গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app

সুপ্রিয় গল্পের ঝুরিয়ান ... গল্পেরঝুড়ি একটি অনলাইন ভিত্তিক গল্প পড়ার সাইট হলেও বাস্তবে বই কিনে পড়ার ব্যাপারে উৎসাহ প্রদান করে... স্বয়ং জিজের স্বপ্নদ্রষ্টার নিজের বড় একটি লাইব্রেরী আছে... তাই জিজেতে নতুন ক্যাটেগরি খোলা হয়েছে বুক রিভিউ নামে ... এখানে আপনারা নতুন বই এর রিভিও দিয়ে বই প্রেমিক দের বই কিনতে উৎসাহিত করুন... ধন্যবাদ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

সন্ধ্যামালতী গাছটা

"ছোটদের গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান mim (০ পয়েন্ট)



★লেখকঃ মিম★ মিনাকে তো আপনারা চেনেনই। ওর ছোট বোনের নাম কনা। ভারি মিষ্টি মেয়ে। ভীষণ পাকাও। ওর আবার ফুলের প্রতি ভীষণ টান। রঙিন ফুল খুব পছন্দ করে। সেদিন পাশের বাড়ির পূজার কাছ থেকে ও একটা সন্ধ্যামালতি গাছ চেয়ে এনেছিল। পূজা ওর খেলার সাথী। সন্ধামালতি গাছটা ও নিজের হাতে লাগিয়েছিল। ওর এই ফুলগাছ খুবই পছন্দ। কারন সন্ধ্যামালতী বিভিন্ন রঙের হয়ে থাকে।সন্ধ্যামালতীর অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য হল এতে একটি গাছেই বিভিন্ন রঙের ফুল ফুটতে পারে। শুধু তাই না, মাঝেমাঝে একই ফুলে বিভিন্ন রঙ দেখা যায়। কনা গাছটা লাগিয়ে তাতে পানি দিল। পরে শোলা দিয়ে বেড়া দিয়ে দিল। ওর সব ধ্যান ধারনাই যেন ঐ গাছটা হয়ে গেছে। যাই হোক ওর অক্লান্ত পরিশ্রমে আর যত্নে একদিন গাছটাতে খানিকটা আশার আলো নিয়ে একটা কুড়ি গজাল। ও তো খুশিতে আটখানা। সবাইকে বলে বেড়াল জানো আমার সন্ধ্যামালতি গাছে না ফুল ফুটবে। এভাবে কিছুদিন যাবার পর ফুলটি প্রায় ফুটবে ফুটবে ভাব এমন সময় ঘটল এক হৃদয়বিদারক ঘটনা। সেদিন বিকেলে ও গাছটাতে পানি দিয়ে খানিকক্ষন চেয়ে রইল কড়িটার দিকে। তারপর খেলতে চলে গেল।এদিকে পাশের বাড়ির রিমিদের ছাগল এসে গাছটাকে একদম মুড়ো করে খেয়ে ফেলল। পরে কনা এলে ওর কান্না আর থামায় কে। চকলেট পুতুল কোনোকিছুরই লোভে ওকে থামানো গেল না। দুদিন বসে ছিল ঐ খেয়ে যাওয়া সন্ধ্যামালতী গাছের সামনে।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১৮২ জন


এ জাতীয় গল্প

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...