গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app

যাদের গল্পের ঝুরিতে লগিন করতে সমস্যা হচ্ছে তারা মেগাবাইট দিয়ে তারপর লগিন করুন.. ফ্রিবেসিক থেকে এই সমস্যা করছে.. ফ্রিবেসিক এ্যাপ দিয়ে এবং মেগাবাইট দিয়ে একবার লগিন করলে পরবর্তিতে মেগাবাইট ছাড়াও ব্যাবহার করতে পারবেন.. তাই প্রথমে মেগাবাইট দিয়ে আগে লগিন করে নিন..

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

গোছো ভূতের ক্রিকেট খেলা

"ছোটদের গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Md: Atiqur Rahman Atik (৬ পয়েন্ট)



বই: ক্রিকেটপাগল গেছো ভূতের বাচ্চা, লেখক: নিশাত সুলতানা, প্রকাশনী: সময় প্রকাশন, প্রথম প্রকাশ: ২০১৯, পৃষ্ঠাসংখ্যা: ৪৬, মূল্য: ১০০ টাকা নিশাত সুলতানা অনেকদিন থেকেই শিশু-কিশোরদের নিয়ে লিখছে। লিখতে লিখতে হাতটা এমন পাকিয়েছে যে, যে কোন বিষয় নিয়ে এখন তার লেখনি একটা চমৎকার কাহিনী তৈরি করে ফেলতে পারে। নিশাতের এই প্রতিভাটি কিছুদিন হল আমার নজরে এসেছে বইমেলা ২০১৮ তে তার প্রকাশিত দু’একটি বই পড়ে। তার নতুন এক প্রকাশের সাথে পরিচয় হল গত বইমেলায় প্রকাশিত ’ক্রিকেটপাগল গেছো ভূতের বাচ্চা’ বইটি পড়ে। কি সহজে সে ভূতদের টেনে নিয়ে গেল ক্রিকেটের স্টেডিয়ামে এবং আমাদের দেশের অসংখ্য কিশোর-কিশোরীর আনন্দের একটা জায়গায় নতুন কিছু আনন্দের সঞ্চার করল। গল্পের কাহিনীটা সরল, যেরকম সরল হলে নিশাতের ক্ষুদে পাঠকেরা এর সঙ্গ ছাড়বে না। ‘ভুতু’ নামের এক বাচ্চা গেছো ভূতের শখ ক্রিকেট খেলার, কিন্তু ভূতের বাচ্চারা ক্রিকেট খেলে না। খেলতে না পেরে ভুতুর মন পড়ে থাকে ক্রিকেটের মাঠে আর ম্যাচে। একদিন সে শুনল, ঢাকায় ক্রিকেট খেলা হবে আর সে খেলায় খেলবে গ্রামে বেড়াতে আসা শহরের ছেলে মন্টু। মন্টু ভাল খেলে, টি-টোয়েন্টিতে তার দল জেতার কথা। মন্টুর দাদু ঢাকা যাবে মন্টুর খেলা দেখতে। ভুতুর জেদ চাপল সে ঢাকা যাবে। মাকে অনেক চেষ্টায় রাজি করালো। মা চাননি, কিন্তু ভুতুর পীড়াপীড়িতে রাজি হলেন তাকে যেতে দিতে। কিন্তু সঙ্গে একটা যাদুর আয়না দিলেন, যা ভূতেদের এন্ড্রোয়েড ফোনের মত, যাতে সে মায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে। ভুতু লাফিয়ে লাফিয়েই ঢাকা যেতে পারত, কিন্তু মন্টুর দাদুর সঙ্গে সে গেল বাসে। পথে নানান মজার ঘটনা ঘটল। খেলার দিন ভুতুকে যখন শেষ বলে মন্টুকে জেতার জন্য চার মারতেই হবে, ভুতু তাকে সাহায্য করল। ভূতেদের যেহেতু দেখা যায় না, তাই এই কাণ্ড কেউ জানল না, মন্টুরা জিতে গেল। মাঠের উত্তেজনায় ভুতু অবশ্য জাদুর আয়নাটি হারিয়ে ফেলল। ফলে মন্টুর সঙ্গে বাড়ি ফিরে সে পড়ল মহাবিপদে। এদিকে লুকিয়ে আইসক্রিম খেয়ে ভুতুর শরীর ভীষণ খারাপ। একসময় সে এমন হতাশ হয়ে পড়ল যে সে মন্টুর কাছে দৃশ্যমান হবার সিদ্ধান্ত নিল। মন্টু অবশ্য ভুতুকে দেখে ভয় পেল না; বরং একজন বন্ধুর মতই দেখতে শুরু করল। সে বুঝল ভুতুর জন্যই তার দল জিতেছে। যাদুর আয়নার কথা উঠতেই মন্টু বলল, খেলার মাঠে সেটি পড়ে থাকতে দেখে সে তুলে নিয়ে এসেছে। ফলে ভুতুর সঙ্গে তার মায়ের যোগাযোগ হল। তিনি এসে ভুতুকে বাড়ি নিয়ে গেলেন। মন্টুর সঙ্গে ভুতুর বন্ধুত্বটা স্থায়ী হল, ক্রিকেটের সঙ্গেও। নিশাত ভুতুকে ক্যাসপারের মত ’ফ্রেন্ডলি ঘোস্ট’ হিসেবে দেখিয়েছে। চমৎকারভাবে তার উপস্থাপনা করেছে। গল্পটা লিখেছে টানটান একটা উত্তেজনা বজায় রেখে, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের মতো। আমার তো মনে হয় ’ক্রিকেটপাগল গেছো ভূতের বাচ্চা’ নিয়ে নিশাত একটা ছক্কা মেরেই বসল। আমি নিশ্চিত ক্ষুদে পাঠকেরা বইটা পড়ে হাততালি দেবে, আর ৪-৬ লেখা প্ল্যাকার্ড তুলে বলবে আরো ৬ চাই। নিশাত সুলতানা যেন ব্যাট গুটিয়ে না রাখে, গ্লাভস তুলে না রাখে।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৪৯১ জন


এ জাতীয় গল্প

→ ক্রিকেটের ব্যাটিং
→ অভিশপ্ত ভূতের পুকুর
→ ক্রিকেট খেলার তথ্য
→ বাংলাদেশ ক্রিকেটের কাল্পনিক কিছু কথা।
→ ভূতের পাথর
→ ভূতের মিষ্টি
→ খেলা থেকে যুদ্ধঃ(০৩)
→ খেলা থেকে যুদ্ধঃ(০২)
→ খেলা থেকে যুদ্ধঃ(০১)
→ ক্রিকেটের স্মৃতি

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...