গল্পেরঝুড়ির এ্যাপ ডাউনলোড করুন - get google app

যারা একটি গল্পে অযাচিত কমেন্ট করছেন তারা অবস্যাই আমাদের দৃষ্টিতে আছেন ... পয়েন্ট বাড়াতে শুধু শুধু কমেন্ট করবেন না ... অনেকে হয়ত ভুলে গিয়েছেন পয়েন্ট এর পাশাপাশি ডিমেরিট পয়েন্ট নামক একটা বিষয় ও রয়েছে ... একটি ডিমেরিট পয়েন্ট হলে তার পয়েন্টের ২৫% নষ্ট হয়ে যাবে এবং তারপর ৫০% ৭৫% কেটে নেওয়া হবে... তাই শুধু শুধু একই কমেন্ট বারবার করবেন না... ধন্যবাদ...

সুপ্রিয় গল্পেরঝুরিয়ান... জিজেতে আজে বাজে কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন ... অন্যথায় আপনার আইডি বা কমেন্ট ব্লক করা হবে... আর গল্প দেওয়ার ক্ষেত্রে গল্প দেওয়ার নিয়ম মেনে চলুন ... সার্বিকভাবে জিজের নীতিমালা মেনে চলার চেস্টা করুন ...

বোকার চালাকি

"ছোটদের গল্প" বিভাগে গল্পটি দিয়েছেন গল্পের ঝুরিয়ান Suborna Akhter Zhumur (০ পয়েন্ট)



