গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

যাদের গল্পের ঝুরিতে লগিন করতে সমস্যা হচ্ছে তারা মেগাবাইট দিয়ে তারপর লগিন করুন.. ফ্রিবেসিক থেকে এই সমস্যা করছে.. ফ্রিবেসিক এ্যাপ দিয়ে এবং মেগাবাইট দিয়ে একবার লগিন করলে পরবর্তিতে মেগাবাইট ছাড়াও ব্যাবহার করতে পারবেন.. তাই প্রথমে মেগাবাইট দিয়ে আগে লগিন করে নিন..

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

পরদিন সকালে

"গোয়েন্দা কাহিনি" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান মরীচিকা (১০৯ পয়েন্ট)



পরদিন সকালে পরদিন সকালে পরদিন সকালে, গাড়ি পৌঁছার অনেক আগেই তৈরি হয়ে গেল মুসা। আর কিশোর। লোহার গেটের বাইরে এসে রোলস রয়েসের অপেক্ষায় রইল। ওরা। দুজনেরই পরনে সানডে সুট, শার্ট আর নেকটাই। পরিপটি করে আঁচড়ানো চুল। পরিচ্ছন্ন চেহারা। হাতের নখ অবধি পরিষ্কার করেছে ব্রাশ ঘষে। অবশেষে হাজির হল বিশাল রোলস রয়েস। গাড়িটার উজ্জ্বলতার কাছে নিজেদেরকে একেবারে স্নান মনে হল দুজনের। পুরানো ধাঁচের ক্লাসিক্যাল চেহারা। প্ৰকাণ্ড দুটো হেডলাইট। চৌকো, বাক্সের মত দেখতে মূল শরীরটা কুচকুচে কালো। চকচকে পালিশ, মুখ দেখা যায়। খাইছোঁ কিশোরের মুখে শোনা বাঙালী বুলি ঝাড়ল মুসা। এগিয়ে আসা গাড়িটার দিকে অবাক চোখে চেয়ে আছে। একশো দশ বছর বয়েসী কোটিপতির উপযুক্ত! পৃথিবীর সবচেয়ে দামি গাড়ির একটা, বলল কিশোর। কোটিপতি এক আরব শেখের অর্ডারে তৈরি হয়েছিল। এই গাড়িও নাকি পছন্দ হয়নি শেখের। ফলে ডেলিভারি নেয়নি। কম দামে পেয়ে কিনে নিয়েছে রেন্ট-আ-রাইড কোম্পানি। নিজেদের বিজ্ঞাপনের কাজে ব্যবহার করছে। কাছে এসে দাঁড়িয়ে পড়ল রোলস রয়েস। ঝটিকা দিয়ে খুলে গেল দরজা। ড্রাইভিং সিট থেকে দ্রুত নেমে এল শোফার। ছয় ফুট লম্বা, আট-সাট দেহের গড়ন। লম্বাটে হাসিখুশি চেহারা। একটানে মাথার টুপি খুলে হাতে নিয়ে নিল। মাস্টার পাশা? সপ্রশ্ন চোখে কিশোরের দিকে চেয়ে বলল লোকটা। আমি হ্যানসন, শোফার। পরিচিত হয়ে খুশি হলাম, মিস্টার হ্যানসন, বলল কিশোর। আমাকে কিশোর বলে ডাকবেন, আর সবাই যেমন ডাকে। প্লীজ, স্যার, দুঃখ পেয়েছে যেন শোফার, আমাকে শুধু হ্যানসন বলবেন। আপনাকে নাম ধরে ডাকা উচিত হবে না। কারণ এখন আপনার অধীনে কাজ করছি আমি। বেয়াদবী করতে চাই না। ঠিক আছে, শুধু হ্যানসন, বলল কিশোর। থ্যাঙ্ক ইউ, স্যার। আগামী তিরিশ দিনের জন্যে এই গাড়ি আপনার। চব্বিশ ঘন্টার জন্যে নিশ্চয়? শর্ত তাই ছিল। নিশ্চয়, স্যার। পেছনের দরজা খুলে ধরল হ্যানসন। প্লীজ। থ্যাঙ্ক ইউ, বলে গাড়িতে উঠল কিশোর। মুসাও ঢুকল। হ্যানসনের দিকে চেয়ে বলল কিশোর, বেশী