গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app
গল্পেরঝুড়ি ফানবক্স ! এখন গল্পের সাথেও মজাও হবে! কুইজ খেলুন , অংক কষুন , বাড়িয়ে নিন আপনার দক্ষতা জিতে নিন রেওয়ার্ড !

সুপ্রিয় গল্পের ঝুরিয়ান ... গল্পেরঝুড়ি একটি অনলাইন ভিত্তিক গল্প পড়ার সাইট হলেও বাস্তবে বই কিনে পড়ার ব্যাপারে উৎসাহ প্রদান করে... স্বয়ং জিজের স্বপ্নদ্রষ্টার নিজের বড় একটি লাইব্রেরী আছে... তাই জিজেতে নতুন ক্যাটেগরি খোলা হয়েছে বুক রিভিউ নামে ... এখানে আপনারা নতুন বই এর রিভিও দিয়ে বই প্রেমিক দের বই কিনতে উৎসাহিত করুন... ধন্যবাদ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

লাশ ১ম পর্ব

"ভৌতিক গল্প " বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান জাকারিয়া আহমেদ (০ পয়েন্ট)



হঠাৎ করেই ফোন টা বেজে উঠলো।অপর পাশে ভেসে উঠলো সেই পরিচিত আওয়াজ,"স্যার আজকে একটা লাশ পাওয়া গেছে।"শুনে একটু খুশিই হলেন মি আসাদ। মি আসাদ একটি মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক।লাশ কাটার ব্যাবহারিক করানোর জন্য তার একটি লাশের দরকার ছিলো আজ,তা পেয়েও গেলেন। আজ ঈশানদের গ্রুপের ব্যবহারিক।ওদের গ্রুপে আছে ছয়জন।ঈশান ছাড়াও আছে রবিন,ফারুক,বিদি শা,আছিফ ও কেয়া।ঈশান মি আসাদের সবচেয়ে প্রিয় ছাত্র।তাই লাশ পাওয়ার খবর মি আসাদ ঈশানকে জানিয়ে দিলো।ঈশান এতে বেশ খুশিই হলো এবং তার গ্রুপের সকলকে জানিয়ে দিলো।যদিও ঈশান খুশি ছিলো তার অন্য কোনো গ্রুপ মেম্বার অতটা খুশি ছিলোনা।কেননা তারা আগেও মি আসাদের সাথে ব্যবহারিক করেছে আর সে ব্যবহারিক মোটেও সুখকর ছিলোনা।তবে কে জানতো আজকের রাতটি তছনছ করে দিবে তাদের জীবন। রাত ১টা।সকল কাজ সেরে ব্যবহারিক শুরু করতে একটু দেরী হয়ে গেলো।একে একে গ্রুপের ছয় জনই চলে এলো।এবার ব্যবহারিক শুরু করতে হবে।এখনো কেউ ব্যবহারিকের জন্য আনা লাশটি দেখিনি।সবার আগে মি আসাদ লাশের মুখের উপরের কাপড়টি সরালেন।কিন্তু এরপর যা দেখলো তাতে সকলের কলজে শুকিয়ে গেলো।এমনকি মি আসাদেরও। এমন ভয়ানক লাশ আগে কখনো দেখেননি মি আসাদ।তিনি অনেক ছাত্রদের ব্যবহারিক করিয়েছেন,তবে এমন লাশ এটাই প্রথম। লাশটির চোখ গুলো উপরানো।একটি হাত কাটা,শরীরের প্রায় অর্ধেক মাংস বেরিয়ে এসেছে।আর তাতে বাজে দুর্গন্ধ বেড় হচ্ছে।লাশ দেখে সকলেই খুব ভয় পেয়ে যায়।তারা সকলেই ব্যবহারিক বাতিল করার জন্য মি আসাদকে অনুরোধ করে। তবে মি আসাদ নাছোড়বান্দা।সে সেই জঘন্য লাশটাই কেটে দেখাতে চাইলেন। প্রত্যকেই খুব ভীত হয়ে পড়েছে।তবে ঈশান প্রথমে একটু ভয় পেলেও এখন স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। মি আসাদ লাশ কাটা শুরু দিলেন।সকলে তাকে সাহায্য করতে লাগলো। কিছুক্ষণ পর মি আসাদের মনে হলো লাশটা যেনো নড়ছে। ভাবলেন এটা নিছকই তার মনের ভুল।এমনটা কখনোই হতে পারেনা। তবে বেশিক্ষণ সে এই বিস্বাসে অটুট থাকতে পারলোনা।সে সত্যিই খেয়াল করলো লাশটা নড়ছে।বিষয় টা সকলেই লক্ষ করলো।মি আসাদ তাদের ভয় কাটাতে বললেন এটা তাদের মনের ভূল।রাত অনেক হওয়ায় তাদের ঘুম পেয়ে গেছে আর তাতেই এমন হচ্ছে।কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই ঘটলো এক ভয়ানক ঘটনা। লাশটা হঠাৎ করে উঠে বসে আর বলে, "তোরা সবাই মরবি"।এ ঘটনার পর কেউ আর লাশটির কাছে থাকলোনা।সকলেই বেরিয়ে আসতে লাগলো। তবে একি সব দরজা বন্ধ।তারা যে হাসপাতালে ব্যবহারিক করছিলো সেই হাসপাতালটি তো ২৪ ঘন্টাই খোলা থাকে। তবুও তারা দেখলো হাসপাতালে কোনো লোকজন নেই।তারা অবাক ও বিচলিত হয়ে পরলো।হাসপাতাল এর বের হওয়া যায় এমন সব জায়গাই তাদের চেনা। তারা সব দরজাই দেখতে লাগলো।তবে সব দরজাই বন্ধ।বাইরে বের হওয়ার কোনো উপায় নেই।এমন সময় তারা সেই গন্ধটা টের পেলো। কোথা থেকে যেন ভেসে আসছিলো একটি আওয়াজ যেটি বলছিলো তোরা সবাই মরবি" এইটুকু বলেই একটু থামলেন সাফি মামা। পরিচয় করিয়ে দেই,এতক্ষণ যে মি আসাদের কথা শুনছিলেন সাফি মামা সেই মি আসাদের বন্ধু।মি আসাদের কাছেই তিনি এ ঘটনা শুনেছেন।তিনি আবার বলতে লাগলেন, "এবার যা বলবো তা তুই চিন্তাও করতে পারবিনা। লাশটা তাদের সকলের দিকে এগিয়ে আসছে। এদিকে দরজাও বন্ধ। হঠাৎ মি আসাদ দেখলেন..................... ....................চলবে.....................


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ২১৯ জন


এ জাতীয় গল্প

→ অবনীল(পর্ব-৭)
→ "এখনও আমি অপেক্ষা করছি তোমার জন্য!!!" পর্ব-১
→ অ্যামাজনে কয়েকদিন (পর্ব ৬)
→ অ্যামাজনে কয়েকদিন (পর্ব ৬)
→ অভিশপ্ত আয়না পর্ব৪:-
→ অভিশপ্ত আয়না পর্ব৩:-
→ "আনিকা তুমি এমন কেন?"[২য় তথা শেষ পর্ব]
→ অভিশপ্ত আয়না পর্ব২:-
→ জিজেসদের নিয়ে সারার মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন[দ্বিতীয় পর্ব]
→ ইউনিকর্ন(পর্ব_২)

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...