গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

সুপ্রিয় পাঠকগন আপনাদের অনেকে বিভিন্ন কিছু জানতে চেয়ে ম্যাসেজ দিয়েছেন কিন্তু আমরা আপনাদের ম্যাসেজের রিপ্লাই দিতে পারিনাই তার কারন আপনারা নিবন্ধন না করে ম্যাসেজ দিয়েছেন ... তাই আপনাদের কাছে অনুরোধ কিছু বলার থাকলে প্রথমে নিবন্ধন করুন তারপর লগইন করে ম্যাসেজ দিন যাতে রিপ্লাই দেওয়া সম্ভব হয় ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

জিজের নায়ক-নায়িকার দার্জিলিং ভ্রমণ (পর্ব - ৭)

"ভ্রমণ কাহিনী" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান মোঃ আনিছুর রহমান লিখন (৫৮ পয়েন্ট)



দার্জিলিং এ দেখার মতো একটি হলো রক গার্ডেন। মনোমুগ্ধকর দৃশ্য রক গার্ডেনে ছড়িয়ে আছে। নয়নাভিরাম রক গার্ডেনে আছে ফুলের বাগান, চা বাগান ও মনোরম ঝর্ণা। আমরা রক গার্ডেনের চারপাশে ঘুরে বেড়ালাম।আবহাওয়াটা বেশি ভালো থাকায় সব কিছু অনেক দারুণ লাগতেছিল। মফিঃ আহা! যেন প্রকৃতির হাতছানি! আমিঃ আসলেই প্রকৃতির অপরূপ যেন ডাকছে। আহা! মন জুড়িয়ে যায়। তাহিরাঃ আমার এখানেই বেশ ভালো লাগছে। রুবাঃ আপু চলো সামনের ঝর্ণাটায় যাই। তুবাঃ যেন মনোরম প্রবাহিণী! সুস্মিতাঃ তাঁজা ফুলের বাহারি নিকুঞ্জ! ইমরানঃ অপূর্ব পাহাড়ি কান্না! ইসরাতঃ যেন আবেগের স্বপ্নপুরী! তাসমিহাঃ এ যেন আনন্দ ভ্রমণ! অপরাজিতাঃ ভালবাসার অপরূপ সৌন্দর্য্যের হাতছানি! সবার আবেগময় বাণীতে ভেসে চলে রক গার্ডেন। এরপর আমরা দার্জিলিং এর একটি পার্কে ট্রয় ট্রেন এ খুব ইনজয় করি। তাহিরা ভালই উপভোগ করল ট্রেনটি। আগামীকাল ফিরে যাব বাংলাদেশে। তাই সর্বশেষে দার্জিলিং এর ক্যাম্পলিং কে অন্তর্ভুক্ত করেছিলাম। এর সমস্ত ক্রেডিট ছিল সাইমন জাফরি ভাইয়ার। তার নেতৃত্বেই সমস্ত দার্জিলিং ভ্রমণ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছিল। তাহিরাঃ Hi Guys, I believe that we've enjoyed a lot of. আমিঃ হ্যা, তাহিরা, আমি জিজের পক্ষ থেকে বলছি আমরা প্রচুর ইনজয় করেছি। ধন্যবাদ দিচ্ছি এমন সুন্দর গাইডলাইন উপহার দেবার জন্য। এভাবেই দার্জিলিং এর সৌন্দর্য উপভোগ করে হোটেলে ফিরে এলাম। মনটা যেন এখানেই থেকে যেতে মন চায়। রাত তখন ৮ঃ৩০ মিনিট। আমরা নিজেদের পাসপোর্ট ও অন্যান্য জিনিসপত্র ঘুছিয়ে নিলাম। আমি অপরাজিতার জন্য একটি বিয়ের শাড়ি কিনেছি। মফি সুস্মিতার জন্য নেপালী সোয়েটার এবং ইমরান ইভার জন্য দামী দামী চকলেট কিনেছে। আর সাইম আরাফাত তার জন্য প্রচুর বই কিনেছে। আমরা সবাই মিলে তাহিরা আপুর জন্য কিনেছি ওখানকার তাঁতে তৈরী শাল চাদর। আমরা তখন প্রস্তুতি নিলাম বাংলাদেশে ফিরার জন্য। তখন অনুভব করলাম এক ধরনের আত্মতৃপ্তির মোহড়া। যেন শিরায় শিরায় বয়ে চলছে।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৩১৭ জন


এ জাতীয় গল্প

→ জিজের ছেলেদের ক্রিকেট ম্যাচ -2
→ Never Stop Learning-Ayman Sadiq
→ কলম্বাসের আমেরিকা আবিষ্কারের কথা।পর্ব-2
→ নাইন-ইলেভেন
→ জিজের সবার ভূত নিয়ে আলোচনা
→ ~দ্য আলকেমিস্ট-পাওলো কোয়েলহো(বুক রিভিউ)।
→ জিজের ছেলেদের ক্রিকেট ম্যাচ
→ জিজের পরিচিতরা যে কারণে প্রিয় (শেষ পর্ব)
→ জিজের পরিচিতরা যে কারণে প্রিয় (পর্ব-২)
→ কলম্বাসের আমেরিকা আবিষ্কারের কথা। পর্ব-1

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...