ফর্মালিটির দরকার নেই। দরজা আমরাই খুলতে পারব। কিছু মনে করবেন না, স্যার, বলল। ইংরেজ শোফার, চাকরির পুরো দায়িত্ব পালন করতে দিন আমাকে। ঢিল দিয়ে নিজের স্বভাব নষ্ট করতে চাই না। পেছনের দরজা বন্ধ করে দিল হ্যানসন। সামনের দরজা খুলে ড্রাইভিং সিটে বসল। কিন্তু মাঝেমধ্যে তাড়াহুড়ো করে বেরোতে কিংবা ঢুকতে হতে পারে আমাদের, বলল কিশোর। তখন আপনার জন্যে অপেক্ষা করতে পারব না। তবে এক কাজ করা যায়। শুরুতে একবার দায়িত্ব পালন করবেন। আপনি, আরেকবার একেবারে বাড়ি ফিরে। মাঝে যতবার খোলা বা বন্ধ করার দরকার পড়বে, আমরা করব। ঠিক আছে? ঠিক আছে, স্যার। সুন্দর সমাধান। রিয়ার ভিউ মিররে চোখ পড়ল কিশোরের। তার দিকে চেয়ে হাসছে। হ্যানসন। তাড়াতাড়ি বলল কিশোর, অনেক সম্ভ্রান্ত লোকের কাজ করেছেন নিশ্চয়? বুঝতেই পারছি, ওরা কেউই আমাদের মত ছিল না। অনেক আজব, উদ্ভট জায়গায় যেতে হতে পারে আমাদের, কাজ করতে… একটা কার্ড নিয়ে হ্যানসনের দিকে বাড়িয়ে ধরল সে। এটা দেখলেই আন্দাজ করতে পারবেন। গম্ভীর মুখে কার্ডটা ফিরিয়ে দিতে দিতে বলল হ্যানসন, বুঝতে পেরেছি, স্যার। আপনাদের কাজ করতে আমার খুবই ভাল লাগবে। কিশোর অ্যাডভেঞ্চারের কাজ করে একঘেয়েমিও কাটাতে পারব। এতদিন শুধু বুড়োদের চাকরি করেছি, সবাই বাড়ি থেকে অফিস কিংবা অফিস থেকে বাড়ি। মাঝেমধ্যে পাটিতে যেত, ব্যস। তো এখন কোথায় যাব, স্যার? হ্যানসনকে খুব পছন্দ হয়ে গেছে দুই গোয়েন্দার। লোকটা সত্যিই ভাল। তাদেরকে মোটেই অবহেলা করছে না। হলিউডে, প্যাসিফিক স্টুডিওতে, বলল কিশোর। মিস্টার ডেভিস ক্রিস্টোফারের সঙ্গে দেখা করব। গতকাল ফোনে… মানে, টেলিফোন করেছিলাম তাঁকে। যাচ্ছি, স্যার। মৃদু গুঞ্জন করে উঠল রোলস রয়েসের দামি ইঞ্জিন। এতই মৃদু যে শোনাই যায় না প্রায়। পাহাড়ী পথ ধরে মসৃণ গতিতে হলিউডের দিকে ছুটল রাজকীয় গাড়ি। সামনে পথের ওপর দৃষ্টি রেখে বলল হ্যানসন, গাড়িতে টেলিফোন আছে। একটা রিফ্রেশমেন্ট কম্পার্টমেন্টও আছে। চাইলে ব্যবহার করতে পারেন। থ্যাঙ্ক ইউ, গম্ভীর গলায় বলল কিশোর। এত দামি একটা গাড়িতে চড়ে নিজেকে হোমরা-চোমরা গোছের কেউ একজন ভাবতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই। সামনের সিটের পেছনে বসানো একটা খোপের ছোট্ট দরজা খুলে ফেলল বোতাম টিপে। বের করে আনল। টেলিফোন রিসিভারটা। এত সুন্দর রিসিভার জীবনে দেখেনি সে। সোনালি রঙ। চকচকে পালিশ। কোন ডায়াল নেই। একটা বোতাম আছে শুধু। মোবাইল টেলিফোন, জানাল হ্যানসন। বোতামে শুধু একবার চাপ দিলেই যোগাযোগ হয়ে যাবে অপারেটরের সঙ্গে। তাকে নাম্বার জানালে লাইন দিয়ে দেবে। খুব সহজ। রিসিভারটা আবার আগের জায়গায় রেখে দিল কিশোর। আরাম করে হেলান দিয়ে বসল নরম চামড়া মোড়ানো পুরু গদিতে। দেখতে দেখতে হলিউডে এসে ঢুকল গাড়ি। