গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

গল্পেরঝুড়িতে লেখকদের জন্য ওয়েলকাম !! যারা সত্যকারের লেখক তারা আপনাদের নিজেদের নিজস্ব গল্প সাবমিট করুন... জিজেতে যারা নিজেদের লেখা গল্প সাবমিট করবেন তাদের গল্পেরঝুড়ির রাইটার পদবী দেওয়া হবে... এজন্য সম্পুর্ন নিজের লেখা অন্তত পাচটি গল্প সাবমিট করতে হবে... এবং গল্পে পর্যাপ্ত কন্টেন্ট থাকতে হবে ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

জমজ বউ

"রোম্যান্টিক" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান জাকারিয়া আহমেদ (০ পয়েন্ট)



----- আজ আমি খুবই খুশি কারণ আজ আমি বাবা হলাম তাও একসাথে চারজন ছেলেমেয়ের বাবা। ভাবতেই অবাক লাগতেছে। এত খুশিযে কোথায় রাখব খুজে পাচ্ছি না। ----- অহ আপনারা কিছুই বুঝতাছেন না। এটাই স্বাভাবিক। আচ্ছা একটু ওয়েট করেন বাচ্চাদের মা-দের সাথে একটু কথা বলে তাদের কাছে বাচ্চা গুলি কে দিয়ে আসতেছি। আর মিষ্টি কিনতে যেতে যেতে আপনাদের সব বুঝিয়ে বলতেছি। ------- চলেন মিষ্টির দোকান এ। আরে আরে আপনাদের না ত। আমাদের গাড়ির ড্রাইভারকে বললাম। যেতে যেতে আপনাদের সব ক্লিয়ার করে বলতেছি। ------- আমি মুশফিকুর রহমান (শুভ)। সংক্ষেপে MS. আমি পড়ালেখা শেষ করে একটি কোম্পানিতে মোটামোটি ভাল সেলারির একটি জব করি। আমার বাবা একজন বড় ব্যাবসায়ী। দুটি কোম্পানির মালিক। তবুও আমি তার কোম্পানিতে এত তারা তারি কাজ করতে চাই না। তাই আমি নিজের যোগ্যতা দিয়ে যেখানে জব পেয়েছি সেখানে চাকরি করতেছি। এবং আমি সাধারণ ভাবে থাকতে ভালবাসি।তাই বাসে যাতায়াত করি। এখন মূল গল্পে আসা যাক। --- একদিন মাত্র বাসে গেটে উঠেছি তখনি পিছনে দেখালাম একটি মেয়ে দৌড়ে আসছে। ভাগ্যবশত কন্ডাক্টর বাসের পিছনে ছিল। আর জানেন ই ত ঢাকায় গাড়ি দৌড়ের ওপর থাকে। ত আমি ড্রাইভার কে বললাম আংকেল একটু অয়েট প্লিজ কিন্তু পিছনে গাড়ির জন্য ওয়েট করতে পারছিল না। মেয়েটি দৌড়ে গাড়ির প্রায় কাছাকাছি তখনই গাড়িটির স্প্রিড একটু বেড়ে যায়। আমি তখন জানি না কি ভেবে যেন হাত টা বাড়িয়ে দিলাম এবং মেয়েটি ও অবাক করে আমার হাত টি ধরে ফেললো তখনি পিছনের জানলা দিয়ে কলেজ ছাত্র মাথা বের করে বলতেছে ' ভাগ সিমরান ভাগ, জিলে আপনি জিন্দেগী '। আমি কোনমতে টেনে উঠালাম। তারপর মনে মনে সেই গান " তুঝে দেখা ত ইয়ে জানা সানাম,পিয়ার হতা কিয়া হে দিবানা সানাম"। মেয়েটি বলল অনেকক্ষন ধরে ওয়েট করতেছিলাম কিন্তু গাড়ীটি আসতেছিল না। এটা মিস করলে জানি না আর ও কত লেইট হতো তাই এভাবে দৌড়ে এসে উঠলাম। আমি বললাম ইটস ওকে। আমি ভিতরে কন্ডাক্টর কে বললাম ভাই দেখেন ত কোন সিট খালি আছে কিনা?। তখন বলল না তবে একটু পর খালি হবে সামনে থেকে একজন বলল আমি সামনে ই নামব। আমি তখন বললাম ভাইয়া একটু কষ্ট করে উঠে আপুটিকে বসতে দিবেন প্লিজ। তখন লোকটি বলল অবশ্যই আসুন। আপনি সিটে গিয়ে বসে পড়ুন এভাবে বাসের গেইট আপনার মুখোমুখি দারিয়ে থাকতে লজ্জা লাগছে। মেয়েটি ও লজ্জা পেয়ে উপরে উঠে সিটে গিয়ে বসল। সেদিন আর কথা হয় নি।আমি আমার স্টপেজ এ নেমে গেছি। মেয়েটি মনে হয় আর ও দূরে যাবে। ----- তার পর আবার একদিন অফিসে যাওয়ার সময় মেয়েটির সাথে দেখা হল।কিন্তু আজ সেভাবে না। মেয়েটি সিটে ই বসা ছিল। জানি না দেখছে কিনা। পাশের সিট টা খালি ই ছিল কিন্তু বসতে সংকোচ বোধ করতে ছিলাম তাই পিছের দিকে যাচ্ছিলাম তখনই কে যেন হাত ধরলো। আমি তাকিয়ে ত অবাক মেয়েটি হাত ধরলো কিন্তু আমার দিকে না তাকিয়েই হাত ধরে টান দিয়ে তার পাশে বসাল। এরপর মেয়েটি বলল সরি। আমি বললাম কেন তখন বলল সেদিন এত কিছু করলেন পরিচয় টা জানতে পারলাম না আর ধন্যবাদ টি ও দিতে পারলাম না। আমি বললাম ইটস অকে।