গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

সুপ্রিয় গল্পের ঝুরিয়ান গন আপনারা শুধু মাত্র কৌতুক এবং হাদিস পোস্ট করবেন না.. যদি হাদিস /কৌতুক ঘটনা মুলক হয় এবং কৌতুক টি মজার গল্প শ্রেণি তে পরে তবে সমস্যা নেই অন্যথা পোস্ট টি পাবলিশ করা হবে না....আর ভিন্ন খবর শ্রেনিতে শুধুমাত্র সাধারন জ্ঞান গ্রহণযোগ্য নয়.. ভিন্ন ধরনের একটি বিশেষ খবর গ্রহণযোগ্যতা পাবে

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

জিজের নায়ক-নায়িকার দার্জিলিং ভ্রমণ (শেষ পর্ব)

"ভ্রমণ কাহিনী" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান মোঃ আনিছুর রহমান লিখন (৫৮ পয়েন্ট)



অপরূপ সৌন্দর্য্যের শহর দার্জিলিং ছেড়ে রওনা দিলাম বাংলাদেশে ফেরার উদ্দেশ্যে। প্রথমে আমরা শিলিগুড়িতে আসি। ফেরার পথে কলকাতাকেও অন্তর্ভুক্ত করেছি। এখন চলছি শিলিগুড়ি থেকে কলকাতা। আগেই দেখেছি শিলিগুড়ির আঁকাবাঁকা পাহাড়ি রাস্তা। নিউ জলপাইগুড়িতে আসি আমরা সকাল ৭ঃ০০ টায়। জলপাইগুড়ি থেকে শিয়ালদাহ পর্যন্ত আমরা ট্রেনের টিকিট কেটে নিই। শুরু হয় কলকাতায় আসার এক চরম অভিজ্ঞতা। সাইম আরাফাতঃ আনিছ ভাই, কেমন লাগছে কলকাতা আসা? আমিঃ হুম, দারুণ একটা অনুভূতি! সাইমঃ আমারও একই! আমিঃ তুমি কোন কোন জায়গার ভ্রমণটুকু বেশি পছন্দ করবে। সাইমঃ প্রথমে বলি, সৌদি আরব। কারণ উমরাহ করার সাথে সাথে ভ্রমণের মজাটুকু অনুভব করা যায়। আপনার কোনটা? আমিঃ আমি তাই! আমার ভাল লাগবে আরো মিশরে জ্বীনের শহর ভ্রমণ করতে। ওখানে নাকি এন্টি- গ্র্যাবেটেশনাল ফোর্স কাজ করে। সবকিছু নিচের দিকেই প্রবাহিত হয়। ওখানে নাকি সবকিছু উপরের দিকে যায়? এমনকি গাড়ি নিউট্রাল এ ৬০ কি.মি বেগে চলে। আল্লাহর অশেষ মহিমা। সাইমঃ আমার মিশরের ভ্রমণ ভালো লাগে। পিরামিডের শহর মিশর এক রহস্যময়ী জায়গা বলে। আমিঃ হ্যা, ডেড সিও একটি রহস্যময় সাগর, যেখানে কেউ ডুবে না। আমি ও সাইম কথা বলতে বলতে কলকাতায় আসতে লাগলাম। শিয়াদহ স্টেশনে এসে পৌঁছালাম। শিয়ালদহ স্টেশন থেকে আমরা যাব ধর্মতলায়। তাই সবাই একটি বাসে উঠলাম। বাসটি চলতে শুরু করল। সাইমঃ আনিছ ভাই, আরো কোথায় যাওয়ার ইচ্ছা আছে? আমিঃ সে তো অনেক জায়গায়। এর মধ্যে নায়াগ্রা জলপ্রপাত, চীনের মহাপ্রাচীর, মিশরের নীল নদ, মক্কা এবং মদিনায়। সাইমঃ বেশ ভালো ভ্রমণ রুটিন। বেশ রুচি আপনার। আমিঃ তুমি কোথায় যেতে চাও? সাইমঃ আমি মূলত ব্রাজিলের আমাজন অববাহিকায়, দক্ষিণ আফ্রিকায় আর গ্রীসকে ভ্রমণের আওতায় ফেলেছি। আমিঃ দারুণ। তোমাকে দেখছি