গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

সুপ্রিয় পাঠকগন আপনাদের অনেকে বিভিন্ন কিছু জানতে চেয়ে ম্যাসেজ দিয়েছেন কিন্তু আমরা আপনাদের ম্যাসেজের রিপ্লাই দিতে পারিনাই তার কারন আপনারা নিবন্ধন না করে ম্যাসেজ দিয়েছেন ... তাই আপনাদের কাছে অনুরোধ কিছু বলার থাকলে প্রথমে নিবন্ধন করুন তারপর লগইন করে ম্যাসেজ দিন যাতে রিপ্লাই দেওয়া সম্ভব হয় ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

জিজের নায়ক-নায়িকার দার্জিলিং ভ্রমণ ( পর্ব - ৩)

"ভ্রমণ কাহিনী" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান মোঃ আনিছুর রহমান লিখন (৫৮ পয়েন্ট)



শিলিগুড়ি একটি পাহাড়ি এলাকা। আঁকাবাকা পাহাড়ি রাস্তাগুলো শিলিগুড়ির সৌন্দর্য আরো বাড়িয়ে দেয়। আমরা শিলিগুড়ি থেকে দার্জিলিং রওনা হই তখন সময় দুপুর ২ঃ৩০ মিনিট। পাহাড়ি আঁকাবাকা রাস্তা বেয়ে বাস চলতে থাকে। আমিঃ আহা, কি মনোমুগ্ধকর দৃশ্য! তাহিরাঃ দার্জিলিং এ গেলে আর চমৎকার দৃশ্য দেখবে আনিছ। মফিঃ এই পথ যদি না শেষ হয়, তবে কেমন হতো তুমি বলো তো..... সুস্মিতাঃ তুমিই বলো,তুমি বলো..... ইমরানঃ পিচ ঢালা এই পথটারে ভালবেসেছি... ইসরাতঃ তার সাথে এই মনটারে বেঁধে নিয়েছি... আমিঃ ঐ দূর, দূর, দূরান্তে, দিন দিনান্তে, নীল নীলান্তে...... অপরাজিতাঃ জানতে না জানতে, শান্ত শান্ত মন অশান্ত হয়ে যায়.... হৃদয়ঃ তোমাকে ছেড়ে আমি কি নিয়ে বাঁচব, রনিঃ হৃদয়ের কথা......... সবাইঃ আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম আমরা, আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম......... *************★*********★************* বাসটাতে হৈহল্লোড করে এগিয়ে যাচ্ছি। কারও মুখে ঘুমের রেশটুকু নেই। শিলিগুড়ির পাহাড়ি রাস্তা। সবাই যেন উপভোগ করছে। এখন তাহিরা শিলিগুড়ি সম্পর্ক সব বলে যাচ্ছে। শিলিগুড়ি, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তরভাগে দার্জিলিং একটি এলাকা। শহরটি দক্ষিণ হিমালয়ের তরাই অঞ্চলে, মহানন্দা নদীর পশ্চিমে অবস্থিত। এখানে করাতকল ও প্লাইউডের কারখানা আছে। কাছের তরাই অরণ্য থেকে কাঠের যোগান আসে। বাণিজ্য ও পরিবহন এখানকার প্রধানতম অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড। শহরটি ভারতের বাকী অংশের সাথে উত্তর-পূর্ব ভারতের কৌশলগত যোগাযোগ কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে। দক্ষিণের সমভূমিগুলি ও উত্তরের পাহাড়ি অঞ্চলগুলির মধ্যে একটি পরিবহন কেন্দ্র হিসেবেও শিলিগুড়ি ভূমিকা রাখে। এদের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা দক্ষিণে জলপাইগুড়ি শহর থেকে উত্তরে দার্জিলিং শহর পর্যন্ত বিস্তৃত। শিলিগুড়ি দিয়ে অনেকগুলি প্রধান প্রধান রেলপথ ও মহাসড়ক চলে গেছে। শিলিগুড়ি থেকে দার্জিলিং পর্যন্ত প্রাচীন বাষ্পীয় ইঞ্জিনে টানা একটি খেলনা ট্রেনগাড়ি বা টয় ট্রেন পাহাড় দিয়ে খাড়া পথ ধরে চলাচল করে এবং পর্যটকদের বহু বিখ্যাত দৃশ্য দেখার সুযোগ করে দেয়। কাছেই বাগডোগরা শহরে একটি অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর আছে। শিলিগুড়ি ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলির যোগাযোগের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে কাজ করে। একটি মূল বাণিজ্য কেন্দ্র হিসাবে, এই শহর বিমান, সড়ক ও রেল পথের একটি উন্নত পরিবহন জালবিন্যাস দ্বারা সু-সজ্জিত। আপনি যদি পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং এবং সিকিমের গ্যাংটক এর মত শহরগুলি ভ্রমণ করতে আসেন, শিলিগুড়ি হল এই প্রতিটি জায়গার প্রবেশদ্বার। দার্জিলিং এর সৌন্দর্যের কথা ভাবতে ভাবতে সবাই ঘুমিয়ে পড়ে। তাহিরা সব সময় তাদের কোন না কোন ভাবে জায়গার সম্পর্কে জানিয়েছে। তাহিরার কথা কি বলব? আমাদের অনেক ভালবাসে। জিজের এই ভ্রমণ শুধু তাহিরার কারণে আনন্দময় হচ্ছে। পরিচিত হচ্ছি নতুনের সাথে। একটি মিশুক মেয়ে তাহিরা। সাইমন জাফরি ভাইয়া আছে বলেই আমরা তেমন চিন্তিত নই। তিনি একজন সাদা মনের মানুষ। আমরা এত দুষ্টুমি করছি তবু তিনি রেগে যান নি। আমাদের জিজেবাসীকে খুব ভালবাসেন। জলপাইগুড়ি তে বাস পৌঁছাতে সময় লাগল। তিন ঘন্টা। আবার তাহিরা বলল, - শিলিগুড়ি করিডোর একটি বিশেষ জায়গা। - আমি বইতে পড়েছি আপু। এটি চিকেন নেক নামেও পরিচিত। আঁকাবাকা পাহাড়ি রাস্তা বেয়ে বাসটা ছুটে চলছে। দার্জিলিং আর বেশি দূরে নয়। কাঙ্ক্ষিত জিনিসের জন্য সবার মনটা উদ্বেলিত হয়ে ওঠছে যেন।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২৬৭ জন


এ জাতীয় গল্প

→ হযরত ছালেহ(আ) এর জীবনী
→ হযরত ছালেহ(আ) এর জীবনী
→ হযরত ছালেহ(আ) এর জীবনী
→ জিজের ছেলেদের ক্রিকেট ম্যাচ -2
→ Never Stop Learning-Ayman Sadiq
→ শেষ বিকেলের মায়াবতী♥ (২৪)
→ কলম্বাসের আমেরিকা আবিষ্কারের কথা।পর্ব-2
→ নাইন-ইলেভেন
→ জিজের সবার ভূত নিয়ে আলোচনা
→ ~স্টপ পর্ণোগ্রাফি(অন্ধকার জগৎ থেকে বের হয়ে আসুন আলের পথে)।

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...