিচের ডয়িং রুমে। আর ভাবনি আজকে অনেক খুশি। একটু আগে ভাবনির মা আয়েশা বেগম রুমে এসে ভাবনিকে নিচে কেক কাটার জন্য নিচে আসতে বলেন। ভাবনি যখন সিঁড়ি দিয়ে নিচে নেমে আসছিল তখন সবাই শুধু তার দিকেই চেয়েছিল। মনে হচ্ছেলো সিঁড়ি দিয়ে ভাবনি নয় কোন পরির দেশের রাজকন্যা নামছে। তারপর ভাবনি নিচে নেমে আসে। সবাই এখন কেক কাটার জায়গায় এসে জয় হয়েছে। কেকের মধ্যে অনেক মোমবাতি জ্বলছিল ভাবনি সবগুলো ফুঁ দিয়ে নিবিয়ে দেয়। ভাবনি যখন কেক কাটার জন্য ছুরিটা হাতে নেয়।হঠাৎ তখনি পুরো ডয়িং রুমটা কাঁপতে শুরু করে। এবং রুমে যত লাল নীল বাতি জ্বলছিল সব নিবে গেল। আর কোথা থেকে যেন দমকা হাওয়া এসে ডয়িং রুমের কিছু যেন উয়িয়ে নিয়ে যেতে চাইছে। তারপরই হঠাৎ একটা বিভৎস অট্রহাসি শুনা যায়। যে হাসির শব্দে সবাই ভয়ে কাঁপতে শুরু করে। তারপর হঠাৎ হাসি বন্ধ হয়ে যায়।আর তখন আশরাফ চৌধুরী চিৎকার করে বলেন কে তুমি এবং কি জন্য এখানে চৌধুরী এরপর একটা মহিলার কন্ঠ শুনা যায়। আসরাফ চৌধুরী চিনতে পারছনা আমাকে। তারপরই একটা ভয়ন্কর চেহারার আত্মার অবয়েব ভেসে উঠে । আত্মার চেহারা দেখার পর আশরাফ চৌধুরী ভাবনিকে শক্ত করে ধরে রাখে। ঐ আত্মাা বলল আমি কি চাই আশরাফ চৌধুরী তুমি ভাল করেই জান। আমি তোমার মেয়ের জীবনটা চাই। তারপর সব শান্ত । ঘরের বাতিগুলো সব জ্বলে উঠে। যেন এতক্ষনের সব ঘটনার কিছুই হয়নি। সব মেহমান চলে যাওয়ার পর আয়েশা বেগম আর ভাবনি আশরাফ চৌধুরী কাছে আসে। আয়েশা বেগম বলল- ঐ আত্মাটা কার,আর ও আমার মেয়ের জীবনটা কেন নিতে চায়। আশরাফ চৌধুরী নিশ্চুপ! এভার ভাবনি তার বাবার গলা জড়িয়ে ধরে বলে বাবা ঐ আত্মাটা কি সত্যিই আমার জীবনটা নিয়ে নিবে। একথা শুনার পর আশরাফ চিৎকার করে উঠে বলেন- না না না আমি ওকে কিছুতেই আমার মেয়ের জীবন নিতে দিব না। এ বলে আশরাফ চৌধুরী কাঁদতে শুরে করে ভাবনিকে বুকে জড়িয়ে ধরে। এরপর আশরাফ চৌধুরী বলেন তোমরা জানত চাও এটা কার আত্ম,এবং সে কেন ভাবনির জীবনটা চায়। তাহলে শুনো - আজ থেকে ষোল বছর আগে যখন ভাবনির..........(চলবে) (collected)


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২৯৪ জন


এ জাতীয় গল্প

→ যদি ছেলেটা ফিরে আসতো
→ কাছে আসার সাহসী গল্প
→ মধ্যরাতে ভেসে আসা পরিচিত কন্ঠস্বর!
→ ক্রুসেড-০৬: আবারো সংঘাত - আসাদ বিন হাফিস
→ ক্রুসেড-০৯: উপকূলে সংঘর্ষ - আসাদ বিন হাফিজ
→ আমার জিজেতে আসার গল্প
→ আসাদ নূরের সাথে কিছু সময়।
→ ফিরে এসো না,এসো না ফিরে
→ আমার প্রথম জিজেতে আসা

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...