গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

গল্পেরঝুড়িতে লেখকদের জন্য ওয়েলকাম !! যারা সত্যকারের লেখক তারা আপনাদের নিজেদের নিজস্ব গল্প সাবমিট করুন... জিজেতে যারা নিজেদের লেখা গল্প সাবমিট করবেন তাদের গল্পেরঝুড়ির রাইটার পদবী দেওয়া হবে... এজন্য সম্পুর্ন নিজের লেখা অন্তত পাচটি গল্প সাবমিট করতে হবে... এবং গল্পে পর্যাপ্ত কন্টেন্ট থাকতে হবে ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

মনমানুষ

"উপন্যাস" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Saif sayed (০ পয়েন্ট)



ফ্ল্যাটের দরজার পাশে কলিং বেল নেই। প্রয়োজন নেই বলেই নেই। দরজা কখনো খোলা থাকে কখনো বন্ধ থাকে। এখন বন্ধ। একটা দুটা টোকা দিতেই দরজা খুলে গেল। বেলা বোধ হয় পাশেই দাঁড়িয়ে ছিল। আগন্তুক একেবারেই অপরিচিত। বেলার চোখে মুখে কিছুটা বিস্ময়, আপনি! আচ্ছালামুআলাইকুম ওয়ালাইকুম আপনাকে ঠিক- আমাকে চিনবেব না। চিনতে তো পারছিই না। আমি ঘটক নানাভাই। ঘটক নানাভাই! এটা অবশ্য আমার ছদ্মনাম। আমি এখন থেকে এই নামেই পরিচিত হতে চাই। আপনি কি কোনো কাজে আমাদের এখানেই এসেছে? জি। বলুন। দরজা কাছে দাঁড়িয়ে থেকেই বলবো? হ্যা বলবেন। বেশি বেশি কথা দাঁড়িয়ে থেকে বলা যায় না। আপনি কি ভিতরে বসতে চান। অনেক কথা। দাঁড়িয়ে বলতে গেলে পা ব্যথা হয়ে যাবে। অনেক কথা? এত কি কথা? আমার নামটা বোধ হয় আবার বলতে হবে। ঘটক নানাভাই। ঘটক শব্দের অর্থ কি? ঘটক কাহাকে বলে? অনেক ঘটনা যাহার দ্বারা ঘটিয়া থাকে, বিশেষ করিয়া দিনসহ রাতের ঘটনা যিনি কষ্ট করিয়া ঘটাইয়া থাকেন। তাহাকেই ঘটক বলে। বেশি বেশি কথা ছাড়া অল্প কথায় ঘটনা ঘটানো যায় না। আবার ধরুন নানা শব্দের অর্থ কি? নানা কাহাকে বলে? অভিধান অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়কে এবং অনেক রকম কথাকে সংক্ষেপে বুঝাইবার জন্য আমরা নানা শব্দটি ব্যবহার করিয়া থাকি। আপনি আপনার মায়ের আব্বুকেও নানা ডাকিয়া থাকেন। এবার বুঝতে পেরেছেন ভাবি? ভাবি? আপনাকে চিনি না জানি না, আমাকে ভাবি ডাকছেন কেন? আহ্হা! এবার দেখছি ভাবি শব্দের অর্থও বুঝাতে হবে। ভাবি কাহাকে বলে? ভাইজানের কাছে যিনি সচল তাহাকে ভাবি বলে। আর দাদী কাহাকে বলে? ভাইজানের কাছে যিনি অচল তাহাকেই দাদী বলে। এখন বুঝুন অচলের চেয়ে সচলের আদর কদর ইজ্জত কত বেশি। আমি আপনাকে বেশি ইজ্জত করে দাদী না ডেকে ভাবি ডাকছি। আপনি অযথা কথা বাড়াবার চেষ্টা করছেন। এখানে আসার মূল কারণ বলছেন না। আমি যত কথা বলছি সবই মূল বৃক্ষের শাখা প্রশাখা। এখনো আপনার সঠিক প্রকৃতি বুঝতে পারছি না। আমাকে অশিক্ষিত ঘটক ভাববেন না। আমি আসলে বেশি শিক্ষিত অল্প অশিক্ষিত। কোন