গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app

সুপ্রিয় গল্পের ঝুরিয়ান ... গল্পেরঝুড়ি একটি অনলাইন ভিত্তিক গল্প পড়ার সাইট হলেও বাস্তবে বই কিনে পড়ার ব্যাপারে উৎসাহ প্রদান করে... স্বয়ং জিজের স্বপ্নদ্রষ্টার নিজের বড় একটি লাইব্রেরী আছে... তাই জিজেতে নতুন ক্যাটেগরি খোলা হয়েছে বুক রিভিউ নামে ... এখানে আপনারা নতুন বই এর রিভিও দিয়ে বই প্রেমিক দের বই কিনতে উৎসাহিত করুন... ধন্যবাদ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

অস্তিত্বের খোঁজে

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Nafisa Muntaha Riya (০ পয়েন্ট)



পর্ব-চার --চিৎকার শুনে এক মহিলা যার মাথা ভরতি সিদুর হাতে শাখা তিনি আমাকে দেখেই চিৎকার করে বলতে লাগলেন....হায় হায় এ আমার কি সর্বনাশ হলো।।বুড়ো বয়সে কি বিয়ের ভৃত চেপেছে মাথায়। এই বলেই তিনি জ্ঞান হারালেন। --সবাই মহিলাকে ধরাধরি করে তুলতে গেলো। --এবার ভদ্র লোকটি বেশ জুড়েই সবাইকে ধমক দিলেন। এক ধমকে সবাই চুপ হয়ে গেলো। পরিবারে লোকটির বেশ ধাপট আছে বলতে হবে। --তিনি সবাইকে বললেন। এ আমার বন্ধুর নাতনী।আজকে থেকে এখানেই থাকবে।পড়াশুনার জন্য এসেছে।আসার সময় মাথায় রং পড়েছে। আর আমার হাটুর বয়সি মেয়েকে কোন দুঃখে বিয়ে করতে যাবো।লজ্জা করেনা এসব বলতে। -- এই সব শুনে ওনার স্ত্রী চট করে চোখ খুলে বললেন আপনি সত্যি বলছেন। --বিমলা তুমি যে জ্ঞান হারানোর নাটক করছো সেটা আমি ভালো করেই জানি। --উনি আর কিছু না বলে আমাকে নিয়ে সোজা ছাদে আসলেন। সেখানে একটা রোম খুলে ভেতরে যেতে যেতে বললেন।তুমি যেহেতু মুসলমান।আমার স্ত্রী তুমাকে নিচে থাকতে দিবেনা।এখানে থাকতে পারবেনা? -- আমি গাড় নাড়িয়ে সম্মতি জানালাম। --কালকেই আমি এসি লাগিয়ে দিবো আর যাযা দরকার।এখন তুমি রেস্ট কর। এই বলে উনি চলে গেলাম। --বিশাল একটি অভিজাত বাসা।আমি ফ্রেস হয়ে এসে দেখি ওনাদের কাজের মেয়েটা খাবার নিয়ে দাড়িয়ে আছে। --শুনেছি তুমি নাকি মুসলিম ঘরের মেয়ে যেখানে সেখানে হাত দিবে।না হহয়আবার গঙ্গা জল দিয়ে ধুতে হবে। আর ঠাকোর ঘরে তো একদম যাবে না। --হুমমম।(দায় পড়েছে ঠাকুর ঘরে যেতে) -- আমি এই বাসায় বারো বছর ধরে কাজ করছি।সবাই পলা বলে ডাকে।নাও এবার খেয়ে নাও। --আমি বিসমিল্লাহ বলে খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে গেলাম।সন্ধ্যার পরে একটা মেয়ে এসে আমায় ডাক দিয়ে বললো এই তুমি এখনো ঘুমাচ্ছো।দিদুন দেখলে খুব বকবে। --চোখ মেলে দেখি একটা মেয়ে।আমি ওঠে বসলাম।তুমি কে? -- আমি অরপিতা।তুমার নাম কি? --রিয়া। --কিসে পড়ো তুমি? --ইন্টার ফাস্ট ইয়ার। -- চলো তুমাকে আমাদের বাসাটা দেখাই।এই বলে আমার সাত ধরে নিয়ে গেলো।মেয়েটি খুব মিশুক। এভাবে সাত দিন কেটে গেলো। --এই পরিবারটা বেশ।কিন্তু অরপিতার দিদুন আর মা আমায় সহ্য করতে পারেন না।এটা ব্যাপার না।চাচী কতবার ভাতের থালা হাত থেকে কেড়ে নিয়েছেন।তার কোনো হিসাব নেই। --আমি খাবার খেতে শুধু নিচে যায়।কারণ আমাকে দুজন লোক সহ্য করতে পারতো না।অরপিতা আর দাদু এসে আমার সাথে গল্প করে। --ঐকদিন সন্ধ্যায় আমি ছাদে বসে ছিলাম।তখন অরপিতা এসে বললো.....আমার মেজ ভাইয়া এসেছে তুমি দেখবে তাকে? --না অরপিতা।পরে দেখবো।আমার শরীর বেশ খারাপ। --ওকে দাদুকে পাঠিয়ে দিচ্ছি বলে চলে গেলো। --আমি রোমে গিয়ে শুয়ে পড়লাম।জ্বর আসা আসা ভাব। আটটার দিকে দাদু এসে বললো রিয়া তুমার নাকি শরীর খারাপ? --না তেমন কিছু না দাদু। --আচ্ছা নিচে চলো বলে আমাকে নিচে নিয়ে আসলো। --ডাইনিং টেবিলে আমি দাদুর পাশে বসি আর আমার পাশে অরপিতা।খাবার খাচ্ছিলাম।এমন সময় কেউ বলে উঠলো.... -- কি ব্যাপার অরপিতা আমাকে ছাড়াই খাচ্ছিস।আমার কন্ঠটা খুব চেনা মনে হলো।তাই উপরের দিকে তাকালাম তা দেখে আমার গলায় ভাত আটকে যাওয়ার মতো অবস্থা।আমি খুব জোড়ে বিষম খেলাম।কেননা এ আর কেউ নয় এটা সেই ছেলে যার জন্য আজ আমার এই অবস্থা......অভ্রু।ও এখানে কেনো?তার মানে এটা ওদেরই ভাসা।আমি আর কিছু ভাবতে পারছি না।চোখ দিয়ে শুধু পানি প ড়ছে। দাদু আমার দিকে পানি এগিয়ে দিলেন।কি আর পানি খাবো। --ছেলেটি আমার দিকে তাকিয়ে.... next coming......


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৫২৬ জন


এ জাতীয় গল্প

→ অস্তিত্বের খোঁজে
→ অস্তিত্বের খোঁজে
→ অস্তিত্বের খোঁজে
→ এক টুকরো সুখের খোঁজে -শেষ পর্ব
→ এক টুকরো সুখের খোঁজে -১
→ গোয়েন্দার খোঁজে
→ গল্প : #বড়লোক_এর_মেয়ের_খোঁজে !!!
→ বাসুকির সঙ্গীদের খোঁজে
→ আল্লাহর অস্তিত্বের প্রমাণ

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...