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর ধার দিয়ে চলেছে এখন। গন্তব্যস্থান যতই কাছিয়ে আসছে, অস্থির হয়ে উঠছে মুসা। খালি উসখুসি করছে, কিশোর, শেষে বলেই ফেলল। সে। বুঝতে পারছি না। স্টুডিওর গেট পেরোবে কি করে! আমাদেরকে কিছুতেই ঢুকতে দেবে না দারোয়ান। ওই গেটই পেরোতে পারব না আমরা। উপায় একটা ভেবে রেখেছি, বলল কিশোর। কাজে লাগলেই হয়। এই যে, এসে গেছি। উঁচু বিশাল এক দেয়ালের ধার দিয়ে এগিয়ে চলেছে গাড়ি। বড় বড় দুটো ব্লক পেরিয়ে এল। সামনের দেয়ালের গায়ে বিরাট লোহার দরজা। গেটের কপালে বড় বড় করে লেখাঃ প্যাসিফিক স্টুডিও। দরজার সামনে এসে থামল গাড়ি। বন্ধ পাল্লা। হর্নের আওয়াজ শুনে পাল্লার একদিকের ছোট একটা গর্তের সামনে থেকে ঢাকনা সরে গেল। উঁকি দিল একটা গোমড়া মুখ। কোথায় যাবেন? জানালা দিয়ে ক্রি মুখ বের করে দিল হ্যানসন। মিস্টার ডেভিস ক্রিস্টোফার। পাস আছে? পাসের দরকার নেই। টেলিফোন করেই এসেছি। মিছে কথা বলেনি হ্যানসন। ঠিকই টেলিফোন করে ছিল কিশোর। মিসটার ক্রিস্টোফারকে লাইন দেয়া হয়নি, সেটা তার দোষ না। ও-ও! অনিশ্চিতভাবে মাথা চুলকাচ্ছে দারোয়ান। ঠিক এই সময় পেছনের একপাশে সাইড উইন্ডো খুলে গেল। বেরিয়ে এল কিশোরের মুখ। এই যে ভাই, কি হয়েছে? দেরি কেন? দারোয়ানের দিকে চোখ মুসার। কিশোরের কথা কানে যেতেই চমকে উঠল। কেমন ঘড়ঘড়ে গলা, কথায় খাঁটি ব্রিটিশ টান। ফিরে চাইল। ইয়াল্লা! প্ৰায় চেঁচিয়ে উঠল সে। এ কোন কিশোরকে দেখছে! ঝুলে পড়েছে নিচের ঠোঁট। মাড়ি বেরিয়ে পড়ছে। মাথা সামান্য পেছনে হেলানো। নাকের ওপর দিয়ে চেয়ে আছে। বিচ্ছিরি! মিস্টার ডেভিস ক্রিস্টোফারের কিশোর সংস্করণ, কোন খুঁত নেই। এক সময় টিভিতে অভিনয় করে প্রচুর নাম কামিয়েছে কিশোর। এ-অঞ্চলে তখন ছিল না মুসা। কিশোরের সেসব অভিনয় দেখেনি। তবে আজ বুঝতে পারল, লোকে কেন কিশোর পাশার নাম রেখেছ নকল পাশা। হাঁ করে কিশোরের দিকে চেয়ে আছে দারোয়ান। রা নেই মুখে। ঠিক আছে, নাকের ওপর দিয়ে দারোয়ানের মাথা থেকে পা পর্যন্ত নজর বোলাল একবার কিশোর, মিস্টার ক্রিস্টোফারের অনুকরণে। সন্দেহ থাকলে ফোন করছি আমি চাচাকে। সোনালি রিসিভারটা বের করে আনল কিশোর। কানে ঠেকাল। বোতাম টিপে দিয়ে নিচু গলায় নাম্বার চাইল। আসলে পাশা স্যালভিজ ইয়ার্ডের নাম্বার। সত্যিই তার চাচার লাইন চেয়েছে কিশোর। দামি গাড়িটার দিকে আরেকবার চাইল দারোয়ান। সোনালি রিসিভারটা দেখল। কিশোরের টেলিফোন কানে ঠেকিয়ে কথা বলার