ত এখন পরিচিত হতে পারি আমরা। হ্যা অবশ্যই। আমি আনহা। অনার্স ১ম বর্ষে পরতেছি।আমাদের বাসা অমুক যায়গায়। আমার বাসায় আমার বাবা মা আর এক বোন আছে। এখন আপনি বলুন। আমি ও বললাম সত্যি মিথ্যা দিয়ে পরিচয় টা। আনহা আমার আগে ই নেমে গেল নামার আগে তার এফবি আইডিটা জেনে নিলাম। নামার সময় একটি মুচকি হাসি দিল। যা আমার হার্ট কে ভাইলেন্ট করে দিয়ে গেল ---- অফিসে কোন কাজে মন বসতেছিল না ভাল লাগতেছিল না। শুধু আনহার মুখ টি ভেসে যাচ্ছিল সামনে দিয়ে। পাশের মেয়ে কলিগ দের দিকে তাকালেই মনে হয় সেটা আনহা। তাই কিছু ঘটার আগেই বের হয়ে বাসায় এসে পরলামম। কিন্তু আসার সময় আর আজ আনহার সাথে দেখা হই নাই। ----- রাতে এফবি তে গিয়ে আইডি টা খুজে বের করলাম। কিন্তু দুটি আইডি এক সাথে একই নামে একই প্রোফাইল পিক। তখন একটায় আনহার পিক দিয়া আছে তার ফেন্ড দের সাথে। ত সেটাই রিকু দিলাম এবং অপেক্ষায় থাকলাম এবং একটু পর এক্সেপ্ট হলো। (( আমার প্রোফাইল এ কোন পিক দিয়া ছিল না আর আমি গল্প লিখতাম। আমি ভাবলাম যে মেয়েটিকে একটু টেষ্ট করা যাক দেখি কেমন তাই অপরিচিত ই থাকলাম তার কাছে।)) ---- কথা বলতে বলতে এফবিতে ভাল ফ্রেন্ড হয়ে গেলাম আমরা। আর অর নাকি আমার গল্প অনেক ভাল লাগত। অনেক কেয়ার করত আমাকে। এগুলা আমার অনেক ভালো লাগত। ওই আমাকে দেখতে চেয়েছিল কিন্তু আমি বলছিলাম এখন না একটি সারপ্রাইজ এর মাধ্যমে দেখা করবো। নাম্বার ও চেয়েছিল কিন্তু দেইনি। এইভাবে এফবিতে ওর সাথে দুষ্টু মিষ্টি ভাবে চলতে থাকলাম। ---- অপরদিকে আনহার সাথে আমার সরাসরি দেখা হতে লাগল এবং বলেছিল এফবি তে রিকু দিয়েছিলাম কিনা? আমি তখন না বললাম এবং বললাম যে এফবি চালাই না। তখন ওর কাছে থেকে নাম্বার টা নিয়ে আসলাম। আমরা ভাল ফ্রেন্ড হয়ে গেলাম। প্রায় ফোনে কথা হতো। ফোনে ও তানহা ঠিক এফবির মত না এফবির থেকেও বেশি কেয়ার করত। সবসময় একসাথে গেতাম, আসতাম, ঘুরতাম। ---- একদিন আনহাকে বললাম যে সে কি কাওকে ভালবাসে নাকি??? তখন বললো যে হ্যা, সে একজনকে অনেক ভালবাসে। (তখন গোলমাল এগেইন এর অজয় দেবগন জানল তার প্রেমিকা ভূত তখন ক্যামেরা নিয়ে যে ঘুরনি টা মারল আমার ও সেই অবস্থা। ঘুরতাছি আর ঘুরতাছি।) আনহা বলতাছে সবসময় পাশে থাকে অনেক কেয়ার করে। ইটিসি ইটিসি। আমি গান গাওয়া ধরলাম মনে মনে ফাইটা যায় বুকটা ফাইটা যায়।আমার চোখের সামনে দিয়ে হাইটা যায়, ফাইটা যায়। বাহ ভাল গান পারেন ত। কিন্তু এমন ফাইটা যাওয়া গান গাইতাছেন কে? অহ শিট মনে মনে এত জোরে গাইলাম যে ও শুনে ফেলল। সেদিন আর কিছু না বলে এসে পরলাম। -- স্যার এসে পরেছি । মিষ্টির দোকান এ আইয়া পরলাম। গিয়ে ৫০ কেজি রসগোল্লা অর্ডার করলাম। -- আপনারা কি দেখেন। কেমন লাগল এতটুকু জানাইবেন। না জানাইলে কিন্তু মিষ্টি ও দিমু না আর বাকিটুকু ও কমু না। আর বাকিটুকু তে ই আসল কাহিনি। আমি কইটা মিষ্টি খাইয়া নেই। বলেন কেমন লাগল নয়ত যাওয়ার সময় বাকিটুকু বলব না। উলটা মিষ্টি দেখাইয়া দেখাইয়া খাইতে খাইতে


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ৯২০ জন


এ জাতীয় গল্প

→ ডিম দেওয়া বউ
→ ওই মেয়ে তুমি কি আমার বউ হবা?////
→ বউয়ের ফেইসবুক আইডি থেকে।
→ অফিস কলিগ এখন বউ
→ ঈমানদার বউ
→ মোটা মেয়েটি যখন বউ
→ শাকিলের দাজ্জাল বউ-শেষ পর্ব
→ বউয়ের রোমান্টিক অত্যাচার
→ বউয়ের রোমান্টিক অত্যাচার
→ বউয়ের রোমান্টিক অত্যাচার পর্ব ২

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...