তুমি অজানাকে জানার জন্য বেশ আগ্রহী। ভাল লাগল। সাইমঃ ভাই, আমি ছোট বেলা থেকেই এ রকম। আমি রহস্য উদঘাটন ও অনুসন্ধান প্রিয়। আমিঃ হু, তাই তো! জিজেতে তোমার লেখা পড়ে তাই জেনেছি। কথা খৈই ফুটতে না ফুটতেই আমরা ধর্মতলায় এসে হাজির। ধর্মতলার পাশেই কলকাতার নিউ মার্কেট। আমরা সবাই নিউ মার্কেটে নামি। মনে হয় বাংলাদেশের কোন স্থানে আছি। কলকাতার বিভিন্ন স্থাপনা, ঐতিহ্যবাহী কিছু নিদর্শন ও কিছু রেস্তোরাঁয় আমরা খাই এবং সর্বশেষে কলকাতা একটি মিউজিয়ামে গিয়ে অবাক হই। এখানে মুক্তিযুদ্ধের কিছু নিদর্শন আছে। সাইমঃ আনিছ ভাই, এখানে কি বুঝলেন? আমিঃ বুঝলাম যে, দেশ স্বাধীন এর আগে কলকাতা ছিল অফিস আদালতের শহর। সাইমঃ ভালই ধরেছেন। আমরা তো শান্তি নিকেতন ঘুরে এলাম। এখানে তার অনেক নিদর্শন আছে। আমিঃ হ্যা, তাই। জিজের এই উদ্যোগকে আমি প্রশংসা করছি। দার্জিলিং ভ্রমণে এসে কলকাতাও ঘুরা হলো। সাইমঃ এরপর কি করবেন? আমিঃ তাহিরা ও সাইমন জাফরি ভাইয়ার মতামতের ভিত্তিতে আমরা কাজ করব। অবশেষে যশোরের বেনাপোল সীমান্ত আসার কথা বলা হলো। আমরা সবাই বাসে উঠলাম। কারণ পাসপোর্টে যে রোড নির্ধারণ করা হয় সে রোডেই ফেরত আসতে হয়। তাই আমাদের সময় লাগবে বেশি। আমাদের বাসটি চলতে শুরু করল। আমরা বিকেল চারটায় যশোরের বেনাপোল সীমান্তের কাছে আসলাম। এরপর ফেরীতে আসি বাংলাদেশে। এখানে সোহাগ ট্রান্সপোর্টের একটি বাসে উঠি। বাসটি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেয়ারি ফার্মের সামনে আমাদেরকে নামিয়ে দেয়। তখন সময় ছিল সকাল ৬ঃ৫০ মিনিট। দার্জিলিং এর অপরূপ ও মনোমুগ্ধকর সৌন্দর্যের হাতছানি থেকে বাংলাদেশে ফিরে আসি। এভাবে জিজের নায়ক-নায়িকার দার্জিলিং ভ্রমণের পরিসমাপ্তি হয়। সাইমন জাফরি ভাইয়া ও তাহিরা আপুকে ধন্যবাদ জানিয়ে সবাই চলে সবার গন্তব্যস্থানে। তবে সবার মনে বয়ে চলে এক অন্য রকম অনুভূতি!!!!!!!!!!!! ধন্যবাদ জিজেবাসী, ধন্যবাদ জিজেবাসী!!!


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৪০২ জন


এ জাতীয় গল্প

→ জিজের ছেলেদের ক্রিকেট ম্যাচ -2
→ জিজের সবার ভূত নিয়ে আলোচনা
→ জিজের ছেলেদের ক্রিকেট ম্যাচ
→ জিজের পরিচিতরা যে কারণে প্রিয় (শেষ পর্ব)
→ জিজের পরিচিতরা যে কারণে প্রিয় (পর্ব-২)
→ জিজের পরিচিতরা যে কারণে প্রিয় (পর্ব-১)
→ অভিশপ্ত আয়না পর্র৬(শেষ পর্ব):-
→ শেষ বসন্ত-(প্রথম পর্ব)
→ মন্দ নামে ডাকা! (জিজের সদস্যবৃন্দদের উদ্দেশ্যে)
→ আমি (শেষ পর্ব ৮)

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...