ভঙ্গিটা দেখল। তারপর সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলল। ঠিক আছে, আপনার ফোন করার দরকার নেই। আমিই জানিয়ে দিচ্ছি, আপনারা তাঁর অফিসে যাচ্ছেন। থ্যাঙ্ক ইউ। খুলে গেল দরজা। হ্যানসন, আগে বাড়ো। গম্ভীর গলায় দারোয়ানকে শুনিয়ে শুনিয়ে আদেশ দিল কিশোর। সূক্ষ্ম একটা হাসির রেখা দেখা দিয়েই মিলিয়ে গেল হ্যানসনের ঠোঁটে। সাঁ করে গাড়ি ঢুকিয়ে নিল সে ভেতরে। এগিয়ে চলল। গাড়ি। অনেকখানি এগিয়ে মোড় নিল একদিকে। সরু পথ। দুধারে সবুজ লনের পথঘেষা প্রান্তে পাম গাছের সারি। লনের ওপারে ছবির মত সুন্দর ছিমছাম। ছোট আকারের ডজনখানেক বাংলো। নাক বরাবর সোজা পথের শেষ মাথায় বিশাল অনেকগুলো শেড। স্টুডিও। একটা শেডের সামনে দাঁড়িয়ে আছে কয়েকজন অভিনেতা-অভিনেত্রী। গেটের বাধা ডিঙিয়ে এসেছে, স্টুডিওতে ঢুকে পড়েছে ওরা। এখনও মাথায় ঢুকছে না। মুসার, মিস্টার ক্রিস্টোফারের সঙ্গে কি করে দেখা করবে। কিশোর বেশিক্ষণ ভাবার সময় পেল না সে। একটা বড় বাংলোর সামনে এনে গাড়ি রেখেছে। হ্যানসন। বোঝা গেল, আগেও এসেছে। এখানে। পথঘাট সব চেনা। বাংলোর দেয়ালে এক জায়গায় বড় বড় করে লেখাঃ ডেভিস ক্রিস্টোফার। আলাদা আলাদা বাংলোতে বিভিন্ন পরিচালকের অফিস। কে কোথায় বসেন, বোঝার জন্যেই এই নাম লেখার ব্যবস্থা। আপনি বসুন গাড়িতে, পেছনের দরজা ধরে দাঁড়ানো হ্যানসনকে বলল কিশোর। বেরিয়ে এল। কতক্ষণে ফিরব বলা যায় না। ঠিক আছে, স্যার। সিঁড়ি ভেঙে বারান্দায় উঠল কিশোর, পেছনে মুসা। সামনের স্ত্রীনডোর ঠেলে ভেতরে পা রাখল। এয়ার কন্ডিশনড রিসিপশন রুম। একটা ডেস্কের ওপাশে বসে আছে সোনালিচুলো একটা মেয়ে। সবে নামিয়ে রাখছে। রিসিভার। অনেকদিন দেখা নেই। হঠাৎ বেড়ে ওঠা কেরি ওয়াইন্ডারকে প্ৰথমে চিনতেই পারল না মুসা, গলার আওয়াজ শুনে নিশ্চিত হতে হল। তাহলে, কোমরে দুহাত রেখে উঠে দাঁড়িয়েছে মুরুব্বী, ঢুকেই পড়েছ? মিস্টার ক্রিস্টোফারের ভাতিজা! বেশ, কত তাড়াতাড়ি স্টুডিওতে পুলিশকে আনানো যায়, দেখছি। টেলিফোনের দিকে হাত বাড়াল কেরি। র দিকে হাত বাড়াল কেরি। একেবারে চুপসে গেল মুসা। বিড়বিড় করে বলল, ইয়াল্লা! থাম! বলে উঠল কিশোর। কেন? সামনের দিকে চিবুক বাড়িয়ে দিয়ে আলতো মাথা ঝাঁকাল কেরি। গার্ডকে ফাঁকি দাওনি তুমি? বলনি মিস্টার মিস্টার ক্রিস্টোফারের ভাতিজা… না, বলেনি, বন্ধুর পক্ষে সাফাই গাইল মুসা। গার্ডই ভুল করেছে। তোমাকে কথা বলতে কে বলেছে? ধমকে উঠল কেরি। প্রায়ই গোলমাল করে কিশোর পাশা। স্কুকের অন্যের ব্যাপারে না গলানোর অনেক উদাহরণ আছে। এবার কিছুটা শিক্ষা দিয়ে ছাড়ব আমি। ঘুরে রিসিভারের দিকে ঝুঁকল কেরি। হাত