গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

সুপ্রিয় গল্পের ঝুরিয়ান ... গল্পেরঝুড়ি একটি অনলাইন ভিত্তিক গল্প পড়ার সাইট হলেও বাস্তবে বই কিনে পড়ার ব্যাপারে উৎসাহ প্রদান করে... স্বয়ং জিজের স্বপ্নদ্রষ্টার নিজের বড় একটি লাইব্রেরী আছে... তাই জিজেতে নতুন ক্যাটেগরি খোলা হয়েছে বুক রিভিউ নামে ... এখানে আপনারা নতুন বই এর রিভিও দিয়ে বই প্রেমিক দের বই কিনতে উৎসাহিত করুন... ধন্যবাদ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

নরকের পিশাচ-২

"রহস্য" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান সাইফ মোহাম্মদ (০ পয়েন্ট)



{শার্লক হোমস} মাপা পায়ের আওয়াজ শুনলাম সিঁড়িতে। খানিক বাদেই দীর্ঘদেহী ধূসর গোঁফঅলা এক লোক উদয় হলেন দরজায়।লোকটার চেহারায় বিস্তর অভিজ্ঞতার ছাপ। ভারি চোখ মুখ আর জাঁকালো আচরনে ফুটে উঠে ছে তার জীবনের ইতিহাস। গোড়ালি ঢাকা কাপড় থেকে সোনালি ফ্রেমের চশমা- সবই বলে দিচ্ছে ভদ্রলোক রক্ষনশীল গির্জা ভক্ত সৎ নাগরিক গোড়া এবং কাটায় কাটায় নিয়ম মেনে চলা মানুষ। কিন্তু অস্বাভাবিক কোনো অভিজ্ঞতার ফলে বেশ বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন। ভদ্রলোকের চুল উস্কখুস্ক যুগপৎ রাগ ও উত্তেজনা ফুটে ওঠেছে অরক্তিম চেহারায়। ঘরে ঢুকেই সরাসরি কাজের কথা পাড়লেন। "মি. হোমস জীবনে এমন অদ্ভুত ও অপ্রিতিকর অভীজ্ঞতা হয়নি আমার। এরকম পরিস্তিতি তেও পরিনি কখনো। ব্যাপার টা ভীষন অন্যায় ও বিচ্ছিরি। ব্যাপার টার ব্যাখ্য আমার চাই।" কথা শেষ করে রাগে গোখরা সাপের মত ফুসতে লাগলেন ভদ্রলোক। হোমস শান্তনার স্বরে বলল "আগে আপনি শান্ত হয়ে বসুন মি. একলস। তার পর বলুন প্রথমেই আমার কাছে এলেন কেন"। " দেখুন মশাই আমার বিশ্বাস এই তেলটা পুলিসের লাইনের নয়। পুরোটা শুনলে আপনি ও আমার সাথে একমত হবেন যে ব্যাপার টাকে চুপ চাপ ছেড়ে দেওয়া যায় না।" "আচ্ছা। এবার বলুনতো ঘটনাটি কী।" কিন্তু ভদ্রলোক কাহিনি শুরু করবার আগেই হই হট্টগোল শোনাগেল বাইরে। পরক্ষনেই ঝটকা মেরে খুলে গেল দরজা। ঝড়ের বেগে ঘরে ঢুকলো দুজন সরকারী লোক। এদের একজন আমাদের অতি পরিচিত- স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড এর ইন্সপেক্টর গ্রেগসন। কর্মমর্দন সেরে সহকর্মীর সজ্ঞে পরিচয় করিয়ে দিল। লোকটা সারে কনস্টেবল বাহিনীর ইন্সপেক্টর বেইনয গ্রেগসনের বুলডগ সদৃশ চোখ চলে গেল আমাদের অতিথীর দিকে। " আপনিই কী পপহ্যম হাউসের মি. জন একলস?" "হ্যা আমিই " "সারাটা সকাল আপনাকে খুঁজে বেরিয়েছি আমরা। " "টেলিগ্রাম এর সুত্র ধরে খুঁজে পেয়েছ নিশ্চই?" বলল হোমস। বাকিটা ৩ পর্বে ....................


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১৩৮ জন


এ জাতীয় গল্প

→ নরকের পিশাচ-৩
→ নরকের পিশাচ--১
→ নরকের দরজা

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...