এক গ্রামে দুই ভাই ছিল। জন্মের সাথে সাথেই তাদের মা মারা যায়, আর যুবক বয়সে বাবাও চলে গেলেন পৃথিবী ছেড়ে। তবে মারা যাওয়ার আগে তিনি তিনটি সম্পদ রেখে গেলেন দুই ছেলের জন্য। সেগুলো হচ্ছে : একটি তাল গাছ, একটি দুধের গাভী এবং একটি লেপ। তিনি দুই ছেলেকেই সমান অধিকার দিয়ে গিয়েছেন এইগুলোর উপরে। দুই ছেলে মধ্যে একটি ছিল চালাক আর অপরটি ছিল বোকা। চালাক ভাই বোকা ভাইকে বলল, "তাল গাছটাকে আমরা প্রথমে ভাগ করে ফেলি। আমি ঠিক করেছি তাল গাছের মাথার অংশ আমি নেবো আর গোড়ার অংশ তোমার।" বোকা ভাই ভাবল আলু যেমন গোড়ায় হয় তালও তেমনি গোড়াতেই হবে তাই সে নির্দ্বিধায় রাজী হয়ে গেল। ঐ বছরেই তাল গাছে প্রচুর তাল হল চালাক ভাই প্রাণ ভরে তাল পেড়ে তালের পিঠা খেতে লাগল বোকা ভাইকে একটা তালও দিলো না। বোকা ভাই আর সহ্য করতে না পেরে বলেই ফেলল,"গাছটার উপরে তোা আমারও সমান অধিকার আছে, তাহলে আমাকে কেন তাল দিচ্ছ না?" চালাক ভাই উত্তরে বলল, "আমরা তো প্রথমেই ঠিক করে নিয়েছি যে গাছের মাথার অংশ আমার আর গোড়ার অংশ তোমার তাহলে, আমি কেন আমার ভাগের অংশ থেকে তোমাকে ফল দেব?" বোকা ভাই মন খারাপ করে বসে রইল। এর কয়েকদিন পর তার ঠিক করলা গাভীটাকে ভাগ করবে বোকা ভাই মনে মনে ভাবল আগেরবার তার ভাই চালাকি করে তাল গাছের মাথার অংশ নিয়েছে এবার সে কিছুতেই আর ঠকবেনা। তাই সে আগে ভাগেই মাথার অংশ চেয়ে নিলো। চালাক ভাই কোনো আপত্তি না করে খুশি মনে মেনে নিলো। বোকা ভাই প্রতিদিন গাভীটাকে খাওয়াতে লাগল, যত্ন করতে থাকল। কয়েকমাস পরে গাভীটা দুগ্ধবতী হলে চালাক ভাইকে দুধ দুইয়ে নিতে দেখে বোকা ভাই বলল, "কি ব্যাপার! সব দুধ তো তুমি নিয়ে যাচ্ছ ,তাহলে আমি কি খাবো?" চালাক ভাই তৎক্ষণাৎ বলে উঠল, "আমি কেন তোমার জন্য দুধ রাখবো, মনে নেই তুমি নিজেই তো গাভীর মাথার অংশ বেছে নিয়েছ। আর যেহেতু, পেছনের অংশ আমার তাই দুধ একমাত্র আমারি প্রাপ্য"। বোকা ভাই আর বলার কোনো কথাই খুজে পেল না। এরমধ্যে শীতকাল এসে গেল তাই তারা লেপ ভাগ করার সিদ্ধান্ত নিলো। আর লেপ যেহেতু কেটে ভাগ করা যাবেনা তাই চালাক ভাই ঠিক করল রাতে লেপ সে গায়ে দেবে আর দিনে তার বোকা ভাই। বোকা ভাই চালাক ভাইয়ের চালাকি ধরতে না পেরে অনায়াসে রাজী হয়ে গেল। এরপরে রাতের পর রাত বোকা ভাই প্রচন্ড শীতে না ঘুমিয়ে কাটাতে লাগল আর চালাক ভাই মহানন্দে রাতে নাক ডেকে ঘুমাতে লাগল। অন্যদিকে রাতের পর রাত ঠান্ডায় থেকে বোকা ভাইয়ের জ্বর এসে গেল। একদিন তাদের বাড়ির পাশ দিয়ে এক বুদ্ধিমান লোক যাচ্ছিল সে বোকা ভাইয়ের জ্বরে শুকিয়ে যাওয়া চেহারা দেখে জানতে চাইল তার কি হয়েছে, তখন সে সব কথা খুলে বলে। লোকটা সব কথা শুনে তাকে কিছু বুদ্ধি শিখিয়ে দিলো চালাক ভাইকে জব্দ করার। বোকা ভাই শেখানো কথা মত লেপটাকে পানিতে ভিজিয়ে রেখে দিলো। চালাক ভাই রাতে ঘুমানোর সময় লেপ ভেজা দেখে রেগে গিয়ে তার ভাইকে জিজ্ঞেস করে কেন সে লেপ ভিজিয়েছে। বোকা ভাই উত্তর দেয়, "রাতের বেলা লেপ তোমার আর দিনের বেলা আমার। তাই দিনে আমি আমার লেপ ভেজাবো, ছিড়ে ফেলবো, যা ইচ্ছে তাই করব তাতে তোমার অসুবিধা কী?" চালাক ভাই তখন উপায়ন্তর না দেখে ঠিক করল এরপর থেকে তারা দুজনেই একসাথে লেপ গায়ে দিয়ে ঘুমাবে। পরেরদিন চালাক ভাই ঘুম থেকে জেগে দেখে তার ভাই তাল গাছের গোড়ায় দা দিয়ে কোপ দিচ্ছে তাই দেখে সে বাধা দিয়ে জিজ্ঞেস করল কেন সে এমন করছে। বোকা ভাই তখন উত্তর দিলো, "তুমি যখন তোমার অংশের তাল খাচ্ছিলে তখন আমি কোনো বাধা দেইনি, কারণ উপরের অংশ তোমার। তাই তুমিও এখন আমাকে বাধা দিতে পারোনা, কারণ নিচের অংশ আমার। তাই আমি আমার অংশ কাটবো, ভাংবো যা খুশি করব তুমি বাধা দেবেনা। তাছাড়া গোড়া থেকে আমিতো কোনো ফল পাচ্ছিনা, তাই আমি আমার অংশ আর রাখব না। এবারে চালাক ভাই বাধ্য হয়ে তালের ভাগ দিতে রাজী হল। বাকী রয়ে গেল গাভী। বোকা ভাই গাভীটাকে খাওয়ানো বন্ধ করে দিলো। ফলে গাভীটা ধীরে ধীরে রোগা, অর্ধমৃত হয়ে গেল আর দুধ দেয়া বন্ধ করে দিলো। তাই দেখে চালাক ভাই তার ভাইকে কারণ জিজ্ঞেস করলে সে বলে সে যেহেতু গাভীটাকে খাইয়ে কোনো লাভ পায়না, তাই সে আর এখন থেকে গাভীটাকে খাওয়াবে না বরং আজই গাভীটার গলা কেটে ফেলবে। আর গলার অংশ যেহেতু তার সে সেটা করতেই পারে এইকথা ভেবে চালাক ভাই তাকে এসব করতে নিষেধ করে মেনে নেয় এরপর থেকে দুইভাই সমান ভাবে গাভীটাকে খাওয়াবে এবং দুধও সমান ভাগ করে খাবে। তারপর থেকে তাদের মধ্যে আর কোনো সমস্যা রইল না। তার দুজন একসাথে লেপ গায়ে দিয়ে ঘুমায়, তালের পিঠা বানিয়ে একসাথে মজা করে খায়, আর গাভীর দুধ সমান ভাগে ভাগ করে খায়।


এডিট ডিলিট প্রিন্ট করুন  অভিযোগ করুন     

গল্পটি পড়েছেন ১৬৩৭ জন


এ জাতীয় গল্প

→ শেয়ালের চালাকি
→ শিয়ালের চালাকি এবং গাধার বোকামি
→ তিন বোকার কাহিনী
→ ★★তিন বোকার গল্প★★
→ শেয়ালের চালাকি
→ রসিক গোপালের চালাকি
→ তিন বোকার গল্প
→ গোপালের চালাকি
→ বল্টুর চালাকি

গল্পটির রেটিং দিনঃ-

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করুন

গল্পটির বিষয়ে মন্তব্য করতে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন ... ধন্যবাদ...