বিষয় অল্প অশিক্ষিত? বিয়েশাদি করিনি। তাই বুঝতে পারছি না কোন বিষয় অশিক্ষিত রয়ে গেছি। আমার ব্যস্ততা আছে। শুনুন, মন দেখা যায় না। ভাষা এবং আচরণের আড়ালে লুকিয়ে থাকে মানুষের মন। আপনাকে ভালো মানুষ বলে মনে হচ্ছে। খোলাসা করে বলুন তো কি মতলবে নিয়ে এসেছেন? আমি তামাশার বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে এসেছি। উত্তম একটি ছেলে আমার হাতে ছিল। এ তো ভালো কথা। ওর বাবা মায়ের ঠিকানা জানেন? সেখানে যোগাযোগ করেছেন? জি না। আমি বিস্তারিত আলাপ করতে এখানেই এসেছি। আমরা তো ওর গার্জিয়ান না। আপনারা দূরের কথা আপনি স্বয়ং নিজে ওর গার্জিয়ান। এরকম বিশ্বাস নিয়েই এসেছি। না না ভাই, আপনার বিশ্বাস সত্য নয়। আগে আপনার কাছে প্রস্তাব উত্থাপন করি। পরে না হয় সবাই মিলে অনুমোদন দিবেন। সেটা হতে পারে। জেনে রাখা ভালো হিসেবে জানতে পারি। বলুন। আপনার শ্বশুর অসুস্থ। শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে শুনছি। আজ কেমন আছেন। আপনি তার অসুস্থতার খবর জানেন? দেখুন ছেলে মেয়ে উভয় পক্ষের অনেক অনেক কিছু ঘটকদের জানতে হয়। আমি আপনাদের প্রায় সবই জানি। বলছিলাম অসুস্থ মুরব্বিকে একটা সালাম দিতে চাই। আমি কি ভিতরে আসতে পারব? না। মুখের উপর না বলে দিলেন? আমি স্পষ্ট কথা পছন্দ করি। ঘটক পরিচয় পাবার পর আপনাকে বসতে দেওয়া উচিত। যত্ন সহকারে চা নাস্তা দেওয়া উচিত। সেটা পারছি না। কারন আপনি সম্পূর্ণ অপরিচিত। আসার আগে বলে কয়েও আসেননি। এদিকে ঘরে আমি একা আমার শ্বশুর থেকেও না থাকার মতো- বুঝেছি বুঝেছি। এক কথা বলুন দিনকাল খারাপ। অপরিচিত লোককে ঘরে বসতে দেয়া যায় না। এটাই আমার কথা। তাহলে দাড়িয়ে থেকেই কথা বলি? বলছেনই তো। এক কাজ করুন ভাবি চা নাস্তা লাগবে না, শরবত আর সেমাই নিয়ে আসুন আগে। আগে খাই। এখানে এই দরজার কাছে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে খাব। লজ্জা লজ্জা। ঘটকের লজ্জা থাকলে চলবে না। লজ্জাকে নির্লজ্জ করাই ঘটকের কাজ। আমি কিন্তু আর দাঁড়িয়ে থাকতে পারছি না। একটা চেয়ার নিয়া এসে বসুন। আমি আমি না হয় দাঁড়িয়ে থেকেই বলি। সেটা কেমন দেখা যায়। তবে দুটো চেয়ার আনুন। আপনি চৌকাঠের ভিতরে বসবেন আমি বাইরে। সীমানা দাগের এপার ওপার। আমি কিন্তু সত্যি গায়ে শক্তি পাচ্ছিনা। আপনি বোধ হয় পুষ্টিকর খাবার কম খান, বেশি বেশি খাবেন। ভাইজানকে বলবেন বেশি বেশি সালসা খাওয়াতে। এক কাজ করুন, আজ সন্ধ্যার পর অথবা অফিস বন্ধের দিন আসুন। তখন আমার স্বামী ঘরে থাকবে। এখন চলে যান।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২৯১ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...