গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

সুপ্রিয় গল্পের ঝুরিয়ান গন আপনারা শুধু মাত্র কৌতুক এবং হাদিস পোস্ট করবেন না.. যদি হাদিস /কৌতুক ঘটনা মুলক হয় এবং কৌতুক টি মজার গল্প শ্রেণি তে পরে তবে সমস্যা নেই অন্যথা পোস্ট টি পাবলিশ করা হবে না....আর ভিন্ন খবর শ্রেনিতে শুধুমাত্র সাধারন জ্ঞান গ্রহণযোগ্য নয়.. ভিন্ন ধরনের একটি বিশেষ খবর গ্রহণযোগ্যতা পাবে

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

অপেক্ষার প্রহর

"সত্য ঘটনা" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান samia (০ পয়েন্ট)



আসছালামুওয়ালাইকুম ছোট ভাই ও বোনেরা। কেমন আছো তোমরা, আমি জিজেতে কখনো আসিনায় বা বলতে পারো জিজের কথা আমি জানতাম না আর আমার কোনো আইডি নেই জিজেতে তাই আমি আজ সামিয়া আইডিতে তোমাদের আমার জিবনের সাথে ঘটে যাওয়া কিছু শিয়ার করবো, আমি সামিয়ার কাছ থেকেই জিজের কথা জানলাম, আমার কষ্টের কথা তোমাদের জানাবো বলে লিখলাম,,,,,,, আমি জিম আমার বাড়ি খুলনায় আমি 2019 সালে বিএ পাস করি। বাড়িতে আমরা ৩ জন থাকি মা আমি আর আমার ছোট আমার বাবা ঢাকায় জব করে। আমি যখন বিএ১ বষে পড়ি তখন রং নাম্বারে মাগুরার একটা ছেলের সাথে পরিচয় হয়। ওর নাম আশিক রায়হান,, ও সোনালি ব্যাংকে চাকরি করতো। ওর সাথে কথা বলতে বলতে আমাদের প্রেম শুরু হয়। ২ মাস কথা বলার পরে আশিক বলে ও আমাকে বিয়ে করতে চায় আমি তো অবাক ও সত্যি আমাকে বিয়ে করবে তাও এতো তাড়াতাড়ি ,, ও আমাকে বলে আমি বিয়ের পরেও পড়ালেখা করতে পারবো,, আশিক ফোনে তেমন একটা কথা বলতে চাইতো না ওর নাকি ভালোও লাগতো না তাই বিয়ে করবে। তাছাড়া ও ভালো একটা জব করে ও বাড়ির বড় ছেলে ওর একটা বোন আচে ছোট,, তাই ওর বাবা মা চায়ছে ওকে বিয়ে করাবে বাবা রিটায়েড করছে,, আমাদের রিলেশনের কথা আমার চাচাতো ভাবিকে জানায় আশিক,।ভাবির মাধ্যমে আশিক লোক পাঠায় আমাদের বাড়িতে আশিকের বাবা বোন ও মামা আমাকে দেখতে আশে এবং পছন্দ ও করে আশিক চাই ওর মা যেনো আমাকে দেখে পছন্দ করে ওদের বাড়ি থেকে ওর মামা ছাড়া আর কেউ আমাদের রিলেশনের কথা জানতো না, আশিক চায় ওর মা আমাকে পছন্দ করে বউ করে নিয়ে যাক, কিছু দিনপরে ওর মাও আমাকে দেকতে আসে এবং পছন্দ করে বিয়ের কথা পাকা করে আমার বাড়ির লোকদের একবার ওদের বাড়িতে যেতে বলে,, আমার বাড়ির লোক ও ওদের বাড়ি ঘর দেখে সব কিছু পছন্দ করে,,, সবাই রাজি হয় আশিককে দেখে ,, আমাদের পরিচয় হয় ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে আর বিয়ে টিক হয় তার ৩ মাস পরে মানে ডিসেম্বর এর ২৫ তারিকে,,, তিন মাস প্রেম করছি মাএ,,, তারপরে বিয়ে হলো আমাদের বিয়েটাও হলো ধূমধাম করে,,, বিয়ে করে আশিক যখন আমাকে নিয়ে ওর বাড়ির উদ্দেশে রওনা হবে, তখন আমাদের গাড়ির চালক অসুস্হ হয়ে গেলো,,, আল্লা সবার ভ্যাগে সুখ লেখেনি,, হয়তো আমার কপালেও স্বামী, ভালোবাসা লেখে নায় তাইতো ডাইভার অসুস্হ হলো,, কিছুটা সুস্থ হলো আমরা আমার বাড়িও দিকে পাড়ি দিলাম,, বাড়ি যেতে আর ১ ঘন্টা লাগবেমঠীক তখনি চালক আরো বেশী অসুস্হ হলো তাই গাড়ি চালাতে পারলো না,,, আশিক