Deprecated: mysql_connect(): The mysql extension is deprecated and will be removed in the future: use mysqli or PDO instead in /var/sites/g/golperjhuri.com/public_html/gj-con.php on line 6
সেই দিনগুলো স্মৃতি হয়ে থাকবে

গল্পেরঝুড়িতে লেখকদের জন্য ওয়েলকাম !! যারা সত্যকারের লেখক তারা আপনাদের নিজেদের নিজস্ব গল্প সাবমিট করুন... জিজেতে যারা নিজেদের লেখা গল্প সাবমিট করবেন তাদের গল্পেরঝুড়ির রাইটার পদবী দেওয়া হবে... এজন্য সম্পুর্ন নিজের লেখা অন্তত পাচটি গল্প সাবমিট করতে হবে... এবং গল্পে পর্যাপ্ত কন্টেন্ট থাকতে হবে ...

সুপ্রিয় গল্পের ঝুরিয়ান গন আপনারা শুধু মাত্র কৌতুক এবং হাদিস পোস্ট করবেন না.. যদি হাদিস /কৌতুক ঘটনা মুলক হয় এবং কৌতুক টি মজার গল্প শ্রেণি তে পরে তবে সমস্যা নেই অন্যথা পোস্ট টি পাবলিশ করা হবে না....আর ভিন্ন খবর শ্রেনিতে শুধুমাত্র সাধারন জ্ঞান গ্রহণযোগ্য নয়.. ভিন্ন ধরনের একটি বিশেষ খবর গ্রহণযোগ্যতা পাবে

সেই দিনগুলো স্মৃতি হয়ে থাকবে

"মজার গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Eshrat Jahan (২৭৩ পয়েন্ট)



কে যেন ডাকলো।পিছনে তাকিয়ে দেখি রিফাহ।আমি বললাম"কি বলিস?" রিফাহ বলল"সুবর্ণাকে খুঁজে পাচ্ছি না।" আমি বললাম"কেন?কোথায় গেলো সুবর্ণা?" "জানি নারে।ইশাও খুঁজছে।" ইশা পিছন থেকে বলে উঠলো"ইসরাত সুবর্ণাকে সত্যিই পাওয়া যাচ্ছে না।" আমি ইশার দিকে তাকিয়ে বললাম "কোথায় গেল?আমি খুঁজে দেখছি।সায়েন্সের রুমে দেখেছিস?" রিফাহ বলল"হ্যা ইসরাত।" "আমি একবার দেখছি।" খুঁজছি সুবর্ণাকে।স্কুলে তো এসেছে।তাহলে?তাহলে কোথায় গেলো?বাইরে গেল নাকি?পুরা স্কুল খুজলাম।কিন্তু নেই।রিফাহ আর ইশাকেও তো এখন দেখছি না।তাহলে কোথায় গেল সবাই?হঠাৎ কোথায় থেকে যেন শুনলাম কেউ ডাকলো।সুবর্ণার কন্ঠ।আমি চারদিকে তাকিয়ে দেখছি কে ডাকলো।কোথায় সুবর্ণা।আবার শুনলাম।ওহ হ্যা আমি তো আমাদের ক্লাসে দেখিনি।ক্লাস রুমের জানালা দরজা সব বন্ধ।আমি ক্লাস রুমে ঢুকলাম।অন্ধকার।বোর্ডের দিকে তাকিয়ে আছি।পিছন থেকে সুবর্ণা বলে উঠলো "Happy Birthday Eshrat." তখনি সবগুলো লাইট জ্বলে উঠলো।সবাই আমার কাছে আসলো।দেখলাম টেবিলে কেক।ভাবলাম তাহলে সুবর্ণা হারিয়ে যায়নি।আমার জন্য এত কিছু।তারপর কেক কাটলাম।তারপর অনেক আনন্দ করলাম।পরদিন স্কুলে গেলাম।ব্যাগটা রেখে ক্লাস থেকে বাইরে এলাম।দেখলাম ইভা আসছে।আমি ইভার কাছে গেলাম।বললাম"হাই ইভা।" ইভা বলল "ওহ হাই ইভু।" "চল ক্লাসে।" আমি আর ইভা ক্লাস রুম থেকে বের হয়ে এলাম।আমি বললাম "ইভারে।" "কিরে ইসরাত?" "একটা জিনিস ভাবছি।হিহিহি।" "কে ভেবেছিস?" "ভাবছি ঐশী এলে তাকে সায়েন্সের রুমে নিয়ে যেয়ে বাইরে থেকে আটকে দিবো।ওই দেখ ঐশী।" "আচ্ছা।হিহিহি।" ঐশী এলো।আমি বললাম"এই ঐশী চল সায়েন্সের রুমে যাই।" ঐশী আমি আর ইভা গেলাম।সায়েন্সের রুমের ঢুকলাম।আমি বাইরে এসে বললাম"এই ইভা শোন।" ইভা এলো।আমি তখনি বাইরে থেকে লাগিয়ে দিলাম।ঐশী চিল্লাচিল্লি শুরু করে দিলো।আমি বললাম "থাক।ছুটি পর্যন্ত।" ঐশী ঐপাশ থেকে বলল "এই দুই ইভা কি শুরু করছিস?খুলে দে।" ইভা বলল "পরে।" এইদিকে সুমাইয়া বলল"চল বাথরুমে যাই।" সুমাইয়ার সাথে গেলাম।সুমাইয়ার সাথে বাথরুমে যাওয়ার কারণ তাকেও বাথরুমে বন্দি করে রাখবো।আমি গেট বাইরে থেকে আটকে দিয়ে সে গেলাম।সুমাইয়া চিল্লাচিল্লি শুরু করে দিয়েছে।সায়েন্সের রুমের গেট খুলে দিলাম।ঐশী রাগান্বিত হয়ে আমার কাছে এলো।জুতা খুলে আমার পিছে পিছে দৌড়াতে লাগলো।আমি দৌড়াতে রিফাহর সাথে ধাক্কা খেলাম।রিফাহ বলল"কিরে এভাবে দৌড়াস কেন?" "ঐশী।" এই বলে আবার দৌড়াতে লাগলাম।রিফাহ ঐশীর কাছে সব শুনল।আমি দেখলাম সুমাইয়া।আমার হাত ধরে ফেললো।বলল"কিরে তুই আটকে রেখেছিলি কিসের জন্য।" "এমনি।" "খালি ফাজলামি।" "আরে ফাজলামি না করলে এই দিনগুলো স্মৃতি হয়ে থাকবে কেমন করে।"


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৪৯৮ জন


এ জাতীয় গল্প

→ সেই মেয়েটি
→ সেই তুমি
→ বোকা সেই ছেলেটা
→ আনন্দময় দিনগুলো
→ শিমুলতলার স্মৃতি
→ ক্রিকেটের স্মৃতি
→ মেজোভাইয়ের স্মৃতি ২
→ মেজোভাইয়ের স্মৃতি
→ সেই মেয়েটি

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...