বাড়াল রিসিভারের দিকে। তাড়াহুড়ো করে কিছু করা উচিত নয়, মিস ওয়াইল্ডার, বলল কিশোর আবার চমকে উঠল মুসা। আবার পুরোদস্তুর ইংরেজ, কথায় সেই অদ্ভুত টান-মিস্টার ডেভিস ক্রিস্টোফার যেভাবে কথা বলেন। চিকিতে আবার কিশোর ক্রিস্টোফার হয়ে গেছে কিশোর। আমি শিওর, এটা দেখতে চাইবেন মিস্টার ক্রিস্টোফার, বলল কিশোর। রিসিভার হাতে তুলে নিয়েছে কেরি। কিশোরের কথায় ফিরে চাইল। সঙ্গে সঙ্গে খসে পড়ে গেল রিসিভার। চোখ বড় বড় হয়ে গেছে, ছিটকে বেরিয়ে আসবে যেন কোটির ছেড়ে। কেবল থেকে ঝুলছে রিসিভারটা। টেবিলের পায়ার সঙ্গে বাড়ি খাচ্ছে খটাখট, কানেই ঢুকছে না যেন তার। তুমি… তুমি… ফিসফিস করছে সে, …তুমি… হঠাৎই ভাষা খুঁজে পেল যেন কেরি। হ্যাঁ, কিশোর পাশা, সত্যিই বলেছ। এটা দেখতে চাইবেন মিস্টার ক্রিস্টোফার! কি, মিস ওয়াইল্ডার? দ্রুত তিন জোড়া চোখ ঘুরে গেল দরজার দিকে। দরজায় এসে দাঁড়িয়েছেন মিস্টার ডেভিস ক্রিস্টোফার স্বয়ং। শরীরের তুলনায় মাথা বড়। ঝাঁকড়া চুল। এত বেশি ঝুলে পড়েছে নিচের ঠোঁট, মাড়ি দেখা যায়। ভীষণ কুৎসিৎ চেহারা। কি হয়েছে? কোন গোলমাল? আবার জানতে চাইলেন। মিস্টার ক্রিস্টোফার। সেই কখন থেকে রিঙ করছি আমি। গোলমাল কিনা। আপনিই ঠিক করুন, মিস্টার ক্রিস্টোফার, ফস করে বলে বসল কেরি। এই ছেলেটা কিছু দেখাতে চায়। আপনাকে। আপনি মুগ্ধ হবেন। সরি, বললেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। কারও সঙ্গেই দেখা করতে পারব না। আজ। হাতে কাজ অনেক। ওকে যেতে বল। আমি শিওর, মিস্টার ক্রিস্টোফার, আপনি দেখতে চাইবেন! কেমন এক গলায় কথা বলে উঠল। কেরি। স্থির চোখে কেরির দিকে তাকালেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। তারপর ফিরলেন দুই কিশোরের দিকে। কাঁধ ঝাঁকালেন। ঠিক আছে। এস। বিশাল এক টেবিলের ওপাশে সুইভেল চেয়ারে গিয়ে বসলেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। ইচ্ছে করলে টেবিল-টেনিস খেলা যাবে। টেবিলটাতে, এত বড়। তাঁর দিকে চেয়ে দাঁড়িয়ে রইল দুই গোয়েন্দা। পেছনে দরজাটা ওপাশ থেকে বন্ধ করে দিল কেরি। তোমার, ছেলেরা, বললেন, বললেন মিস্টার ক্রিস্টোফার, পাঁচ মিনিট সময় দিচ্ছি তোমাদের, কি দেখাতে চাও? এটা স্যার, অদ্ভূত ভঙ্গিতে পকেট থেকে একটা কার্ড বের করে টেবিলের ওপর দিয়ে ঠেলে দিল কিশোর। ভঙ্গিটা লক্ষ্য করলেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। একেবারে তাঁর নিজের ভঙ্গি। হাত বাড়িয়ে তুলে নিলেন। কার্ডটা। হুমম! তোমরা তাহলে গোয়েন্দা। প্ৰশ্নবোধক চিহ্নগুলো কেন? নিজেদের ক্ষমতার ব্যাপারে সন্দেহ প্ৰকাশ? না, স্যার, জবাব দিল