গাড়িটা ড্রাইভ করলো কিছুদূর যাওয়ার পরে হঠাং একটা ট্রাক পিছন থেকে আমাদের গাড়িটা ধাক্কা দিলো সাথেসাথে আশিক ছিটকে পড়ে একটা বড় বট গাছের সাথে বাড়ি খেলো,,রক্তাতো অবস্থায় পড়ে থাকলো গাড়িতে আমরা ৫ জন ছিলাম সবাই কম বেশি আহত হলাম,,,, আমাদের গ্না হাড়ালাম একমাএ আশিকের মামা একটু অসুস্হ ছিলো তাই সবাইকে ফোন করে ডাকলো আর আশিকের তাড়াতাড়ি হসপিটালে নিয়ে গেলো,, প্রেতেকটা মেয়েই স্বপন দেখে লাল বেনারশি পড়ে বাসর ঘরে স্বামীর জন্য ওয়েট করবে কিন্তু দেখেন আমার কি কপাল আমি লাল বেনারসি পরে হসপিটালে গেলাম,, গ্যান ফিরলে চিংকার আশিক আশিক করে,,,সবাইতো আমার দোষ দিচ্ছে আমি নাকি হতভাগি আরো কতো কিছু তারপর আশিককে সেইদিনি ঢাকা মেডিকেলে নেওয়া হয়,,, কিন্তু ওর অবস্থা খুবি খারাপ ছিলো শুধু শ্বাস চলছিলো,, তাই ৩ দিন পর ওরে মেডিকেল থেকে ইবনেসিনায় শিপ্ট পরা হলো, সেখানে ও একি অবস্থা ৭ দিন পরে পঙ্গু হসপিটালে নিয়ে গেলো ওখানে মেডিকেল বোড বসানো হলো তারপরে অক্রিজেন ও স্যালাইন আর ঔষুধ দিয়ে ওর চিকিৎসা শুরু হলো কিন্তু ও একেবারে কমায় চলে য়াওয়ার মতো হয়ে গেছিলো,, ১৫ দিন পরে চোখ খুলে তাকালেও কোনো কথা বলতে বা নড়াচড়া করতে পারতো না,,, ৬ মাস পরে ওকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়া হলো,,আশিক আমার বিয়ের আগে ওর মাকে বলছিলো তুমি যাকে পছন্দ করে আনবে সে হাজার অন্যায় করলেবো তাকেবাড়িতেই রাখবে,, তাই আমার শাশুরি আমাকে একটা শাস্তি দিলো সেটা আমি আশিকের সাথে কলকাতায় জেতে পারবোনা আশিকের মা মামা আশিককে নিয়ে কলকাতায় গেলো হাজার কান্নার কাটি করেও আমি আশিকের সাথে যেতে পারলাম না,, একবুক কষ্ট বুকে নিয়ে থেকে গেলাম শশুর বাড়িতে,, বাপের বাড়িতে এখনো যাইনায়,,,জানুয়ারির ১০ তারিকে ওরা চলে গেলো আর আমি আশিকের ছবি নিয়ে দেরটা বছর কাদে কাদতে কাটিয়ে দিলাম শুধু নামাজ পরে আল্লাই কাছে এই দোয়াই করতাম আমার আশিক যেনো ভালো হয়েৃদেশে ফিরে, ২০১৯ সালের জুন মাসে আশিককে দেশে আনা হয় এখন পঙ্গু তে আছে হুইল চেয়ার তার সঙ্গি এখন ডাক্তার বলচে পূরো সুস্ত হবে হয়তোঅনেক দেরি হবে এখনো কথা বলতে পারেনা কিছু বললে বুঝতে পারে আর চোখ দিয়ে পানি পরে,,,,, আমি এখন সবসময় ওর পাশে থাকি। কয়দিন হলো বাড়িতে আনা হয়েচে ওকে তাই আমি এখনো ওর জন্য াঅপেক্ষা করছি ও যদি ভালো হয়,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,, ,, ,,,,,,,,, তাই আমি আপনার সকলের কাচে আশিকের জন্য দোয়া চাইছি আপনার দোয়া করবেন আশিক যেনো সুস্থ হয়ে ফিরে আসে আমার কাছে ওর পরিবারের কাছে,,,,,,,,,,,,,,,,,,, সংক্ষেপে লেখলাম একটু কষ্ট করে পড়ে নিবেন,,,,,, সবাই ানেক ভালো থেকো,,,,,, তোমাদের প্রতি আমার ভালোবাসা রইলো,,,,,,,, বাই


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৪০৯ জন


এ জাতীয় গল্প

→ ভয়ংকর প্রহরী
→ শেষ প্রহরের বিষণ্নতা
→ #♥অপেক্ষার প্রহর!!!
→ অপেক্ষার প্রহর
→ অপেক্ষার প্রহর
→ শেষ প্রহরের বিষণ্নতা...
→ শেষ প্রহরের আলো
→ শেষ প্রহর
→ অপেক্ষার প্রহর

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...