কিশোর। ওগুলো আমাদের ট্রেডমার্ক। যে-কোন ধরনের রহস্য ভেদ করতে রাজি আমরা। তাছাড়া ওই চিহ্ন কার্ডে বসানোর কারণ জিজ্ঞেস করবেই লোকে, আমাদেরকে মনে রাখবে। আচ্ছা! ছোট্ট একটা কাশি দিলেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। নাম প্রচারের ব্যাপারে খুব আগ্রহী মনে হচ্ছে? নিশ্চয়, স্যার। লোকে আমাদের নামই যদি না জানল, ব্যবসা টেকাব কি করে? ভাল যুক্তি, স্বীকার করলেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। কিন্তু ব্যবসা তো শুরুই করনি এখনও। সেজন্যেই তো এসেছি, স্যার। আপনাকে একটা ভূতুড়ে বাড়ি খুঁজে দিতে চাই আমরা। ভূতুড়ে বাড়ি? ভুরুজোড়া সামান্য উঠে গেল মিস্টার ক্রিস্টোফারের। আমি ভূতুড়ে বাড়ি খুঁজছি, ভাবনাটা কেন এল মাথায়? শুনেছি, আপনার পরের ছবির জন্যে একটা ভূতুড়ে বাড়ি খুঁজছেন, বলল কিশোর। আপনার খোঁজায় সাহায্য করতে আগ্রহী তিন গোয়েন্দা। তাচ্ছিল্যের হাসি ফুটল মিস্টার ক্রিস্টোফারের মুখে। দুটো বাড়ির খোঁজ ইতিমধ্যেই পেয়ে গেছি। আমি, বললেন তিনি। একটা ম্যাসাচুসেটসের সালেমে, আরেকটা দক্ষিণ ক্যারোলিনার চার্লসটনে। দুটো জায়গাতেই নাকি ভূতের উপদ্রব আছে। আগামীকাল আমার দুজন লোক যাবে জায়গাগুলো দেখতে। আমি শিওর, দুটোর একটা জায়গা আমার পছন্দ হবেই। কিন্তু আমরা যদি এখানে, এই ক্যালিফোর্নিয়াতেই একটা বাড়ি খুঁজে দিতে পারি, অনেক সহজ হয়ে যাবে আপনার কাজ। আমি দুঃখিত, খোকা। তা হয় না। আর এখন। টাকা পয়সা কিছু চাই না। আমরা, স্যার, বলল কিশোর। শুধু প্রচার চাই। এজন্যে কাউকে লিখতে হবে আমাদের কথা। যেমন লেখা হয়েছে শার্লক হোমস, এরকুল পোয়ারোর কাহিনী। আমার ধারণা, ওদের কথা লেখা হয়েছে বলেই আজ ওরা এত নামী গোয়েন্দা। না না, স্যার, আপনাকে লিখতেও হবে না। লিখে দেবেন। আমাদের এক সহকারীর বাবা, মিস্টার রোজার মিলফোর্ড। খবরের কাগজে চাকরি করেন তিনি। আচ্ছা, এবার তাহলে, ঘড়ি দেখলেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। মিস্টার ক্রিস্টোফার, ভেবেছিলাম। আমাদের প্রথম কেসটায় একটু সাহায্য করবেন… সম্ভব না, যাবার পথে দয়া করে কেরিকে একবার আসতে বলে যেও। ঠিক আছে, স্যার, হতাশ মনে হল কিশোরকে। ঘুরে দাঁড়িয়ে দরজার দিকে হাঁটতে শুরু করল দুই গোয়েন্দা। দরজার কাছাকাছি পৌঁছে গেছে, পেছন থেকে ডাক শোনা গেল মিস্টার ক্রিস্টোফারের, একটু দাঁড়াও। বলুন, স্যার, ঘুরে দাঁড়াল কিশোর। মুসাও ঘুরল। চোখ কুঁচকে তাদের দিকে চেয়ে আছেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। কেন যেন মনে হচ্ছে, যা দেখাতে এসেছ তা দেখাওনি। কি দেখাবে বলে বলেছিল মিস ওয়াইল্ডার? নিশ্চয় তোমাদের ভিজিটিং কার্ড নয়? ঠিকই বলেছেন, স্যার, স্বীকার করল কিশোর। আমি লোকের গলার স্বর, কথা বলার ভঙ্গি, এমনকি অনেকের চেহারাও নকল করতে পারি। মিস ওয়াইন্ডারকে আপনার ছেলেবেলার চেহারা নকল করে দেখিয়েছিলাম। আমার ছেলেবেলার চেহারা ভারি হয়ে গেল বিখ্যাত পরিচালকের স্বর। চেহারায় মেঘা জমতে শুরু করছে। কি বলতে চাইছ? ঠিক আছে, দেখাচ্ছি, স্যার। চোখের পলকে বদলে গেল কিশোরের চেহারা। আমার ধারণা, মিস্টার ক্রিস্টোফার, গলার স্বরও পাল্টে গেছে। হয়ত কোন ছবিতে আপনার ছেলেবেলার চেহারা দেখতে চাইবেন। মানে, ছেলেবেলার কোন ঘটনা কাউকে দিয়ে অভিনয় করাতে চাইবেন… হেসে ফেললেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। পরীক্ষণেই গম্ভীর হয়ে গেলেন আবার। বিচ্ছিরি থামাও ওসব! আপন চেহারায় ফিরে এল কিশোর। পছন্দ হল না, স্যার? আপনার ছেলেবেলার চেহারা নিশ্চয় এমন ছিল? না না, এত বিচ্ছিরি ছিলাম না। আমি কিছু হয়নি তোমার! তাহলে আরও কিছুদিন প্র্যাকটিস করতে হবে, আপনমনেই বলল কিশোর। টেলিভিশন থেকে খুব চাপাচাপি করছে… টেলিভিশন সতর্ক হয়ে উঠেছেন পরিচালক। কিসের চাপাচাপি? মাঝেমধ্যে টেলিভিশনে কমিক দেখাই আমি। আগামী হস্তায় বাচ্চাদের একটা অনুষ্ঠান আছে। ভাবছি, এবারে আপনার চেহারা, কথা বলার ধরন নকল করে… খবরদার! গর্জে উঠলেন মিস্টার ক্রিস্টোফার। আমি নিষেধ করছি। কেন, স্যার? নিরীহ গলা কিশোরের। দোষ কি এতে? বাচ্চারা যদি একটু মজা পায়… না-আ! কি যেন একটু ভাবলেন পরিচালক। ঠিক আছে, তোমাদের প্রস্তাবে আমি রাজি। তবে কথা দিতে হবে, কক্ষণো, কোথাও আমার চেহারা নকল করে দেখাতে পারবে না। থ্যাঙ্ক ইউ, মিস্টার ক্রিস্টোফার, হাসিমুখে বলল কিশোর। তাহলে ভূতুড়ে বাড়ি খোঁজার অনুমতি দিচ্ছেন আমাদেরকে? হ্যাঁ হ্যাঁ, দিচ্ছি। তেমন বাড়ি পেলেও ওটা ব্যবহার করব, এমন কথা দিতে পারছি না। তবে তোমাদের নাম প্রচারের ব্যবস্থা করব। এখন বেরোও, মেজাজ আরও খিচড়ে যাবার আগেই। হয়ত আবার মত পাল্টে বসতে পারি। ভয়ানক চালাক ছেলে তুমি, কিশোর পাশা নিজের কাজটা ঠিক উদ্ধার করে নিয়ে গেলো! ভীষণ চালাক! আর কিছু শোনার দরকার মনে করল না কিশোর আর মুসা। প্রায় ছুটে বেরিয়ে এল ঘর থেকে।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১৮৭ জন


এ জাতীয় গল্প

→ এক সকালে জিজের সকল ভাইয়ারা
→ কোনো এক শীতের সকালে..
→ সকালের মৃদু ঠান্ডা বাতাস
→ একটি শীতের সকালের মিষ্টি প্রেম কাহেনী
→ সকালে ফেরার পথে
→ শিশির মোড়ানো সকালের কথা
→ এক সকালে বইমেলায়
→ একটি শীতের সকালের মিষ্টি প্রেম কাহেনী

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...